২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

দিতির চলে যাওয়ার দিন


দিতির চলে যাওয়ার দিন

অনলাইন ডেস্ক ॥ পারভীন সুলতানা দিতি। ভক্তরা দিতি নামেই চেনে। যিনি বহু বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রের সফল নায়িকা ও নাট্য নির্মাতা। আজ একটু বেশিই ভক্তরা মনে করছেন তাকে। কেননা, আজ ২০ মার্চ। এ দিনটিতেইতো পরপারে পাড়ি দিয়েছেন। আর আজ তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী।

দিনটিকে স্মরণ করে তার পরিবার এবং বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি আলাদাভাবে বিশেষ দোয়া আয়োজন করেছে।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে দিতির গ্রামের বাড়িতে দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া তার মঙ্গল কামনায় অসহায়, এতিম, গরিব বাচ্চাদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হবে।

অপরদিকে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির আয়োজনে বাদ আসর স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হবে। শিল্পী সমিতির আর্টিস্ট স্টাডি রুমে এটি আয়োজন করা হয়েছে।

চিত্রনায়িকা দিতির ১৯৬৫ সালের ৩১ মার্চ তার জন্ম নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁওয়ে। ১৯৮৪ সালে নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে দেশীয় চলচ্চিত্রে দিতির সম্পৃক্ততা ঘটে। তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র উদয়ন চৌধুরী পরিচালিত ‘ডাক দিয়ে যাই’। কিন্তু ছবিটি শেষ পর্যন্ত মুক্তি পায়নি। দিতি অভিনীত মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম চলচ্চিত্র ছিল ‘আমিই ওস্তাদ’।

এরপর দিতি প্রায় দুই শতাধিক ছবিতে কাজ করেছেন। সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘স্বামী স্ত্রী’ ছবিতে তিনি আলমগীরের স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেন। এই ছবিতেই অভিনয় করে দিতি প্রথমবারেরমতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে- হীরামতি, দুই জীবন, ভাই বন্ধু, উসিলা, লেডি ইন্সপেক্টর, খুনের বদলা, আজকের হাঙ্গামা, শেষ উপহার, চরম আঘাত, অপরাধী, কালিয়া, আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা প্রভৃতি।

গেল ক’বছর দিতি ছোট পর্দায়ও নিজেকে ব্যস্ত রাখেন। একক ও ধারাবাহিক নাটকে নিয়মিত অভিনয় করতেন। সঙ্গে রান্না বিষয়ক অনুষ্ঠানে উপস্থাপনাও করেছেন সাফল্যের সঙ্গে। দিতির দুই সন্তান। ছেলে দীপ্ত এবং লামিয়া। দিতি ক্যানসার ও ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়েছিলেন।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: