মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২২ জুলাই ২০১৭, ৭ শ্রাবণ ১৪২৪, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

নিরপেক্ষ তদন্ত হোক মেয়ের মৃত্যুর, সিপিকে চিঠি দিলেন সোনিকার বাবা

প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৭, ১২:১৯ পি. এম.
নিরপেক্ষ তদন্ত হোক মেয়ের মৃত্যুর, সিপিকে চিঠি দিলেন সোনিকার বাবা

অনলাইন ডেস্ক ॥ মেয়ের মৃত্যুর নিরপেক্ষ তদন্তের দাবিতে এ বার পুলিশ কমিশনারের দ্বারস্থ হলেন মডেল সোনিকা সিংহ চৌহানের বাবা-মা। সোনিকার দুর্ঘটনার সময়ে গাড়ির স্টিয়ারিং যাঁর হাতে ছিল, সেই অভিনেতা বিক্রম চট্টোপাধ্যায় টালিগঞ্জের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির প্রভাবশালী একটি মহলের ঘনিষ্ঠ। কিন্তু তদন্তে তার প্রভাব পড়বে না বলে লালবাজারের তরফে মৃতার পরিবারকে আশ্বস্ত করা হয়েছে।

‘নিরপেক্ষ ও যথাযথ’ তদন্তের আর্জি জানিয়ে পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে চিঠি দিয়েছেন সোনিকার বাবা বিজয় সিংহ চৌহান। সেখানে তাঁর আবেদন, ‘‘দুর্ঘটনার পরের কয়েক ঘণ্টা বা দিনের মধ্যে তদন্তের স্বাভাবিক ব্যকরণ মেনে চলা হয়েছিল কি না, সেটাও দেখা হোক।’’ এর আগে পুলিশি তদন্তের অ-আ-ক-খ মেনে চলা হয়নি বলে সোনিকার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে ১০ দফা প্রশ্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছে। যে সপ্তাহান্তে দুর্ঘটনাটি ঘটে, তাতে শনিবার, রবিবার-সহ পয়লা মে পর্যন্ত কয়েক দিন ছুটি ছিল। এর ফলে তদন্তের যে খানিক দেরি হয়েছে, এ কথা মেনে নিয়েছেন লালবাজারের কর্তারাই। ‘‘ট্র্যাফিক পুলিশের ফেটাল স্কোয়াড না স্থানীয় থানা না গোয়েন্দা পুলিশ, তদন্তভার কারা পাবেন, সিদ্ধান্ত নিতে হয়তো কিছু দেরি হয়েছে। তবে ঠিকঠাক তদন্তের স্বার্থে সবই হচ্ছে,’’ দাবি এক পুলিশকর্তার।

লালবাজার সূত্রের খবর, সোনিকার মৃত্যুর তদন্তে যে বিশেষ দল গড়া হয়েছে, তাদের সঙ্গে সমন্বয় রক্ষার দায়িত্ব এক তরুণী আইপিএস অফিসারকে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ কমিশনার তাঁকে দেখতে বলেছেন, তদন্তে যেন কোনও খামতি না থাকে। লালবাজারের এক কর্তা বলেন, ‘‘স্টিয়ারিং যাঁর হাতে, তিনি কতটা জোরে চালাচ্ছিলেন এবং মদ খেয়েছিলেন কি না, তা প্রমাণ করার নানা উপায় আছে। গাড়ির ফরেন্সিক রিপোর্ট, মৃতার ময়না-তদন্তের রিপোর্ট এবং বিক্রমবাবুর রক্ত পরীক্ষার রিপোর্টে অনেক কিছু স্পষ্ট হবে।’’ বিক্রমের রক্তের নমুনা ন’দিন বাদে কেন সংগ্রহ করল পুলিশ, তা নিয়ে অবশ্য কথা উঠেছে। তবে পুলিশের ব্যাখ্যা, রক্তের নমুনা ফরেন্সিক ল্যাবরেটরিতে জমা দিতে দেরি হলেও হাসপাতালে তা যথা সময়েই সংগ্রহ করা হয়েছিল। এ ছাড়া, দুর্ঘটনার রাতে বিক্রম-সোনিকা যে নাইট ক্লাবগুলিতে গিয়েছিলেন, সেখানে কারা তাঁদের সঙ্গে ছিলেন, কত টাকা করে খরচ করেছিলেন, তার নথিও গুরুত্বপূর্ণ তথ্যপ্রমাণ বলে দাবি পুলিশের। একটি নাইট ক্লাবে বিক্রম অনলাইনে ৮৬০ টাকা খরচ করেন বলে জানতে পেরেছে পুলিশ।

সোনিকার মৃত্যুর পরে বিক্রমের আচরণ নিয়েও মৃতার পরিবার খুবই ব্যথিত। বুধবার তাঁর জন্মদিনেও বিক্রম সোনিকার সমাধির কাছে গিয়েছিলেন। শোকার্ত পরিবারের কাছে যা নিতান্তই ‘নাটক’ বলে মনে হয়েছে। খ্রিস্টানদের কাছে পরিবারের কারও সমাধি পবিত্র ও ব্যক্তিগত পরিসর। যে মানুষটির জন্য সোনিকার মৃত্যু হয়েছে, তাঁর সমাধির কাছে ওঁকে যেন যেতে দেওয়া না হয় বলে আত্মীয়েরা খ্রিস্টান বারিয়াল বোর্ডকে চিঠি লিখেছেন। চৌহান পরিবারের এক জনের কথায়, ‘‘কুমিরের কান্না কেঁদে না বেড়িয়ে ওই রাতে কী কী ঘটেছিল, বিক্রম তার সত্যিটা জানালে ভাল করতেন!’’ বিক্রমের বাবা বিজয় চট্টোপাধ্যায় শুধু বলেন, ‘‘যা বলার ঠিক সময়ে বলব।’’

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৭, ১২:১৯ পি. এম.

১৯/০৫/২০১৭ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: