২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

অনলাইনে আবেদন করলে এক ঘণ্টায় মিলবে ইআইআইএন নাম্বার


স্টাফ রিপোর্টার ॥ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য বাধ্যতামূলক ইআইআইএন নম্বর নিতে আর কষ্ট করে রাজধানীর পলাশীর বাংলাদেশ শিক্ষাতথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইস)অফিসে আসতে হবে না। অনলাইনে আবেদন করলে এক ঘন্টার মধ্যে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানে বসেই পাওয়া যাবে।

EIIN-এর পূর্ণরূপ হলো Educational ওnstitute Identification Number. প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শনাক্ত ও মন্ত্রণালয়ের যাবতীয় ডাটাবেইজের লিংক দেয়ার জন্য এই নম্বর দেয়া হয়। প্রতিবছর একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিসহ বিভিন্ন কাজে শিক্ষার্থীদেরও ইআইআইএনের প্রয়োজন পড়ে। কারণ কোন কলেজে ভর্তির আবেদন করতে হলে আবেদনের সময় কলেজের ঊওওঘ কোড উল্লেখ করতে হয়। আজ সোমবার ব্যানবেইস কার্যালয়ে অনলাইনে ইআইআইএন কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ। আরও উপস্থিত থাকবেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের দুই সচিব, ব্যানবেইস পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। একই সময়ে ব্যানবেইসের টেলিফোন ডাইরেক্টরির এ্যাপসও উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক ফসিউল্লাহ।

শিক্ষকতা পেশার চেয়েও অধিক কিছু=শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, শিক্ষকদের সততা, নিষ্ঠা ও মূল্যবোধ আরও বিকশিত করতে হবে। শিক্ষকতাকে মহান পেশা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটা পেশার চেয়েও অধিক কিছু। শিক্ষকরা হচ্ছেন জাতি গঠনের নিয়ামক শক্তি। অনেক শিক্ষককে বিদেশে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। রাজধানীর বাংলামোটরে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়তনে ‘মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা স্তরে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম সক্রিয়করণ কর্মশালায়’ প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অনেক শিক্ষককে বিদেশে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। তাদের মানোন্নয়নের চেষ্টা অব্যাহত আছে। মধ্য আয়ের দেশ এবং উন্নত বাংলাদেশ গড়তে হলে শিক্ষাদান পদ্ধতি ও শিক্ষকদের মানসিকতার আমূল পরিবর্তন করতে হবে। আমাদের মূল্যবোধ ও মানসিকতার বৈপ্লবিক পরিবর্তন করতে হবে। তিনি বলেন, দেশব্যাপী ২৩ হাজার ৫০০ মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম চালু করা হয়েছে। শিক্ষায় প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানো হয়েছে। মাল্টিমিডিয়া ব্যবহার করে ক্লাস নেয়া, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম ও মনিটরিং জোরদার করার জন্য মন্ত্রী মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আরও তৎপর হওয়ার নির্দেশ দেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষায় আমাদের অনেক উন্নতি হয়েছে। শিক্ষায় ছেলেমেয়েদের মধ্যে সমতা অর্জিত হয়েছে। সকল ছেলেমেয়েকে স্কুলে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। সংখ্যাগত দিক থেকে বড় সাফল্য এসেছে। নারীশিক্ষার অগ্রগতিতে বাংলাদেশ রোল মডেল। আমাদের পর্যায়ের কোন দেশ এখনও শিক্ষায় সমতা অর্জন করতে পারেনি। তবে শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি এখনও বড় চ্যালেঞ্জ। আজকের যুগের জন্য যে মান প্রয়োজন, এই মান আমরা অর্জন করতে পারিনি। বিশ্বব্যাপী এটা একটি চ্যালেঞ্জ। এজন্য এসডিজি-৪ এ মানসম্মত শিক্ষা অর্জনের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। অন্তর্ভুক্তিমূলক, সমতাভিত্তিক এবং জীবনব্যাপী শিক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মোঃ আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মহিউদ্দিন খান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক ও এটুআই প্রকল্প পরিচালক কবির বিন আনোয়ার এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মনিটরিং ও ইভ্যালুয়েশন উইংয়ের পরিচালক ড. মোঃ সেলিম মিয়া বক্তব্য রাখেন।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: