১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বাগদাদে বোমা হামলায় নিহত ৮৪, আহত ১৬০


ইরাকের রাজধানী বাগদাদে গাড়িবোমা ও বোমা হামলায় ৮৪ জন নিহত ও অপর ১৬০ জন আহত হয়েছে বলে ইরাকী পুলিশ জানিয়েছে। একটি রেস্তরাঁ ও বিপণিবিতানের কাছে শনিবার রাতে গাড়িবোমা হামলাটি সংঘটিত হয়। কারাদায় সংঘটিত হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। খবর এএফপি ও বিবিসির।

ভোররাতে ও সকালে চালানো হামলা দুটির প্রথমটি ছিল আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলা। বাগদাদের মধ্যাঞ্চলের কারাদা এলাকার একটি রেস্তরাঁ ও বিপণিবিতানের সামনে হামলা চালানো হয়। সেখানে ৭৯ জন নিহত ও বহু লোক আহত হয়। এর কিছুক্ষণ পর বাগদাদের উত্তরাঞ্চলে একটি শিয়া এলাকায় আরেকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয় তাতে পাঁচজন নিহত হয়। হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ইন্টারনেটে আইএসের সমর্থকদের প্রচার করা একটি বিবৃতিতে তারা কারাদায় চালানো হামলার দায় স্বীকার করেছে।

রেস্তরাঁটিতে ভোররাতে সেহরি খাওয়ার ব্যস্ত সময়ে প্রধান সড়কে গাড়িবোমাটির বিস্ফোরণ ঘটায় আত্মঘাতী জঙ্গীরা। এতে প্রধান সড়কে বড় ধরনের একটি আগুনের কু-লী তৈরি হয় ও দোকানপাটে আগুন ধরে যায়। বোমাটি এতই শক্তিশালী ছিল যে আশপাশের বেশ কয়েকটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয় ও রবিবার সকালেও সেখানে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। স্থানীয়রা এখানে ঈদের কেনাকাটা করতে আসে। ঈদকে সামনে রেখে বিপণিবিতানটিতে বহু লোকের সমাগম হয়েছিল। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাদ মান বলেন, একটি রেস্তরাঁর কাছে হামলাকারীরা একটি গাড়ি বোমা পেতে রাখে।

ইরাকের নিরাপত্তা বাহিনী আইএস জঙ্গীদের দখল থেকে ফালুজা শহর পুনরুদ্ধার করার এক সপ্তাহ পর এ হামলা দুটি হলো। ফালুজার ঘাঁটি থেকে আইএস জঙ্গীরা বাগদাদে বোমা হামলা চালাতো বলে জানিয়েছিল ইরাকি কর্তৃপক্ষ। ইরাক ও সিরিয়ায় সরকারী বাহিনী ও যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থিত বিদ্রোহীদের অভিযানের মুখে কোণঠাসা হয়ে আছে আইএস। তবে চাপের মধ্যে থাকলেও জঙ্গীগোষ্ঠীটি এখনও দেশ দুটির বিশাল এলাকা দখল করে রেখেছে। গোষ্ঠীটির দখলকৃত এলাকাগুলোর মধ্যে ইরাকের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মসুলও রয়েছে।