২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

রাজধানীতে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা, অগ্নিকান্ডে দগ্ধ ৫


স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর আদাবরে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এদিকে পুরান ঢাকার শ্যামপুরে একটি ভবনে অগ্নিকা-ে একই পরিবারের পাঁচজন দগ্ধ হয়েছে।

আদাবরে তানিয়া আক্তার তাবাসসুম (৩৫) নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী তানভির হাসানকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে তানিয়ার লাশের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নিহত তানিয়ার বাবার নাম সারোয়ার হোসেন। বাড়ি নওগাঁ জেলার রানিনগর থানার মাঝ গ্রামে। আদারব বায়তুল আমান হাউজিংয়ের ১০ নম্বর রোড এলাকায় একটি ভবনের ফ্ল্যাটে স্বামী তানভির হাসানকে নিয়ে তানিয়া থাকতেন।

এক পরিবারের পাঁচজন দগ্ধ ॥ শ্যামপুর এলাকায় একটি বাড়িতে আগুন লেগে তিন শিশুসহ একই পরিবারের পাঁচজন দগ্ধ হয়েছেন। দগ্ধ হচ্ছেন, মোঃ এনায়েত হোসেন (৪০), তার স্ত্রী মরিয়ম বেগম (৩৫) এবং তাদের তিন শিশু সন্তান এ্যানি (৫), হাবিবা (৪) ও জুবায়ের (২)। তাদের দগ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্মকর্তা মোঃ ফারহাদুজ্জামান জানান, শুক্রবার ভোর পৌনে ৪টার দিকে শ্যামপুর লাল মসজিদ সংলগ্ন ৩ নম্বর রোডের ২৭ নম্বর ৫ তলা ভবনের নিচতলায় অগ্নিকাণ্ডের এই ঘটনা ঘটে। বদ্ধ ঘরে গ্যাস জমে বিস্ফোরণ ঘটলে পাঁচজন দগ্ধ হয়। তবে আগুন খুব বেশি ছড়ায়নি। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস দমকল কর্মীরা ঘটনাস্থলে আসার আগেই স্থানীয়রা আগুন নিভিয়ে ফেলেন। দগ্ধ এনায়েতের ভাতিজা ওয়াসিম জানান, চাচা এনায়েত মুদি লাল মসজিদ সংলগ্ন ওই ৫ তলা ভবনের নিচতলা তিন সন্তানকে নিয়ে থাকতেন। পাশে তার একটি মুদি দোকান রয়েছে। তিনি জানান, শুক্রবার ভোরে চাচা এনায়েতের ওই রুমে একটি শব্দ হয়। এরপর আগুন ধরে যায়। সঙ্গে সঙ্গে তারা পাঁচজনই দগ্ধ হয়। ধারণা করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লেগেছে। এদিকে ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) বাবুল মিয়া চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে জানান, দগ্ধদের সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক। সবার সারা শরীর ঝলসে গেছে।

আশুলিয়ায় শ্রমিক কলোনিতে আগুন মা-শিশুসহ দগ্ধ ৪

ঢাকার আশুলিয়ায় শ্রমিক কলোনিতে অগ্নিকা-ে দগ্ধ হয়েছেন মা ও শিশুসহ চারজন। এ সময় পুড়ে গেছে অর্ধশত ঘর। শুক্রবার রাতে জামগড়া এলাকার ফজলুল হক, মতিন মোল্লা ও কাদের মহুরীর মালিকানাধীন তিনটি শ্রমিক কলোনিতে অগ্নিকা-ের এ ঘটনা ঘটে বলে ডিইপিজেডের ফায়ার সার্ভিসের জ্যেষ্ঠ স্টেশন অফিসার আব্দুল হামিদ মিয়া জানান ।

দগ্ধরা হলো নাসিমা বেগম (২৮) ও তার আট মাসের ছেলে নাদিম। নাসিমার বোন শান্তা বেগম (৩২) ও তার স্বামী সোহেল (৩৬)।

সাভার ফায়ার সার্ভিসসহ তিনটি ইউনিটের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: