২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

প্রধান বিচারপতির বক্তব্য নিয়ে রবিবার আইনমন্ত্রীর ব্রিফিং


প্রধান বিচারপতির বক্তব্য নিয়ে  রবিবার আইনমন্ত্রীর ব্রিফিং

স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্রধান বিচারপতির বিদেশে যাওয়ার আগের বক্তব্য নিয়ে তিনি রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সামনে এ বিষয়ে কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

বিদেশে যাওয়ার পথে সাংবাদিকদের সামনে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার দেওয়া বক্তব্যের বিষয়ে শনিবার সাংবাদিকরা আইনমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, আমি আজ আলাদা করে কিছু বলব না। আগামীকাল রবিবার আনুষ্ঠানিক ব্রিফিং হবে। আপনাদের সময় জানিয়ে দেওয়া হবে।

পরে দুপুরে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম জানান, মাননীয় মন্ত্রী রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় সচিবালয়ের সংবাদ সম্মেলন করবেন।

শুক্রবার রাতে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার আগে রাজধানীর হেয়াররোডের বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন প্রধান বিচারপতি। এক পাতার একটি লিখিত বিবৃতিও সাংবাদিকদের হাতে দেন।

বিবৃতিতে সিনহা বলেন, ‘আমি সম্পূর্ণ সুস্থ আছি। কিন্তু ইদানীং একটা রায় নিয়ে রাজনৈতিক মহল, আইনজীবী ও বিশেষভাবে সরকারের কয়েকজন মন্ত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে ব্যক্তিগতভাবে যেভাবে সমালোচনা করেছেন, এতে আমি সত্যিই বিব্রত। আমার দৃঢ় বিশ্বাস, সরকারের একটি মহল আমার রায়ের ভুল ব্যাখ্যা প্রদান করে পরিবেশন করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার প্রতি অভিমান করেছেন। তা অচিরেই দূরীভূত হবে বলে আমার বিশ্বাস।’

তিনি আরও বলেন, ‘সেই সঙ্গে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিয়ে আমি একটু শঙ্কিতও বটে। কারণ, গতকাল প্রধান বিচারপতি কার্যভার পালনরত দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রবীণতম বিচারপতির উদ্ধৃতি দিয়ে মাননীয় আইনমন্ত্রী প্রকাশ করেছেন যে, দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি অচিরেই সুপ্রীমকোর্টের প্রশাসনে পরিবর্তন আনবেন। প্রধান বিচারপতির প্রশাসনে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি কিংবা সরকারের হস্তক্ষেপ করার কোন রেওয়াজ নেই। তিনি শুধুমাত্র রুটিন মাফিক দৈনন্দিন কাজ করবেন। এটাই হয়ে আসছে।’

প্রধান বিচারপতির সিলমোহরসহ কম্পোজ করা লিখিত বক্তব্যে লেখা রয়েছে, ‘প্রধান বিচারপতির প্রশাসনে হস্তক্ষেপ করলে এটি সহজেই অনুমেয় যে, সরকার উচ্চ আদালতে হস্তক্ষেপ করছে এবং এর দ্বারা বিচার বিভাগ ও সরকারের মধ্যে সম্পর্কের আরও অবনতি হবে। এটি রাষ্ট্রের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে না।’

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রধান বিচারপতির বক্তব্যকে হতাশাজনক বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা। তাদের মতে, এই বক্তব্যে দেশে অস্থিরতা তৈরি করবে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: