১৮ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

সুপার ফোরে আজ মুখোমুুখি মালয়েশিয়া-পাকিস্তান


সুপার ফোরে আজ মুখোমুুখি মালয়েশিয়া-পাকিস্তান

রুমেল খান ॥ একদিন বিরতি দিয়ে আজ থেকে আবারও নীল টার্ফে গড়াচ্ছে ‘এশিয়া কাপ হকি’র দশম আসরের ‘সুপার ফোর’ এবং পঞ্চম থেকে অষ্টম স্থান নির্ধারণী ম্যাচ। মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে প্রথমদিনে আজ অনুষ্ঠিত হবে তিনটি খেলা। দুটি সুপার ফোরের এবং একটি স্থান নির্ধারণী খেলা। বিকেল ৩টায় সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে মালয়েশিয়া মোকাবেলা করবে পাকিস্তানের। দ্বিতীয় ম্যাচে বিকেল সাড়ে ৫টায় ভারত মুখোমুখি হবে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণ কোরিয়ার। পঞ্চম স্থান নির্ধারণী ম্যাচে রাত ৮টায় জাপান লড়াই করবে ওমানের বিরুদ্ধে। সুপার ফোরের চারটি দল হলো : মালয়েশিয়া, পাকিস্তান, ভারত ও দক্ষিণ কোরিয়া। আর স্থান নির্ধারণীর দলগুলো হলো : জাপান, ওমান, চীন ও বাংলাদেশ।

‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন দল মালয়েশিয়া। দক্ষিণ কোরিয়া এই আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন হলেও র‌্যাঙ্কিংয়ে তাদের চেয়ে একধাপ এগিয়ে মালয়েশিয়া (১২, কোরিয়া ১৩)। গত শনিবারের ম্যাচে মালয়েশিয়া ২-১ গোলে দক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়ে গ্রুপ ‘বি’ থেকে সবার আগে সুপার ফোরে নাম লেখায়। ২ ম্যাচের প্রতিটিতেই জেতায় ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষস্থানেই ছিল তারা। গত সোমবার তাদের লক্ষ্য ছিল ড্র করে বা জিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়া। ড্র নয় প্রতিপক্ষ ওমানকে নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলায় মেতে ওঠে (৭-১) অনায়াসেই জয় কুড়িয়ে নেয় তারা।

৩ ম্যাচের প্রতিটিতেই জিতে ৯ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয় মালয়েশিয়া। এছাড়া মালয়েশিয়া এর আগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে চীনকে হারিয়েছিল ৭-১ গোলে। মজার ব্যাপারÑ মালয়েশিয়া নিজেদের প্রথম ম্যাচে যে ব্যবধানে জিতেছিল, শেষ গ্রুপ ম্যাচেও সেই একই ব্যবধানে জেতে। ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ভারতের মতো তারাও চলতি টুর্নামেন্টে এখনও কোন ম্যাচে হারের স্বাদ পায়নি মালয়েশিয়া। তবে মোট দলীয় গোল করার ক্ষেত্রে ভারতকে টপকে গেছে তারা। ভারত যেখানে করেছে ১৫ গোল, সেখানে মালয়েশিয়ার গোল ১৬।

মালয়েশিয়ার প্রতিপক্ষ পাকিস্তান হচ্ছে ‘এ’ গ্রুপের রানার্সআপ। এই আসরের তিনবারের চ্যাম্পিয়ন। গ্রুপে ১ জয়, ১ হার ও ১ ড্রতে ৪ পয়েন্ট লাভ করে তারা। শেষ ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে হারলেও ক্ষতি হয়নি তাদের। কেননা গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে তারাও কপালগুণে নাম লিখিয়েছে সুপার ফোরে। তাদের সমান পয়েন্ট ছিল জাপানেরও। কিন্তু গোল তফাতে জাপানের চেয়ে (-২) এগিয়ে থাকায় পাকিস্তানই যায় (+৫) সুপার ফোরে। ফলে গত রবিবার বাংলাদেশকে হারিয়েও কপাল পোড়ে জাপানের, আর ভারতের কাছে হেরেও বেঁচে যায় পাকিস্তান।

ভারত হচ্ছে ‘এ’ গ্রুপের অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন। দু’বারের চ্যাম্পিয়ন। চলতি টুর্নামেন্টে প্রচুর গোল করার পাশাপাশি তাদের কঠিন ডিফেন্সও নজর কেড়েছে। এ পর্যন্ত তারাই সবচেয়ে কম গোল (২টি) হজম করেছে। গ্রুপে জাপানকে ৫-১, বাংলাদেশকে ৭-০ এবং পাকিস্তানকে ৩-১ গোলে হারিয়ে গ্রুপসেরা হয়ে সুপার ফোরে ওঠে তারা।

আজ ভারতের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া। তারা হচ্ছে ‘বি’ গ্রুপের রানার্সআপ। এই আসরের সর্বাধিক (৪ বার) চ্যাম্পিয়ন তো বটেই, বর্তমান চ্যাম্পিয়ন তারাই। কিন্তু কেন যেন চলতি আসরে তাদের খেলায় তেমন আশাব্যঞ্জক হচ্ছে না। গ্রুপ ম্যাচে ৭-২ গোলে ওমানকে হারালেও নিজেদের চেয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ে পিছিয়ে থাকা মালয়েশিয়ার কাছে অপ্রত্যাশিতভাবে হেরে যায় ১-২ গোলে। শেষ ম্যাচে অবশ্য চীনকে উড়িয়ে দেয় ৪-১ গোলে।

স্থান নির্ধারণী ম্যাচে ওমান হচ্ছে ‘বি’ গ্রুপের চতুর্থ ও তলানির দল। গ্রুপের তিনটি ম্যাচই হারে তারা যথাক্রমে দক্ষিণ কোরিয়া ২-৭, চীন ১-২ এবং মালয়েশিয়ার কাছে ১-৭ গোলে। তবে প্রতিটি ম্যাচে হারলেও তাদের আক্রমণাত্মক খেলা এবং প্রতিম্যাচেই বিপক্ষের গোলপোস্টে বল পাঠানো হকিপ্রেমীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। আজকের ম্যাচে তারা জয় কুড়িয়ে নিলেও আশ্চর্যের কিছু নেই।

ওমানের প্রতিপক্ষ জাপান হচ্ছে ‘এ’ গ্রুপের তৃতীয় দল। তারা অল্পের জন্য সুপার ফোরে যেতে পারেনি। কেননা তাদের সমান পয়েন্ট ছিল পাকিস্তানেরও। কিন্তু গোল তফাতে পাকিস্তানের চেয়ে পিছিয়ে থাকায় তারা সুপার ফোরে নাম লেখাতে ব্যর্থ হয়। ফলে গত রবিবার নিজেদের শেষ গ্রুপ ম্যাচে বাংলাদেশকে হারিয়েও কপাল পোড়ে তাদের। রবিবার দিনের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৩-১ গোলে হারানোর পর এবং এরপর ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচ শুরু হওয়ার আগে জাপানের জন্য সমীকরণটা ছিল এমন পাকিস্তান যদি ভারতের কাছে কমপক্ষে ১০ গোলের ব্যবধানে হারে তবেই গোলগড়ে পাকিস্তানকে টপকে গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে সুপার ফোরে যেতে পারবে জাপান। ম্যাচে পাকিস্তান হেরেছে ঠিকই কিন্তু মাত্র দুই গোলের ব্যবধানে। যা জাপান দলের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: