১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

যে স্কুলে ৪২ ভাষা


ব্রিটেনের নটিংহ্যামের ক্লেয়ারমন্ট প্রাইমারী স্কুলের অর্ধেকের বেশি ছাত্র বাড়িতে ইংরেজীতে কথা বলে না। স্কুলটিতে ছাত্ররা ৪০টির বেশি ভিন্ন ভাষায় কথা বলে। ভাষাগত মিল না থাকলেও গত চার বছরে স্কুলটির ছাত্র সংখ্যা বেড়েছে। এ বৈচিত্র্যের কারণে প্রধান শিক্ষক এ্যান্ড্রু গ্যালাগহার জাতি বৈষম্য চিহ্নিত করতে একটি টিমকে দায়িত্বও দিয়েছেন। তিনি এমনকি অভিবাসী পরিবারের সদস্যদের হতাশা হ্রাসে ‘ব্রিটিশ’ কথাটি প্রয়োগ না করতে শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। প্রধান শিক্ষক ডেইলি সানকে বলেন, আমরা ব্রিটিশ মূল্যবোধ শিক্ষা দিয়ে থাকি, কিন্তু আমরা তাদের মানবিক মূল্যবোধের শিক্ষা দিতে চাই। আমরা অভিজাত হতে চাই না।

স্কুলে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের দুই সপ্তাহ বিশেষ ইংরেজী ভাষা প্রশিক্ষণ দেয়া হয় এবং এরপর তাদের শ্রেণীকক্ষে পাঠানো হয়। সেখানে তারা ভাষার প্রতিবন্ধকতা দূর করতে একে অন্যের সঙ্গে জোট বাঁধে। দেশটির শিক্ষার মান নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠানের হিসেবে স্কুলটির শিক্ষার মান ‘ভাল’ এবং স্কুলটির রেজাল্ট জাতীয় গড় পর্যায়ের এবং ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থী লেভেল ৪ অর্জন করেছে। চার বছরে স্কুলটির শিক্ষার্থীর সংখ্যা নাটকীয় হারে বেড়ে ৩৬০ থেকে ৪৪৬ এ দাঁড়িয়েছে। ১৯৯২ সালে স্কুলটির অর্ধেক ছাত্র ছিল ব্রিটিশ। কিন্তু এখন স্কুলে জাতীয়তার ক্ষেত্রে ব্যাপক মিশ্র প্রবণতা দেখা দিয়েছে। মাত্র ১৫ শতাংশ শিশু শ্বেত ব্রিটিশ। পক্ষান্তরে ক্লাসে পূর্ব ইউরোপের ছাত্রের সংখ্যা ১৮ শতাংশ। আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির নিউজলেটার পর্যন্ত রোমানীয় ও পোলিশে ভাষান্তর করা হয়। বর্তমানে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের জন্য অনুবাদক রাখা হয় যাতে যাতে তারা শিক্ষকদের সঙ্গে সহজে যোগাযোগ করতে পারেন।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক জানান, শিক্ষার্থীরা যেসব ভাষায় কথা বলে এগুলোর মধ্যে কিছু তিনি ইতোপূর্বে শোনেননি। তিনি জোর দিয়ে বলেন, জাতীয়তার ভিন্নতা শিক্ষা প্রদান ও জ্ঞানার্জনের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়ায় না। তিনি আরও বলেন, আমাদের স্কুল এখন একটি আদর্শ এবং আমি মনে করি, যখন নানা সংস্কৃতির পরিবারের থেকে সাফল্য আসে তখনই তা প্রকৃত সাফল্য। -ডেইলি মেইল

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: