২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পটুয়াখালীতে সুতাবাড়ীয়া নদীর সেতুটির জন্য জনদুর্ভোগ


পটুয়াখালীতে সুতাবাড়ীয়া নদীর সেতুটির জন্য জনদুর্ভোগ

নিজস্ব সংবাদদাতা, পটুয়াখালী ॥ পটুয়াখালীর দশমিনার খারিজা বেতাগি মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন সুতাবাড়য়িা নদীর উপর লোহার সেতুটি এক বছরেও সংস্কার কিংবা পুনঃনির্মান হয় নি। ফলে খেয়া নৌকায় চরম ঝুঁকি নিয়ে নদী পারাপার হতে হয়। সেতুটি ভেঙে পরায় বেতাগী-সানকিপুর ইউনিয়ন দুই ভাগে বিচ্ছিন্ন হয়ে পরেছে। এই অবস্থায় ইউনিয়নবাসি উপজেলার সঙ্গে সহজ যোগাযোগ, লেখাপড়া, জরুরী স্বাস্থ্য সেবাসহ সকল কার্যক্রম ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

জানা যায়, বেতাগী সানকিপুর ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে সুতাবড়িয়া শাখা নদী। নদীর পূর্ব পাড়ে মরদানা, গরমআলী, জাফরাবাদ গ্রামসহ খারিজাবেতাগী ও তফালবাড়ীয়া গ্রামের একাংশ। আর পশ্চিমপাড়ের গ্রামগুলো হচ্ছে রামবল্লভ, দাবাড়ি, চিংগরীয়া, চন্দ্রাবাজসহ খারিজাবেতাগীর এবং তফালবাড়ীয়ার অপর অংশ । এই ১১ গ্রামবাসির সহজ যোগাযোগ সংযোগ ছিল জমির মৃধা বাজার এলাকার খারিজা বেতাগি মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন লোহার বিমের উপর আরসিসি কংক্রিট ঢালাইর এই সেতু।

পূর্ব পাড়ের লোকজন নিত্যপ্রয়োজনীয় বাজার-হাট, জরুরী স্বাস্থ্য সেবার কমিউনিটি ক্লিনিক, মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার জন্য পশ্চিম পাড়ে আসতে হয়। অপরদিকে পশ্চিম পাড়ের লোকজনদের সরাসরি উপজেলা সদরে যোগাযোগে এই সেতু পার হয়ে যেতে হতো।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (দায়িত্বপ্রাপ্ত) হিরন আহমেদ বলেন, খারিজা বেতাগী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৩২০ জন শিক্ষার্থী ও খারিজা বেতাগী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২১৩ জন শিশু শিক্ষার্থী রয়েছে। এদের মধ্যে অন্তত ১৫০ শিক্ষার্থী নদীর পূর্ব পারের বাসিন্দা। সেতুটি বিধ্বস্ত হয়ে পড়ায় এখন শিশু শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার কমে গেছে।

বেতাগিসানকিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো:মহিবুল আলম বলেন, আসলে সেতুটি ভেঙে পরায় আমার ইউনিয়ন এখন বিচ্ছিন্ন হয়ে পরেছে। এখন নতুন করে একটি সেতুর জন্য দশমিনা উপজেলা পরিষদ, এলজিইডি কার্যালয়ে অবহিত করা হয়েছে।

এলজিইডি, দশমিনা উপজেলা প্রকৌশলীর মো.জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ইউনিয়নবাসির সহজ যোগাযোগের জন্য দশমিনার বেতাগী সানকিপুর ইউনিয়নের জমির মৃধা বাজার এলাকায় ব্রীজটি। ভেঙ্গে পড়া ব্রীজটি খুব তারাতারি গার্ডার ব্রিজ নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৪ ডিসেম্বর দুপুরে বালু বোঝাই একটি কার্গোর ধাক্কায় সেতুর মাঝখানের অংশ ভেঙ্গে নদীতে পরে যায়। এসময় সেতুর উপর থাকা চার শিশুসহ পাঁচজন নদীতে পরে যায়। চারজন সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও নুরসাত জাহান (৫) নামে একটি শিশু মারা যায়।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: