১৮ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

অবশেষে মালয়েশিয়াকে থামাল ভারত


অবশেষে মালয়েশিয়াকে থামাল ভারত

রুমেল খান ॥ দারুণ জমে উঠেছে এশিয়া কাপ হকির সুপার ফোরের লড়াই। রাউন্ড রবিন লীগ পদ্ধতিতে প্রত্যেক দল পরস্পরের বিরুদ্ধে একটি করে ম্যাচ খেলবে। পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দুুই দল খেলবে ফাইনালে। ইতোমধ্যেই সব দল খেলে ফেলেছে দুটি করে ম্যাচ। আর বাকি আছে একটি করে ম্যাচ। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছেÑ এখনও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না কোন দুটি দল ফাইনালে খেলবে। প্রতিটি দলেরই সম্ভাবনা আছে ফাইনালে ওঠার। এই যেমন ভারতের কথাই ধরা যাক। দু’বারের চ্যাম্পিয়ন ভারত বৃহস্পতিবার মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে মালয়েশিয়াকে ৬-২ গোলে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকেও নিরাপদ নয়। কেননা গাণিতিক সমীকরণে তাদেরও ফাইনালে ওঠার স্বপ্নভঙ্গ হওয়ার আশঙ্কা আছে। তবে বাকি তিন দলের চেয়ে এক্ষেত্রে সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে তারা। এক্ষেত্রে পাকিস্তান আছে সবচেয়ে বেকায়দা অবস্থায়। কেননা শেষ ম্যাচে তাদের শুধুু জিতলেই চলবে না, জিততে হবে অনেক বেশি গোলের ব্যবধানে। এছাড়া ভাগ্যের সহায়তাও লাগবে। মোটকথা ফাইনালে ওঠাটা তাদের নিজের হাতে নেই।

ভারত-মালয়েশিয়ার ম্যাচ প্রসঙ্গে আসা যাক। এই আসর শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত দুটি দলই অপরাজিত ছিল। ভারত এবং মালয়েশিয়া। ভারতের র‌্যাঙ্কিং ৬, মালয়েশিয়ার ১৪। ভারত দু’বার এশিয়া কাপের শিরোপা জিতলেও মালয়েশিয়া কখনও জেতেনি। অথচ এবার শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলছিল মালয়েশিয়া। তারা গ্রুপ পর্বে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়ে চমক সৃষ্টি করে। তিনবারের শিরোপাধারী পাকিস্তানকেও হারিয়ে দেয় সুপার ফোরের ম্যাচে। এমন দারুণ ফলে যেন আকাশে উড়ছিল তারা। ফলে হকিপ্রেমীদের ধারণা ছিল শেষ পর্যন্ত ফাইনালে তারাই খেলবে হট ফেভাারিট ভারতের বিরুদ্ধে। তাই বৃহস্পতিবারের সুপার ফোরের এই ম্যাচটি যেন ছিল অনেকটা ‘ড্রেস রিহার্সাল।’ কিন্তু সবাইকে অবাক ও হতাশ করে প্রতিপক্ষের কাছে আত্মসমপর্ণ করে বসলো তারা। উড়তে থাকা মালয়েশিয়াকে যেন টেনে মাটিতে নামালো ভারত। থামিয়ে দিল তাদের বিজয়রথ।

১৪ মিনিটে আকাশদীপের রিভার্স হিটে চমৎকার গোল করে এগিয়ে যায় ভারত (১-০)। ১৯ মিনিটে পুনরায় পিসি পায় ভারত। রমনদীপ-চিংলেনসানা-হারমানপ্রীতের কম্বিনেশনে ড্রাগ এ্যান্ড পুশে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ভারত (২-০)। ২৪ মিনিটে ভারতের সুনীল থেকে উথাপ্পার রিভার্স হিটে গোল হলে স্কোরলাইন দাঁড়ায় ৩-০। ৩৩ মিনিটে ভারতের আকাশদীপ থেকে গুরজান্ত সিংয়ের কানেক্টে গোল হলে ব্যবধান হয় ৪-০। ৪০ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে গুরজান্ত সিং এবং সুনীলের আদান-প্রদানে গোল করেন সুনীল (৫-০)। ৪৯ মিনিটে পঞ্চম পিসি পায় মালয়েশিয়া। জলিল-ফিতরি-রহিম রাজির কম্বিনেশনে একটি গোল শোধ করে মালয়েশিয়া (১-৫)। ৫৮ মিনিটে ভারতের গোলকিপারের পায়ের ফাঁক দিয়ে পোস্টে বল পাঠান মালয়েশিয়ার রোসলি রমাদান (২-৫)। ৬০ মিনিটে আকাশদীপ থেকে সরদার সিং আরেকটি গোল করে মালয়েশিয়ার হারের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন (৬-২)।

ফাইনালে ওঠার সমীকরণ

ভারত : শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের সঙ্গে ন্যূনতম ড্র করলেই ফাইনালে উঠবে।

মালয়েশিয়া : শেষ ম্যাচে কোরিয়ার বিরুদ্ধে জিতলে ফাইনালে উঠবে। ন্যূনতম ড্র করলেও ফাইনালে উঠবে (সেক্ষেত্রে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচটি ড্র হতে হবে)।

কোরিয়া : শেষ ম্যাচে কোরিয়া মালয়েশিয়ার বিরুদ্ধে জিতলে ফাইনালে উঠবে।

পাকিস্তান : ভারতকে যত বেশি সম্ভব গোলে হারাতে হবে এবং মালয়েশিয়া-কোরিয়া ম্যাচ ড্র হওয়ার জন্য প্রার্থনা করতে হবে। এক্ষেত্রে মালয়েশিয়ার চেয়ে গোল গড়ে এগিয়ে গেলে ফাইনালে উঠবে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: