২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ভালুকায় কলেজ ছাত্রীকে গণধর্ষণ


ভালুকায় কলেজ ছাত্রীকে গণধর্ষণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভালুকা, ময়মনসিংহ ॥ ভালুকার খোলাবাড়ি গ্রামে আকাশমনি বনে অনার্স প্রথম বর্ষে অ্যাকাউন্টিং এ অধ্যায়ণরত এক কলেজ ছাত্রীকে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে গণধর্ষণ করে দুর্বৃত্তরা ফেলে রেখে যায়। আজ শনিবার সকালে তাকে উদ্ধার করে ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় পরে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ধর্ষিতাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

ধর্ষিতা সূত্রে জানা যায়, তার বাবা আক্তারুজ্জামান সাভার এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে ঢাকার একটি ফ্যাক্টরিতে কর্মরত। তাদের বাড়ি চাঁপায়নবাবগঞ্জ সদরের কালিনগরে । ধর্ষিতা রাজশাহীর একটি কলেজে অনার্স প্রথম বর্ষে অ্যাকাউন্টিং এ অধ্যায়ণরত এবং গাজীপুরের মাঝখোলা এলাকায় একটি ছাত্রীমেছে ভাড়া থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য কনফিডেন্স কোচিং সেন্টারে কোচিং করতেন । শুক্রবার দিন কোচিং এ পরীক্ষা দেওয়ার পর তাদের সভারের বাসায় যান, সেখান থেকে রাজশাহী যাওয়ার উদ্দেশে গাজীপুর রেল স্টেশনে আসলে ট্রেনের আসন খালি না থাকায় ট্রেনে রাজশাহী যাওয়া হয়নি। রেল স্টেশনে রাজশাহী যাওয়ার অপরিচিত বয়ষ্ক (আংকেল) যাত্রীর সাথে পরিচয় হয়, তখন তার (আংকেল) সাথে এক যুবকও ছিল। তারা রাজশাহী যাবেন বলে তাকে বলেন এবং বলেন চলো আমরা বাসে যাই। সেখান থেকে তাকে নিয়ে একটি বাসে রওনা দিলে বাসের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন। আনুমানিক দুই ঘন্টা বাসটি চলার পর বাস থেকে তাকে নামিয়ে একটি সিএনজিতে তুলে । এর পর তিনি আর কিছুই বলতে পারেন না।

ধারনা করা হচ্ছে তাকে গণধর্ষণ করার পর অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে গজারি বনের ভিতরে ফেলে দুর্বৃত্তরা চলে যায়।

চিকিৎসক জানান, নেশা জাতীয় কিছু খাইয়ে একাধিক ব্যক্তি মেয়েটিকে ধর্ষণ করেছে। তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মামুন অর রশিদ জানান, মেয়েটি সুস্থ হলে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানাযাবে, প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে মেয়েটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: