২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পটিয়ায় মোস্তফা পেপার মিলে ফের শ্রমিক অসন্তোষ


পটিয়ায় মোস্তফা পেপার মিলে ফের শ্রমিক অসন্তোষ

নিজস্ব সংবাদদাতা, পটিয়া ॥ পটিয়ায় মোস্তফা পেপার কমপ্লেক্স লিমিটেডে ফের শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। বুধবার সকালে পেপার মিলের কয়েকশ শ্রমিক চট্টগ্রাম-কক্সবাজার আরকান সড়কের পটিয়া হাবিলাসদ্বীপ ইউনিয়নের চরকানাই এলাকায় অবস্থান নেয়। শ্রমিক ছাঁটায় ও নিয়মিত মাসিক বেতন না দেওয়ার কারণে শ্রমিকদের মধ্যে এ অসন্তোষ দেখা দিয়েছে বলে অভিযোগ।

এর আগেও বেতন বকেয়ার ইস্যু নিয়ে শ্রমিকরা আন্দোলন করেন। ওই সময় শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ হাসান ও পটিয়া থানার ওসি শেখ মোঃ নেয়ামত উল্লাহ শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করে শান্ত করেন। শ্রমিকদের অভিযোগ, বেতন ভাতা নিয়ে যেসব শ্রমিক আন্দোলন-সংগ্রাম করেন তাদেরকে ছাঁটায় করতে মালিকপক্ষ বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে।

এদিকে শ্রমিকদের আন্দোলন-সংগ্রাম দমাতে পেপার মিল কর্তৃপক্ষ বুধবার কারখানা বন্ধের এক নোটিশ টাঙিয়ে দেন। যার কারণে শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়ে কারখানার বাইরে গিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। খবর পেয়ে পটিয়া কালারপুল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোহাম্মদ আলীসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

শ্রমিক ও পেপার মিল সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার হাবিলাসদ্বীপ ইউনিয়নে মোস্তফা পেপার কমপ্লেক্স লিমিটেডে প্রায় ৪ শতাধিক শ্রমিক নিয়মিত কাজ করেন। প্রায় সময় এ পেপার মিলে শ্রমিকদের বেতন ভাতা আটকে রাখার কারণে শ্রমিকরা আন্দোলন-সংগ্রাম করেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর থেকে শ্রমিকরা কাজ থেকে বিরত থাকায় কারখানা অচল হয়ে যায়। কোন কারণ ছাড়া শ্রমিক ধর্মঘটের কারণে পেপার মিলের ব্যবস্থাপক স্বাক্ষরিত এক নোটিশের মাধ্যমে মিল বন্ধ ঘোষনা করা হয়। পেপার মিলের প্রশাসনিক কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম বলেন, মিলের ওয়েস্টেজ (বাতিল) কিছু মাল চুরি হওয়ার পর রুবেল, আবছার, সত্যজিত ও প্রদীপ নাথকে সন্দেহ হওয়ায় তাদেরকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে শ্রমিকরা বিশৃঙ্খলা করছে।

পটিয়া কালারপুল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোহাম্মদ আলী জানান, পেপার মিলে শ্রমিক অসন্তোষের খবর পেয়ে তিনিসহ পুলিশ দ্রুত ছুটে যান। তবে বড় ধরনের সমস্যা হয়নি। শ্রমিকদের সঙ্গে আলাপ করে শীঘ্রই তা মিমাংসা করা হবে বলে জানান।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: