২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

হবিগঞ্জে ট্রাক চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত ॥ ট্রাকে আগুন,সড়ক অবরোধ


হবিগঞ্জে ট্রাক চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত ॥ ট্রাকে আগুন,সড়ক অবরোধ

নিজস্ব সংবাদদাতা,হবিগঞ্জ ॥ বেপরোয়া এক ট্রাক চালকের উদাসীনতার কারনে মঙ্গলবার বিকেলে হবিগঞ্জ শহরের রাজনগর এলাকায় জিসান (১৫) নামে এক মেধাবী স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে। নিহত জিসান হবিগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের দশম শ্রেনীর ছাত্র এবং শহরের নাতিরাবাদ এলাকার বাসিন্দা জনৈক আব্দুস শহীদের পুত্র। প্রকাশ্য দিবালোকে এই ঘটনা স্বচক্ষে দেখে ক্ষিপ্ত জনতা সংশ্লিষ্ট ট্রাকটি আগুন দিয়ে জালিয়ে দেয়েছে। এ ঘটনায় সংশ্লিস্ট সড়কের হবিগঞ্জ উচ্চ বালক বিদ্যালয় ক্রস এবং শশ্মান ঘাট চৌমুহনা সড়ক পর্যন্ত দীর্ঘ দেড় ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল।

তবে এ ঘটনার শিকার নিহত স্কুল ছাত্রের লাশ হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে নিয়ে যেতে না যেতেই পুলিশ প্রশাসন নয়তো বা অন্য কোন প্রভাবশালীর ইশারায় পুলিশ সদস্যদের উপস্থিতিতে ফায়ার ব্রিগেড কর্মীরা ঘটনাস্থলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রক্ত সহ অন্যান্য আলামত পানি দিয়ে ধুয়ে মুুছে ফেলায় সংশ্লিস্ট এলাকার লোকজনের মাঝে দেখা দিয়েছে নতুন করে উত্তেজনা। এদিকে এই নির্মম ঘটনায় নিহতের বাবা সহ নিকটজ্বনদের কান্না আর মাটিতে পড়ে আহাজারিতে সংশ্লিস্ট এলাকা সহ হাসপাতাল চত্বরের বাতাস ভারী হয়ে উঠছে। শত শত নারী-পুরুষ হাসপাতালে ভীড় জমানোয় এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের সূচনা হয়েছে।

প্রত্যক্ষ দর্শী ও পুলিশ জানায়, বিকেল প্রায় পৌনে ৪ টার দিকে শহরের মহিলা কলেজ সংলগ্ন রাজনগর সড়কে একটি দ্রুতগামী বালু বোঝাই ট্রাক সংশ্লিস্ট সড়কের পাশ দিয়ে হাটা অবস্থায় জিসানের ওপর উঠিয়ে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই জিসানের মাথার একপাশ থেতলে যায় এবং প্রচুর রক্তক্ষরন হয়ে সে মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়ে। এ অবস্থা আশপাশের লোকজন দেখতে পেয়ে ট্রাক সহ চালককে আটক করে। সেই সাথে তৎক্ষাণৎ জমায়েত শত শত মানুষ এই ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে এবং ট্রাকটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে ট্রাকটি বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়ে আগুন ছড়িয়ে পড়ে পুরো বডিতে। উড়তে থাকে অন্তত ৩৫/৪০ ফুট ওপর পর্যন্ত ধোয়ার কুন্ডলী। এসময় পুলিশ ফায়ার ব্রিগেড কর্মী সহ শত শত মানুষ জমায়েত হলে পরিস্থিতির আরও অবনতি হবার আশংকায় পুলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি করে সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাসে জনতা ক্ষান্ত হয়।

এদিকে জেলা আইনশৃংখলা সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত মোতাবেক সকাল থেকে রাত ৮ পর্যন্ত শহরে ভেতর দিয়ে ট্রাক সহ অন্যান্য ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকাবে এমন কথা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। অভিযোগ রয়েছে, এক শ্রেনীর ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তা ও সদস্যরা উৎকোচের বিনিময়ে শহরের ওপর দিয়ে এইসব ভারী যানবাহন চলাচল করতে দিচ্ছে । ফলে বেপরোয়া গতিতে চালকরা এই যানবাহন চালিয়ে অনেক মানুষ হত্যা সহ কাউকে না কাউকে পঙ্গু করে দিচ্ছে। এমনকি বেপরোয়া এবং দ্রুত গতিতে মটর সাইকেল চালানোরও হিড়েক এখন প্রতিনিয়ত। তা যেন দেখার কেউ নেই।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: