১৮ জানুয়ারী ২০১৮,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট খেলায় কঠোর নিরাপত্তা নেয়া হয়েছে ॥ ডিএমপি কমিশনার


বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট খেলায় কঠোর নিরাপত্তা নেয়া হয়েছে ॥ ডিএমপি কমিশনার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ চলাকালে হোটেল থেকে স্টেডিয়াম আসা যাওয়ার সময় ভিভিআইপি নিরাপত্তা পাবেন দুই দলের ক্রিকেটারসহ অন্য সদস্যরা। শনিবার বিকালে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে আসন্ন সিরিজে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদেও তিনি এ কথা জানান।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, দেশের সম্মান ও ভাবমূর্তি সবার আগে। খেলোয়াড়রা রেডিসন ব্লুওয়াটার গার্ডেন হোটেল থেকে মিরপুর স্টেডিয়ামে আসার সময় তাদেরকে পুরোটা পথে নিরাপত্তা দেয়া হবে। মোটরসাইকেলে যুক্ত থাকবে পুলিশ ও র্যােবের চৌকস সদস্যরা। থাকবে ফায়ার সার্ভিস ও এ্যাম্বুলেন্স। গুরুত্বপূর্ণ স্থানের ছাদে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

স্টেডিয়ামের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে ডিএমপি কমিশনার জানান, আমরা বিসিবির সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সুদৃঢ় নিরাপত্তা ব্যবস্থা রেখেছি। দেশের স্বার্থে খেলাকে উৎসবমুখর করতে সব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। স্টেডিয়াম, রাস্তা ও হোটেল এই তিনভাবে নিরাপত্তা সাজিয়েছি আমরা। সিসিটিভির আওতায় আনা হয়েছে পুরো স্টেডিয়াম চত্বর। দক্ষ অফিসাররা এটি পর্যবেক্ষণ করবেন। যখন যেখানে যে নির্দেশনা প্রয়োজন হবে সেখানে সম্পৃক্ত হবেন তারা।

মাঠ, ফটক ও গ্যালারিতে থাকবে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। স্টেডিয়ামে আন্তঃবেস্টনি ও বহির্বেস্টনী থাকবে। মিরপুর ১০ নম্বর গোলচত্বর থেকে স্টেডিয়াম পর্যন্ত খেলোয়াড়রা যাতায়াতের সময় সড়কের দুই পাশে পুলিশের লাইনিং থাকবে। একইসঙ্গে এই এলাকায় সড়কে ভাসমান দোকান বন্ধ ও স্থায়ী দোকানগুলোর শাটার নামানো থাকবে। হোটেলে নিরাপত্তা ব্যবস্থা প্রসঙ্গে আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেলে নেয়া হয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। চারপাশ লাইটিংসহ আনা হয়েছে সিসিটিভির আওতায়। বসানো আছে আর্চওয়ে, লাগেজ স্ক্যানার, ভিকেল স্ক্যানার। এগুলোর মধ্য দিয়ে প্রত্যেককে চেক করে নিয়ে আসা হবে। কোনও ধরনের দর্শনার্থীর প্রবেশের অনুমতি থাকবে না। এমনকি কোনও গণমাধ্যম অনিয়মিতভাবে কোনও খেলোয়াড় বা কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎকার নিতে পারবে না। এক্ষেত্রে বিসিবির যথাযথ অনুমতি নিতে হবে। আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, জাল টিকিট নিয়ে প্রবেশ ঠেকাতে ম্যানুয়াল ও মেশিনে তল্লাশি করা হবে বলে জানান ডিএমপি কমিশনার। সবাইকে আর্চওয়ে ও ম্যানুয়েল চেকিংয়ের মধ্য দিয়ে স্টেডিয়ামে প্রবেশ করতে হবে। ধারালো চাকু, কাঁচি, ব্যাগ, দাহ্য পদার্থ, দিয়াশলাই, ট্রলি ব্যাগ, ব্যানিটি ব্যাগ, পানির বোতল না নিয়ে স্টেডিয়ামে আসার জন্য অনুরোধ জানানো হয় তার পক্ষ থেকে। একই সঙ্গে গ্যালারিতে সবাইকে নির্ধারিত আসনে বসেই খেলা দেখার আহ্বান জানিয়েছেন আছাদুজ্জামান মিয়া। তিনি জানান, অন্যান্য সময় দর্শকরা গ্যালারিতে নির্ধারিত আসনে বসেন না। এবার কড়াকড়ি থাকবে। প্রত্যেককে নিজ নিজ আসনে বসতে হবে। এ ব্যাপারে জোর পদক্ষেপ নেয়া হবে। তবে এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা কোনও হুমকির কারণে নয়।

ডিএমপি কমিশনার জানান, এটা চলমান নিরাপত্তার অংশ। যারা বাংলাদেশের উন্নয়ন, দেশের ভালো ও গণতন্ত্র চায় না এই দুষ্টুচক্র নানান অপচেষ্টা করতে পারে। এটা মাথায় রেখেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাজানো হয়েছে। যেখানে যত প্রয়োজন হবে ততসংখ্যক ফোর্স নিয়োজিত থাকবে। ডাইভারশান কোনও কোনও ক্ষেত্রে থাকবে। সাময়িক সময়ের জন্য ডাইভারশান দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, আগামী ২৭ থেকে ৩১ আগস্ট সিরিজের প্রথম টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। পাঁচ দিনের এই খেলা হবে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। ৪ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে হবে দুই দলের মধ্যকার দ্বিতীয় টেস্ট।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: