২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

চূড়ান্ত দলে সুযোগের অপেক্ষায় শাহরিয়ার, রকিবুল, সোহরাওয়ার্দী


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সুযোগ হবে হবে করে শেষ পর্যন্ত জাতীয় দলের প্রাথমিক স্কোয়াডে সুযোগ হয়েই গেল শাহরিয়ার নাফীস, রকিবুল হাসান, সোহরাওয়ার্দী শুভর। এবার ঢাকা লীগে ভাল নৈপুণ্য দেখানোতে এ সুযোগ ধরা দিয়েছে। অক্টোবরে দেশের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের জন্য ২০ জুলাই প্রস্তুতি ক্যাম্প শুরু হবে। এ জন্য ৩০ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা আগেই করেছে বিসিবি। প্রাথমিক দলে রাখা হয়েছে এ তিন অভিজ্ঞ ক্রিকেটারকে। তবে এ তিনজনের দৃষ্টি এখন চূড়ান্ত দলে জায়গা করে নেয়া। একাদশে সুযোগ করে নেয়ার আশাও আছে।

শাহরিয়ার নাফীস যেমন বলেছেন, ‘অবশ্যই ভাল লাগছে। হঠাৎ করে আকস্মিক একটা খবর পেলাম। বলতে পারেন আমি নিজেও এমন খবরে বিস্মিত। যদিও আমি বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে মোটামুটি ভালই খেলছিলাম। কিন্তু আমাকে নিয়ে সেভাবে কোন আলোচনা হয়নি। তাই অনেকদিন পর এমন সংবাদ পেয়ে আমার খুবই ভাল লাগছে। আসলে গত তিন বছর ধরে তেমন একটা আলোচনায় ছিলাম না। হঠাৎ করে এমন সুযোগ পাওয়াটা খুবই আকস্মিক ব্যাপার। তারপরও আমার অনেক ভাল লাগছে।’

সঙ্গে যোগ করেন, ‘জাতীয় দল থেকে বাদ যাওয়ার পর গত তিন বছর আমি ঘরোয়া ক্রিকেটেই শুধু খেলেছিলাম। তো আমার যেটা মনে হয়েছে, বা আমি বিশ্বাস করি নির্বাচকরা আমার ঘরোয়া ক্রিকেটের পারফর্মেন্সকে বিবেচনা করেছেন। অনেকদিন ধরে জাতীয় দলে খেলতে না পারলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে খুব একটা খারাপ করিনি। যেহেতু নির্বাচকরা আমার ওপর আস্থা রেখেছেন, তাই এবার চেষ্টা করবো ওই আস্থার প্রতিদান দিতে। একই সঙ্গে আমার চেষ্টা থাকবে মূল দলে জায়গা করে নেয়ার। বাকিটা আল্লাহর ইচ্ছা।’

রকিবুল হাসানও মূল দলে সুযোগ করে নেয়ার ভাবনাই করছেন। বলেছেন, ‘অবশ্যই অনেক ভাল লাগছে। এমন খবর শোনার জন্যই পরিশ্রম করে যাচ্ছি। প্রাথমিক দলে থাকার খবর শুনে অনেক খুশি হয়েছি। প্রত্যাশা তো অবশ্যই অনেক বড়। আশা করছি মূল দলেও খেলতে পারব ইনশাল্লাহ।’

সোহরাওয়ার্দী শুভও বেশ আশাবাদী। বললেন, ‘আল্লাহর রহমতে প্রাথমিক দলে ডাক পেয়ে খুবই ভাল লাগছে। আসন্ন ওই সিরিজে খেলার ব্যাপারে আমি আশাবাদী। যেহেতু আমাকে ডেকেছে এতোদিন পর নিশ্চয়ই উনাদের পরিকল্পনা আছে। আমি যদি ক্যাম্পে অনুশীলন বা অনুশীলন ম্যাচে ভাল করি আমি আশাকরি এবার আমার একটা সম্ভাবনা আছে।’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘অবশ্যই প্রিমিয়ার লীগ অনেক বড় ভূমিকা রেখেছে। প্রিমিয়ার লীগের কারণেই আমাকে বিবেচনা করা হয়েছে বলে মনে হয় আমার। প্রিমিয়ার লীগ এবং জাতীয় লীগ দুটিতেই এবার আমি ভাল খেলেছি।’ শাহরিয়ার, রকিবুল ও সোহরাওয়ার্দীকে ঢাকা লীগের নৈপুণ্য দেখেই প্রাথমিক দলে রাখা হয়েছে। এখন তাদের লক্ষ্য স্বাভাবিকভাবেই চূড়ান্ত দলে থাকার। তবে রকিবুল ও সোহরাওয়ার্দী একাদশে থাকার আশাও দেখাচ্ছেন। তবে এ তিন ক্রিকেটারেরই সম্ভবত টেস্টে সুযোগ হলেও হতে পারে। কারণ ওয়ানডেতে যে দল আগে থেকেই সেট হয়ে আছে। নির্ধারিত ওভারে পরিবর্তনের কোন সুযোগ আছে বলে মনে হয় না। শেষ পর্যন্ত দেখা যাক কি হয়।

অক্টোবর মাস জুড়ে যে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড সিরিজ হবে, সিরিজ শুরু হবে ওয়ানডে দিয়েই। সিরিজ শুরুর সাতদিন আগে ৩০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে আসবে ইংল্যান্ড। লক্ষ্য কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া। ৪ অক্টোবর ফতুল্লায় একটি একদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে ইংল্যান্ড দল। এ ম্যাচটি শেষেই ৭ অক্টোবর মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু হবে। ৯ অক্টোবর মিরপুরেই দ্বিতীয় ওয়ানডে হবে। এরপর ১২ অক্টোবর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে তৃতীয় ওয়ানডেটি হবে। ওয়ানডে সিরিজ শেষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজটি শুরু হবে চট্টগ্রামেই। ১৪ অক্টোবর তিনদিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ শুরু হবে। এ প্রস্তুতি ম্যাচে ইংল্যান্ড ও বিসিবি একাদশ মুখোমুখি হবে। চট্টগ্রামে ২০ অক্টোবর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট খেলতে নামবে বাংলাদেশ। এরপর আবার ২৮ অক্টোবর মিরপুরে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে।

ব্রাদার্স ইউনিয়নের হয়ে শাহরিয়ার ভাল ব্যাটিং করেছেন। সুপার লীগে উঠতে পারেনি দল। ১০ ম্যাচ খেলেছেন। এ ম্যাচগুলোতেই ১ শতক ও ১ অর্ধশতকসহ ৩৮.৮৮ গড়ে ৩৫০ রান করেছেন শাহরিয়ার। তার এ নৈপুণ্যই প্রাথমিক দলে সুযোগ করে দিয়েছে। নির্বাচকরাও শাহরিয়ারকে প্রাথমিক দলে রেখেছেন। ২০১৩ সালে সর্বশেষ জাতীয় দলের জার্সি গায়ে জড়ান। সেই বছর সর্বশেষ টেস্ট, ২০১১ সালের পর আর কোন ওয়ানডে খেলার সুযোগ পাননি শাহরিয়ার। ২৪ টেস্ট ও ৭৫ ওয়ানডে খেলা শাহরিয়ারের ভাগ্যে এবার জাতীয় দলের হয়ে খেলার সুযোগ ধরা দিলেও দিতে পারে।

এবার লীগে প্রাইম দোলেশ্বরের হয়ে খেলে রকিবুল হাসান সর্বোচ্চ ৭১৯ রান করেছেন। ৯ টেস্ট ও ৫৫ ওয়ানডে খেলা রকিবুল লীগে ১৬ ম্যাচে ১ শতক ও ৫ অর্ধশতকসহ ৬৫.৩৬ গড়ে এ রান করেন। এ নৈপুণ্যই ২০১১ সালে সর্বশেষ টেস্ট ও ওয়ানডে খেলা রকিবুলকে প্রাথমিক দলে জায়গা করে দিয়েছে।

সোহরাওয়ার্দী শুভও ব্যাট-বল হাতে অসাধারণ নৈপুণ্য দেখিয়ে প্রাথমিক দলে আছেন। ২০১১ সালে সর্বশেষ বাংলাদেশ দলের জার্সি গায়ে মাঠে নামা এ অলরাউন্ডার ভিক্টোরিয়ার হয়ে ব্যাট হাতে ১৪ ম্যাচে ১ শতকসহ ২৬.০০ গড়ে ২০৮ রান ও বল হাতে ১৭ উইকেট নিয়েছেন। শেষ ম্যাচে তাসকিনের বলে ঘাড়ে আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন এ অলরাউন্ডার। এখন পুরোপুরি সুস্থ আছেন এবং সোহরাওয়ার্দীর আশা, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে যে প্রস্তুতি ম্যাচ হবে; সেই ম্যাচে নিজেকে মেলে ধরে চূড়ান্ত দলে থাকার সঙ্গে একাদশেও জায়গা করে নিতে পারবেন। একই আশা শাহরিয়ার ও রকিবুলেরও। দেখা যাক এখন কে জায়গা করে নিতে পারেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: