১৫ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সাতক্ষীরা ও কিশোরগঞ্জে পুরোহিত-সেবায়েতকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা


জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ সাতক্ষীরায় মন্দিরের পুরোহিত এবং কিশোরগঞ্জে মন্দিরের সেবায়েতকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। সেবায়েত প্রাণে বেঁচে গেলেও পুরোহিত ভবসিন্ধু বরের অবস্থা আশঙ্কাজনক। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতার।

সাতক্ষীরা ॥ সদর উপজেলার ব্রহ্মরাজপুর শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দিরের পুরোহিত ভবসিন্ধু বরকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে পুরোহিতকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য শনিবার সকাল দশটায় হেলিকপ্টারে করে তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। শনিবার ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে এই হামলার ঘটনা ঘটে। ভবসিন্ধু বর (৫০) বাজুয়াডাঙ্গা গ্রামের হাজারি লাল বরের ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে মন্দিরে পুরোহিত্য করছেন।

সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক শেখ প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জানান, শনিবার ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে ৫/৬ জন দুর্বৃত্ত মন্দিরের পাহারায় নিয়োজিত দুই চৌকিদার বাবু ও ইউনুসের কাছ থেকে মোবাইল ও টর্চলাইট কেড়ে নিয়ে মারধর করে তাদের রশি দিয়ে বেঁধে ফেলে। পরে তারা মন্দিরের একটি দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে পুরোহিতকে উপর্যুপরি কুপিয়ে আহত করে। দুর্বৃত্তরা মুখোশ পরা ছিল। তাদের পায়ে ছিল কাদামাটি।

ভোরে ফজরের নামাজ পড়তে যাওয়া মুসল্লিরা তাদের দেখতে পেয়ে প্রথমে ইউপি চেয়ারম্যান ও পরে পুলিশে খবর দেন। পুলিশ আহত অবস্থায় পুরোহিত ভবসিন্ধু বরকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। ব্রহ্মরাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান, পুরোহিত মন্দিরের একটি কক্ষে স্ত্রী সুমিত্রা বর ও পাঁচ বছরের ছেলে জগন্নাথ বরকে নিয়ে থাকেন। তাদের সামনেই তাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে দুর্বৃত্তরা। তারা পুরোহিতের মাথা, পিঠ ও বুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে বলে জানায় পুলিশ।

সাতক্ষীরা হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক জানান, আহত পুরোহিতের দুটি ফুসফুসে ক্ষত হয়েছে। একটি ফুসফুসে রক্ত জমে আছে। এ কারণে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ ॥ কিশোরগঞ্জে মন্দিরের সেবায়েতের ওপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। তবে তিনি প্রাণে বেঁচে গেছেন। শহরের নগুয়া মোড়ে অবস্থিত বিবেকানন্দ পাঠাগার ও মন্দিরের সেবায়েত পুলক চক্রবর্তী মন্দিরের পাশে একটি বাড়িতে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। শুক্রবার রাত ১টার দিকে বাড়ির দেয়াল টপকে দুর্বৃত্তরা ভেতরে প্রবেশ করে। দরজায় নক করার পর সেবায়েত দরজা খোলেন। সঙ্গে সঙ্গে চাপাতি হাতে থাকা মুখোশধারী এক দুর্বৃত্ত সেবায়েত পুলক চক্রবর্তীর ওপর হামলা চালায়। এ সময় দু’জনের ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে দেয়াল টপকে পালিয়ে যায় ওই দুর্বৃত্ত। হামলার সময় একজন ভেতরে প্রবেশ করলেও বাকি কয়েকজন বাড়ির গেটের সামনে দাঁড়িয়েছিল। ধস্তাধস্তির সময় হামলাকারীর হাতে থাকা চাপাতির আঘাতে সেবায়েতের বাম হাত সামান্য জখম হয়।

খবর পেয়ে শনিবার সকালে জেলা প্রশাসক মোঃ আজিমুদ্দিন বিশ্বাস, পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন খানসহ প্রশাসনের ঊর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ওসি মীর মোশাররফ হোসেন জানান, আতঙ্ক ছড়াতেই এরূপ ঘটনা হতে পারে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনার পর পুরোহিত পুলক চক্রবর্তীর বাসায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: