২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

ছাত্রলীগ নেতার উদ্যোগে অজানা রোগে আক্রান্ত শিশু আলিমুনকে হাসপাতালে ভর্তি


ছাত্রলীগ নেতার উদ্যোগে অজানা রোগে আক্রান্ত শিশু আলিমুনকে হাসপাতালে ভর্তি

বাবুল সরদার, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাটে অজানা রোগে আক্রান্ত আলিমুন শেখ নামে নয় বছরের এক শিশুকে সদর হাসপাতালে রবিবার রাতে ভর্তি করা হয়েছে।

টিউমার আকৃতির একাধিক গোটা গোটা মাংসপিন্ডে মাথাসহ সারা শরীরে অস্বাভাবিক আকার ধারণ করেছে তার। মাথাটা ফোলা, গোটা গোটা বড় বড় টিউমারের মতো। হঠাৎ করে দেখলে যে কেউ আঁতকে উঠবেন। আলিমুনের পিঠে ও হাঁটুতে নতুণ করে আরও টিউমামের মত বড় বড় গোটা উঠছে। শিশুটির শরীরে কী রোগ তা শনাক্ত হয়নি। বলেতে পারেনা কেউ।

দীর্ঘ দু’বছর আগে এ রোগের দেখা দিলেও অর্থাভাবে শিশুটির চিকিৎসা হয়নি। অবশেষে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইনের উদ্যোগে তাকে হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়।

সোমবার শিশুটির চিকিৎসার জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে তিন সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা: অরুন চন্দ্র মন্ডল জানান, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. মো. সাইদ আহম্মেদকে প্রধান করে গঠিত ৩ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডে রয়েছেন আরএমও ডা. মোশারেফ হোসেন ও চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আবুল বাশার মো. সাদী। তারা শিশুটির রোগ সনাক্তে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেছেন।

বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের সোনাকান্দার গ্রামে আলিমুনের বাড়ি। তার বাবা আজাহার শেখ তিন বছর আগে মারা গেছে। মা সখিনা বেগম দিনমজুরের কাজ করেন। স্বামীর মৃত্যুর পর অন্যত্র বিয়ে হয়েছে তার। আলিমুন এখন তার বড় চাচা শাহজাহান শেখের সংসারে থাকে। সোনাকান্দার গ্রামে এক শতক জমির উপর ছোট্ট একটি ঘর শাহজাহান শেখের। সেখানে বড় চাচার পরিবার ছাড়াও দাদি কুলসুম বেগম আর বড় ভাই শুকুর আলী শেখ এক সঙ্গে থাকে।

আলিমুনের বড় চাচি শরিফা বেগম বলেন, ‘ওর বয়স যখন তিন সাড়ে তিন বছর তখন মাথার পেছনে ছোট ছোট টিউমারের মতো ওঠে। তখন ওর বাবা বেঁচে ছিলেন। সেই সময়ে চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার নেওয়া হয়েছিল। ধারদেনা করে কিছু দিন ওষুধ খাওয়ানো হয়।’

খুলনার চিকিৎসকরা আলিমুনকে ঢাকায় নিয়ে উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু আর্থিক অনটনে তা আর সম্ভব হয়নি। বাবা মারা যাওয়ার পর ওর মা রাস্তার কাজ করে। তারও আবার বিয়ে হয়েছে। তাই আলিমুন এখন আমাদের কাছে থাকে। মাঝে মাঝে ওর মাও এখানে এসে ওর সাথে থাকে।

শিশুটির মা সখিনা বেগম বলেন, ‘মাথার পেছনে টিউমারগুলো শুধু বড় হচ্ছে। ফোড়ার মতো দুটি ঠেটে গিয়েছে, মাঝে মাঝে তা দিয়ে রক্ত বের হয়। মাঝে মাঝে ব্যথার কথা বলে। রাতে শুতে (ঘুমাতে) গিয়ে কান্নাকাটি করে। আমাদের তো টাকা-পয়সা নেই; ওর চিকিৎসা করাবো কি করে?’

আলিমুনের ছবি দিয়ে তার অসুস্থতা ও অসহায়ত্বের বিষয়টি সাম্প্রতি ব্যক্তিগত ফেসবুকে লিখেন গজালিয়া বাজারের ওষুধ বিক্রেতা ও শৈল্য চিকিৎসক জাহিদুল ইসলাম। এরপর বিষয়টি সকলের নজরে আসে।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন জানান, ফেসবুকের মাধ্যমে বিষয়টি জানার পর শিশুটির চিকিৎসার ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহন করেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক-৩ ডা.জুলফিকার আলী লেলিনের সাথে কথা বলেন। তার উদ্যোগে শিশুটিকে রবিবার রাতে কচুয়া উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ মোহাম্মদ নাসির ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. মনির হোসেন তাকে হাসপাতালে এনে ভর্তি করান। তাকে ঢাকায় নিয়ে সরকারি খরচে সুচিকিৎসার করানো হবে বলে এসএম জাকির হোসাইন উল্লেখ করেন।

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন অরুণ চন্দ্র মন্ডল বলেন, তাকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তির পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু হয়েছে। এই মুহুর্তে রোগ সম্পর্কে বলা যাবে না। দরকার হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: