২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বিশ্ব এজতেমা শুরু কাল ॥ দলে দলে আসছে মুসল্লি


নূরুল ইসলাম/মোস্তাফিজুর রহমান টিটু, টঙ্গী ও গাজীপুর থেকে ॥ টঙ্গীতে বিশ্ব এজতেমার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠানের জন্য টঙ্গী এখন পুরোপুরি প্রস্তুত। কাল শুক্রবার থেকে আ’ম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে তবলীগ জামাতের প্রথম পর্বের তিন দিনব্যাপী বিশ্ব এজতেমা। বিশ্ব এজতেমা ময়দানে বুধবার থেকে মুসল্লিরা দলে দলে আসতে শুরু করেছেন। রবিবার আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে প্রথম পর্বের বিশ্ব এজতেমা। চারদিন বিরতি দিয়ে দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে ২০ জানুয়ারি শুক্রবার থেকে। ২২ জানুয়ারি রবিবার আখেরী মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে দ্বিতীয় পর্বের সমাপ্তির মাধ্যমে ২০১৭ সালের বিশ্ব এজতেমা শেষ হবে। টঙ্গীর এই বিশ্ব এজতেমা ময়দানে এটি হবে ৫২তম বিশ্ব এজতেমা। মুসল্লিদের চাপ কমাতে ২০১১ সাল থেকে দুই পর্বে বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। ইতোমধ্যে মুসল্লিদের নিরাপত্তায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আলহাজ আ. ক. ম মোজাম্মেল হক এমপি, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় এমপি আলহাজ মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ বিশ্ব এজতেমার দেখভালের সর্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন।

৫২তম এজতেমার দুই পর্বে অংশ নেয়া ৩২ জেলাগুলো হলো ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, টাঙ্গাইল, মুন্সীগঞ্জ, গোপলগঞ্জ, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর, পাবনা, কুষ্টিয়া, সৈয়দপুর, রংপুর, লালমনিরহাট, দিনাজপুর, জয়পুরহাট, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, মেহেরপুর, যশোর, বাগেরহাট, কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, নোয়াখালী, বরিশাল, চাঁদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও সাতক্ষীরা।

এজতেমায় দুই ধাপের আখেরী মোনাজাতের দিন ১৫ জানুয়ারি ও ২২ জানুয়ারি ভোর ছয়টা থেকে গাজীপুরের কালীগঞ্জ-টঙ্গী মহাসড়কের মাঝুখান ব্রিজ থেকে স্টেশন রোড ওভারব্রিজ পর্যন্ত সড়ক পথে যান চলাচল বন্ধ থাকবে। টঙ্গীর কামারপাড়া ব্রিজ থেকে মুন্নু টেক্সটাইল মিল গেট পর্যন্ত সড়ক পথেও থাকবে একই নির্দেশনা।

এজতেমা চলাকালে বিভিন্ন স্থানে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। চান্দনা চৌরাস্তা হয়ে আসা মুসল্লিদের বহনকারী যানবাহন পার্কিংয়ের জন্য মহাসড়ক পরিহার করে টঙ্গীর কাদেরিয়া টেক্সটাইল মিল কম্পাউন্ড, মেঘনা টেক্সটাইল মিলের পাশে রাস্তার উভয় পাশে শফিউদ্দিন সরকার একাডেমি মাঠ প্রাঙ্গণ, ভাওয়াল বদরে আলম সরকারী কলেজ মাঠ, চান্দনা চৌরাস্তা হাইস্কুল মাঠ, তেলিপাড়া ট্রাকস্ট্যান্ড এবং নরসিংদী-কালীগঞ্জ হয়ে আসা মুসল্লিদের বহনকারী যানবাহন টঙ্গীর কে-টু ও নেভী সিগারেট ফ্যাক্টরি সংলগ্ন খোলা স্থান ব্যবহার করতে বলা হয়েছে।

বিশেষ ট্রেন ও বাস সার্ভিস ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, মুসল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে আগামী ১৩-১৫ জানুয়ারি বিভিন্ন গন্তব্যে কয়েকটি বিশেষ ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা নিয়েছে। এদিকে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট করপোরেশনের (বিআরটিসি) পক্ষ থেকে এজতেমার জন্য এবারও বিশেষ বাস সার্ভিসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাজধানীসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলায় যাত্রীদের নিয়ে এসব বাস চলাচল করবে।

১৩ জানুয়ারি জামালপুর-টঙ্গী রুটে একটি স্পেশাল ট্রেন রাখা হয়েছে। ট্রেনটি জামালপুর থেকে সকাল সোয়া নয়টায় ছেড়ে টঙ্গী পৌঁছানোর সময় রয়েছে দুপুর সোয়া ২টা। একই দিন জুমা স্পেশাল ট্রেন নামে ঢাকা-টঙ্গী রুটে একটি ট্রেন সকাল ১০টা ২০ মিনিটে ঢাকা ছেড়ে টঙ্গী পৌঁছানোর সময় রয়েছে বেলা ১১টা ২০ মিনিট। ওইদিন টঙ্গী-ঢাকা রুটে একটি স্পেশাল ট্রেন টঙ্গী থেকে দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে ছেড়ে ঢাকা পৌঁছাবে বিকেল ৩টা ৫০ মিনিটে।

এজতেমার দ্বিতীয় দিন ১৪ জানুয়ারি লাকসাম-টঙ্গী রুটে একটি স্পেশাল ট্রেন লাকসাম থেকে সকাল ১০টায় ছেড়ে টঙ্গী পৌঁছাবে বিকেল ৩টা ৪০ মিনিটে। আখেরী মোনাজাতের (প্রথম পর্ব) দিন ১৫ জানুয়ারি ঢাকা থেকে টঙ্গীর উদ্দেশে ভোর পৌনে ছয়টায় প্রথম ট্রেনের শিডিউল দিয়েছে রেলওয়ে। সকাল ১০টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত এ ধরনের আরও ছয়টি ট্রেন ঢাকা থেকে টঙ্গীর উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।

এদিকে এজতেমা উপলক্ষে ১৩ জানুয়ারি (শুক্রবার) সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও ১৫ জানুয়ারি (রবিবার) মহানগর এক্সপ্রেস সাপ্তাহিক বন্ধের দিনও চলাচল করবে। ১৫ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাতের দিন সুবর্ণ এক্সপ্রেস, মহুয়া এক্সপ্রেস এবং তুরাগ এক্সপ্রেস-১, ২, ৩, ৪ এবং ঢাকা-কুমিল্লা, ঢাকা-টঙ্গী, ঢাকা-জয়দেবপুর ও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের মধ্যে ডেমু (কমিউটার) ট্রেনগুলো চলাচল বন্ধ থাকবে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: