২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

গাজরে অশ্ব বশ!


মার্কিন মুল্লুকের ফিলাডেলফিয়া এলাকায় সেদিন ঘটেছে এক মজার ঘটনা। সেখানকার এক ঘোড়ার খামার থেকে হঠাৎ পালিয়ে গেল একটা ঘোড়া। কী হয়েছিল, কে জানে, ঘোড়ার খামারের মালিকের তখন মাথায় হাত! এখানে-ওখানে খানিকটা খুঁজলেন তিনি, কিন্তু পেলেন না। ঘোড়াটি দামী।, হয়ত পালিয়েছে সে কোথাও, আর হয়ত পাওয়া যাবে না তাকে। খামারের মালিক সঙ্গে সঙ্গে ফোন করলেন পুলিশকে। পুলিশ খবর পেয়েই শুরু করল ঘোড়াখোঁজা। পুলিশ ব্যাপকভাবে ঘোড়া খোঁজার প্রস্তুতি নিচ্ছে, ঠিক এমন সময় তাদের কাছে আরেকটি ফোন এলো। ফোনে কোন এক নাগরিক বলছেন শহরের অমুক এলাকায়, অমুক রাস্তায় পথের মধ্যে দাঁড়িয়ে একটি ঘোড়া যান চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি করছে। তাই পুলিশ যেন দ্রুত ব্যবস্থা নেয়।

এই ফোনটা পেয়ে পুলিশ তো আহ্লাদে আটখানা! ঘোড়া খুঁজতে হবে না আর, ঘোড়াটি এখন ধরা দিয়েছে তাদের হাতে। পুলিশের লোকজন ছুটে চলল সেইখানে। দেখল, একটি ঘোড়া পাগলের মতো আচরণ করছে। রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ প্রায়।

পুলিশ ঘোড়াটিকে ধরার চেষ্টা করতেই ক্ষিপ্ত হয়ে উঠল ঘোড়াটি। কিছুতেই ধরা দেবে না সে। পুলিশ কোন বুদ্ধি খুঁজে পেল না। যেভাবেই হোক, ওটাকে আটকাতে হবে। কিন্তু উপায় কী! পুলিশের মাথায় হঠাৎ একটা বুদ্ধি এলো। কাছের এক দোকান থেকে কেনা হলো কিছু গাজর। গাজরগুলো একটা পাত্রে করে নিয়ে একজন সাহস করে গেল তার মুখের সামনে। হঠাৎ কী অবাক কা-। গাজর দেখে ঘোড়ার লাফালাফি, পা ছোড়া, তেড়ে আসা- সব নিমেষে বন্ধ!

ঘোড়াটা গাজরের পাত্রের দিকে এগিয়ে এলো শান্ত সুবোধ ঘোড়াটির মতো। ঘোড়াটি কামড় দিল গাজরে। পুলিশ বুঝল ঘোড়াটি বশ মেনেছে। সঙ্গে সঙ্গে বিশেষ কৌশলে আটক করা হলো তাকে। তারপর যা হবার তাই হলো। আটক ঘোড়াটি ফেরত পেল খামারের মালিক। রাস্তায় গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক হলো। ঘোড়ার মালিকের মনে ফিরে এলো স্বস্তি।

কী হয়েছিল ঘোড়াটির। সে পালিয়েছিল কেন? ঘোড়াটা কি পাগলাটে স্বভাবের? পাগলামির চোটে পালিয়ে গিয়ে পরে গাজর দেখে লোভ সামলাতে পারেনি। তাই ধরা দিয়েছে- কোনটা ঠিক কে বলবে! তবে বোঝা গেল, ঘোড়াদের কাছে গাজর একটা লোভনীয় খাবার। ওটা দিয়ে পাগলা ঘোড়াদেরও বশ করা যায়, বোঝা গেল এটাই।