মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৫ আশ্বিন ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

দ্রুত বিচারই সমাধান

প্রকাশিত : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
  • মোঃ গোলাম সারোয়ার

ধর্ষণকারী কেমন মানুষ? সে কি অনেকদিন আগে থেকেই ধর্ষণের পরিকল্পনা করে? ধর্ষক কি মানসিক রোগী? আমাদের চার পাশে ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটে তার বেশিরভাগ পূর্ব পরিকল্পিত। ধর্ষণকারী আমাদের মতো সাধারণ মানুষ। ধর্ষক কোন মানসিক রোগী নয় সে পর্নোগ্রাফির রোগী। একটি বিষয় লক্ষ্য করলে বোঝা যায় ইন্টারনেটে যত পর্নোগ্রাফি সাইটের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে তত ধর্ষণের সংখ্যা বাড়ছে। মাত্র এক দশক আগে ইন্টারনেটে পর্নোগ্রাফি সাইটের সংখ্যা তেমন ছিল না। আমাদের চার পাশে ধর্ষকের সংখ্যা এত বেশি ছিল না। ধর্ষণের ঘটনা যে হারে বেড়ে গেছে এর প্রধান দিকগুলো হলো পারিবারিক ও সামাজিক প্রথা থেকে দূরে সরে যাওয়া তথ্যপ্রযুক্তি অপব্যবহার বিশেষ করে মোবাইল, কম্পিউটার, ইন্টারনেট সহজলভ্যতা ও নেতিবাচক ব্যবহার এবং কুশিক্ষা, অশিক্ষা, বিচারহীনতা, দুর্বল পারিবারিক বন্ধন। সুন্দর বিনোদনের অভাব। কিশোর-কিশোরীদের ক্রীড়া কর্মযজ্ঞ থেকে দূরে রাখা। নারী নির্যাতন প্রতিকারে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখতে পারে রাষ্ট্র। যদি ধর্ষকের সঠিক শাস্তি দেয়া হয়। তাহলে এ ঘটনা হ্রাস পাবে এমন এক সুন্দর সময় আসবে তখন ধর্ষণ বন্ধ হয়ে যাবে। তাই সুন্দর সমাজ তৈরি করতে হলে তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার এবং পর্নোগ্রাফির অশুভ বিস্তার রোধ করতে হবে। এ জন্য আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে এবং মেয়েরা যে শ্রদ্ধার পাত্র এটা সবাইকে বোঝাতে হবে। তাহলে আমাদের সমাজ থেকে নারী নির্যাতন বন্ধ হয়ে যাবে এবং আমরা পাব সুখী, সুন্দর একটি নারী নির্যাতনমুক্ত দেশ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে

প্রকাশিত : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭

১৪/০৯/২০১৭ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: