২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

টানা তিন জয় বার্সিলোনা, পিএসজি, ম্যানইউর


টানা তিন জয় বার্সিলোনা, পিএসজি, ম্যানইউর

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ, নতুন কোচের অধীনে জয়ে ফিরল বেয়ার্ন, ছয় গোলের ম্যাচে চেলসির ড্র, বাদ পড়ার শঙ্কায় এ্যাটলেটিকো, জুভেন্টাসের ঘাম ঝরানো জয়, বার্সিলোনা ৩-১ অলিম্পিয়াকোস, জুভেন্টাস ২-১ স্পোর্টিং সিপি, চেলসি ৩-৩ রোমা, কারাবাখ ০-০ এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ, আন্ডারলেচট ০-৪ পিএসজি, বেয়ার্ন মিউনিখ

৩-০ সেল্টিক, বেনফিকা ০-১ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফুটবলে টানা তিন জয় পেয়েছে বার্সিলোনা, প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন (পিএসজি) ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। বুধবার রাতে ‘ডি’ গ্রুপের ম্যাচে দশজন নিয়েও বার্সিলোনা ৩-১ গোলে হারিয়েছে গ্রীসের ক্লাব অলিম্পিয়াকোসকে। গ্রুপের আরেক ম্যাচে পর্তুগালের স্পোর্টিং সিপিকে ঘাম ঝরিয়ে ২-১ গোলে হারিয়েছে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাস।

‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে চার তারকা ফুটবলার নেইমার, এডিনসন কাভানি, কিলিয়ান এমবাপে ও এ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার নৈপুণ্যে পিএসজি ৪-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিক বেলজিয়ামের ক্লাব আন্ডালেচটকে। একই গ্রুপে বেয়ার্ন মিউনিখ ৩-০ গোলে হারিয়েছে স্কটল্যান্ডের সেল্টিককে। ‘এ’ গ্রুপে টানা তিন জয়ের পথে ম্যানইউ ১-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিক পর্তুগালের বেনফিকাকে। গ্রুপের আরেক ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের এফসি বাসেল ২-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিক রাশিয়ান ক্লাব সিএসকেএ মস্কোকে। ‘সি’ গ্রুপের দু’টি ম্যাচই ড্র হয়েছে। লন্ডনের স্টামফোর্ড ব্রিজে চেলসি দুই গোলে এগিয়ে যেয়েও ৩-৩ গোলে ড্র করেছে ইতালিয়ান ক্লাব এএস রোমার সঙ্গে। আরেক ম্যাচে আজারবাইজানের কারাবাখের মাঠে গোলশূন্য ড্র করে ফিরেছে স্প্যানিশ ক্লাব এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।

ন্যুক্যাম্পে অলিম্পিয়াকোসের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় হলুদ কার্ডের কারণে জেরার্ড পিকেকে ৪২ মিনিটে মাঠ ছাড়তে হলে বাকি সময়টা দশজনকে নিয়ে খেলতে হয়েছে বার্সিলোনাকে। ঘটনাবহুল ম্যাচের ১৮ মিনিটে দিমিত্রিস নিকোলাওয়ের আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। এরপর অলিম্পিয়াকোস ম্যাচে ফিরে আসার দারুণ একটি সুযোগ পায়। ৪২ মিনিটে জেরার্ড ডেলোফের শট ইচ্ছা করে পিকে হাতে লাগিয়ে গোল করলে রেফারি উইলি কোলাম আগেই হলুদ কার্ড পাওয়া স্প্যানিশ এই সেন্টারব্যাককে লালকার্ড দেখান। কিন্তু দশজনের বার্সিলোনার বিরুদ্ধেও কোন ধরনের সুযোগ নিতে পারেনি পানাগিওজিস লেমোনিসের শিষ্যরা। ৬১ মিনিটে দারুণ এক ফ্রিকিকে মেসি রিয়াল তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর সঙ্গে দ্বিতীয় সদস্য হিসেবে ইউরোপিয়ান ফুটবলে শততম গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন। তিন মিনিট পরেই মেসির সহায়তায় লুকাস ডিগনে বার্সার জয় নিশ্চিত করেন। ৯০ মিনিটে অলিম্পিয়াকোসের হয়ে সান্ত¡নাসূচক একটি গোল করেন নিকোলাও। মজার বিষয় হচ্ছে ম্যাচের শুরুতে তিনি নিজেদের জালে গোল করেন, শেষটা প্রায়শ্চিত্ত করেন প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়ে।

কাতালান রাষ্ট্রের স্বাধীনতা প্রশ্নে বিরোধিতার জেরে চলতি মাসের শুরুতে লা লিগায় লাস পালমাসের বিপক্ষে দর্শকশূন্য মাঠে বার্সিলোনা ক্যাম্প ন্যুতে খেলতে নেমেছিল। তারপর এই প্রথম ঘরের মাঠে খেলতে নামলো বার্সা। যে কারণে বার্সা সমর্থকদের মধ্যে একটু বাড়তি উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা যায়। আন্ডারলেচটের মাঠে ম্যাচ শুরুর মাত্র তৃতীয় মিনিটের মধ্যেই পিএসজি ভাসে এগিয়ে যাওয়ার আনন্দে। গোল করেন এমবাপে। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার আগমুহূর্তে প্রতিপক্ষের জালে আরেকবার বল জড়ায় পিএসজি। এবার স্কোরবোর্ডে ওঠে এডিনসন কাভানির নাম। ২-০ গোলে এগিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষের পর দ্বিতীয়ার্ধে আবারও এ্যান্ডারলেচটের রক্ষণভাগকে তটস্থ করে তোলেন নেইমাররা। ৬৬ মিনিটে নেইমার করেন দলের পক্ষে তৃতীয় গোলটি। আর ৮৮ মিনিটে স্বাগতিকদের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন এ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। এই ম্যাচের পুরোটা সময় নান্দনিক ফুটবল উপহার দেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার।

বেনফিকার মাঠে খেলতে গিয়ে ম্যানইউ জিতেছে ১-০ গোলে। ৬৪ মিনিটে দলের পক্ষে জয়সূচক গোলটি করেন মার্কাস রাশফোর্ড। ফুটবলপ্রেমীরা জমজমাট ও নাটকীয়পূর্ণ একটি ম্যাচ উপভোগ করেছেন চেলসি ও রোমার সৌজন্যে। নিজেদের মাঠে ম্যাচের একাদশ মিনিটেই এগিয়ে যায় চেলসি। গোল করেন ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার ডেভিড লুইজ। ৩৭ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে জোশে মরিনহোর দল। রোমার জালে বল জড়িয়ে দেন ইডেন হ্যাজার্ড। তিন মিনিট পর সেসার আসপিলিকুয়েতাকে কাটিয়ে কোনাকুনি শটে আলেক্সান্ডার কোলারভ গোল করলে ম্যাচে ফেরে রোমা। ৬৪ মিনিটে ম্যাচে সমতা ফেরান এডিন জেকো। চার মিনিট পর কোলারভের ফিফ্রকিকে হেড করে রোমাকে এগিয়ে নেন বসনিয়ার এই ফরোয়ার্ড। ৭৫ মিনিটে সমতায় ফেরে চেলসি। দুর্দান্ত হেড করে প্রতিপক্ষের জালে বল পাঠান হ্যাজার্ড। এ গোলে ড্রয়ের স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে ব্লুজরা।

চলতি মৌসুমে সময়টা ভাল যাচ্ছে না এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের। গ্রুপপর্বের প্রথম দুই ম্যাচের একটিতে হার ও অপরটিতে ড্র করার পর পরশু রাতে জয়ের সন্ধানে মাঠে নেমেছিল দিয়াগো সিমিওনের দল। তবে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লীগে জায়গা করে নেয়া কারাবাখের মাঠ থেকে গোলশূন্য ড্র নিয়ে ফিরেছে এ্যাটলেটিকো।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: