২২ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নির্ধারিত মেয়াদেই বাংলাদেশ ছাড়বে অ্যাকর্ড


নির্ধারিত মেয়াদেই বাংলাদেশ ছাড়বে অ্যাকর্ড

অনলাইন রিপোর্টার ॥ আগামী ৩১ মে পর্যন্ত পাঁচ বছরের নির্ধারিত মেয়াদেই বাংলাদেশ ছাড়বে পোশাক খাতের সংস্কারবিষয়ক ইউরোপীয় ক্রেতাজোট অ্যাকর্ড অন ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশ (অ্যাকর্ড)। তবে ক্রেতাজোটের মেয়াদ শেষে সংস্কার অব্যাহত রাখতে সরকার গঠিত রেমিডিয়েশন কো-অর্ডিনেশন সেলের (আরসিসি) কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় প্রয়োজনে আর ছয় মাস এ দেশে কাজ করতে পারবে তারা।

ঢাকায় বৃহস্পতিবার সবপক্ষের মতামতের ভিত্তিতে সর্বসম্মত এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। সরকার, অ্যাকর্ড প্রতিনিধি, বিজিএমইএ, আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংগঠনের প্রতিনিধিদের গুরুত্বপূর্ণ এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সরকারের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ও শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, অ্যাকর্ডের পক্ষে সফররত পরিচালনা কমিটি এবং বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান।

এফবিসিসিআই সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, সংশ্লিষ্ট দুই সচিব, বিজিএমইর সহসভাপতি মাহমুদ হাসান খান বাবু প্রমুখ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে শেষে ব্রিফিংয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, 'সব পক্ষের ফলপ্রসূ আলোচনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে, অ্যাকর্ড সম্মানেরসঙ্গে ফিরে যাবে। তারা যে কাজে এসেছিল সেই কাজ শেষ হয়েছে।'

অ্যাকর্ড বলেছে, 'বাংলাদেশের পোশাক কারখানা এখন ঝুঁকিমুক্ত। সংস্কারে উদ্যোক্তাদের ৫ থেকে ২৫ কোটি টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগের ফলে এই অগ্রগতি এসেছে। তবে নির্ধারিত ৩১ মের মধ্যে চলে যাওয়ার প্রস্তুতির জন্য আরসিসির কাছে দায়িত্ব হস্তান্তরে দেরি হলে বাড়তি ছয় মাস থাকার সুযোগ পাবে তারা। তবে এ সময় বর্তমান নামের পরিবর্তে 'অন্তবর্তীকালীন অ্যাকর্ড' নামে কাজ করবে তারা। এ প্রক্রিয়ায় সব পক্ষের সমন্বয়ে একটি মনিটরিং কমিটি থাকবে। এ কমিটি আগামী জানুয়ারিতে অ্যাকর্ডের হস্তান্তর কার্যক্রম পর্যালোচনা করবে। ৩১ মে দ্বিতীয় দফা পর্যালেচনায় যদি কমিটি সন্তুষ্ট হয় তাহলে অ্যাকর্ডের মেয়াদ আর বাড়ানো হবে না।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন অন্য ক্রেতাজোট উত্তর আমেরিকার অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটি সম্পর্কে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, 'অ্যালায়েন্স আগেই চিঠি দিয়ে জানিয়েছে, তারা মেয়াদ শেষে আর এ দেশে থাকবে না।'

দুই জোট সম্পর্কে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, 'অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্স দায়িত্ব পালন করেছে। সম্মানের সঙ্গে তারা ফিরে যাবে। আমরা তাদের মনে রাখব।'

তোফায়েল আহমেদ বলেন, 'অনেক শ্রমিক নেতা কোনো সমস্যা হলে সরকারকে না জানিয়ে বিদেশে তথ্য সরবরাহ করেন। বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, কোনো সমস্যা হলে শ্রম মন্ত্রণালয়কে জানাবেন শ্রমিক নেতারা। মন্ত্রণালয় যাচাই-বাছাই করে প্রয়োজনে দায়ী কারখানা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।'

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সাভারে 'রানা প্লাজা' ধসের পর একই বছরের ১৫ মে ইউরোপের ২০টি দেশসহ উত্তর আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়ার ২০০ ব্র্যান্ড এবং খুচরা ক্রেতার ট্রেড ইউনিয়নের সমন্বয়ে অ্যাকর্ড গঠিত হয়। প্রায় একই সময়ে একই কাঠামোতে অ্যালায়েন্স গঠন করা হয়।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: