২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

লক্ষ্মীপুরে যুবতীকে গণ ধর্ষণ, আটক ১


লক্ষ্মীপুরে যুবতীকে গণ ধর্ষণ, আটক ১

নিজস্ব সংবাদদাতা, লক্ষ্মীপুর ॥ লক্ষ্মীপুর রামগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক যুবতীতে গণ ধর্ষণ করা হয়েছে। রামগঞ্জ উপজেলার ভোলাকোটের আতাকরা গ্রামের ঠাকুর বাড়ির আব্দুর রশিদের ভাড়া বসত ঘরে বুধবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় ভোলাকোট ইউপি চেয়ারম্যান মো. বশির আহম্মেদ মানিকের ভাই নাছির হোসেন প্রকাশ এলজি নাছির ও তার সহযোগী মো. পারভেজ ও আনোয়ার হোসেনসহ তিন লম্পট জোর পূর্বক পালাক্রমে যুবতীকে ধর্ষণ করে। পুলিশের সহযোগীতায় স্থানীয় লোকজন ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। খবর পেয়ে রামগঞ্জ থানার এস আই আশরাফ হোসেন ও এএসআই শরীফ হোসেন ঘটনাস্থলে পৌছে ধর্ষক আনোয়ার হোসেনকে আটক করে।

নাছির স্থানীয় ভোলাকোট ইউপি চেয়ারম্যান বশির আহম্মেদ মানিকের ছোট ভাই এলজি নাছির, পারভেজ আতাকরা আকর উদ্দিন বেপারী বাড়ির আব্দুল হকের ছেলে। অপর ধর্ষক আনোয়ার হোসেন নোয়াখালী জেলার চরজব্বর থানার রসুলপুর গ্রামের জাহিরের ছেলে।

এলাকাবাসী জানায়, নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলার যুবতী মেয়েকে ধর্ষক আনোয়ার হোসেন মোবাইলে বিয়ের প্রলোভনে ৯ অক্টোবর সোমবার রাতে দেহলা বেপারী বাড়ির একটি পরিত্যক্ত বসত ঘরে এনে আটকে রাখে। রাতভর তাকে ধর্ষণ করে। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বশির আহম্মেদ মানিকের ভাই নাছির ও তার সহযোগী পারভেজ তাকে আবার পালাক্রমে ধর্ষণ করে। আতাকরা গ্রামের ঠাকুর বাড়ির আ. রশিদের পরিত্যাক্ত বসত ঘরে নিয়ে আবার ওই যুবতীকে পালাক্রমে ধর্ষণের এক পর্যায়ে ধর্ষিতা চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে আনোয়ার হোসেন নামের একজনকে আটক করে। অপর দু’জন ধর্ষক নাছির,পারভেজ এর ফাঁকে পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে ধর্ষিতা নিজে বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার তিনজনকে আসামী করে রামগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করে। ধর্ষিতার ডাক্তারী পরীক্ষা এদিন বিকেল লক্ষ্মীপুর আড়াই শয্যা ঘোষিত সদর হাসপাতালে সম্পন্ন হয় বলে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন জানান।

অপরদিকে রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. তোতা মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সন্ধ্যায় জানান, এ ঘটনায় আনোয়ার হোসেন নামের একজনকে আটক করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত আসামীকে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। অপর আসামীদেরকে পাকড়াও করতে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: