১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নেতাজির মৃত্যু নিয়ে সন্দেহ ছিল পেন্টাগনের


নেতাজির মৃত্যু নিয়ে সন্দেহ ছিল পেন্টাগনের

অনলাইন ডেস্ক॥ তাইহোকুতে বিমান দুর্ঘটনায় নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর মৃত্যুর পক্ষে জোরালো প্রমাণ মেলেনি। এমনটাই উল্লেখ করা হয়েছিল ১৯৭৮ সালে মার্কিন গোয়েন্দা রিপোর্টে। কিন্তু সে রিপোর্ট জনসমক্ষে আনা হয়নি। কেন? প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। বুধবার আরও একদফা নেতাজি সংক্রান্ত ফাইল প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। দেখা যাচ্ছে, সাংসদ সমর গুহ সংসদে নেতাজি বিষয়ে প্রশ্ন করলে চাপে পড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের থেকে এই নিয়ে রিপোর্ট চায় ভারত। মার্কিন স্বরাষ্ট্র দপ্তর ওয়াশিংটনে ভারতীয় দূতাবাসের হাতে সেই রিপোর্ট তুলে দেয়। দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি এস সুন্দরম পেন্টাগনের রিপোর্ট পাঠিয়ে দিয়েছিলেন বিদেশমন্ত্রককে। সঙ্গে লিখে দিয়েছিলেন, ‘মার্কিন স্বরাষ্ট্র দপ্তরের থেকে পাওয়া রিপোর্ট থেকে কোনোভাবেই নেতাজির মৃত্যু সংবাদ প্রতিষ্ঠিত হয় না।’ মনে রাখতে হবে, ১৯৪৫ সালে তাইওয়ানে বিমান দুর্ঘটনায় নেতাজির মৃত্যুর খবর জানিয়েছিলেন দক্ষিণ–পূর্ব এশিয়ায় কর্মরত মার্কিন সেনা আধিকারিক জেনারেল ডগলাস ম্যাকআর্থার। নেতাজি মৃত্যু নিয়ে গঠিত শাহনাওয়াজ এবং খোসলা কমিশনের এই রিপোর্ট দেখার সুযোগ ছিল না। তবে মনোজ মুখার্জি কমিশনের ছিল। সেই মুখার্জি কমিশনকেও এই রিপোর্ট দেখতে দেওয়া হয়নি। আরও জানা যাচ্ছে, ব্রিটিশ গোয়েন্দাদের অনুরোধে ১৯৪৬ সালের ৩ জুলাই এই রিপোর্ট তৈরি করেছিল মার্কিন যুদ্ধ দপ্তর। মার্কিন রিপোর্টে বলা হয়,‘ফাইল এবং গোয়েন্দাদের পাঠানো নথি বিশ্লেষণ করে একথা জোর দিয়ে বলা যায় না যে ফরমোসার তাইহোকুতে বিমান দুর্ঘটনায় সুভাষ চন্দ্র বসুর মৃত্যু নিয়ে প্রত্যক্ষ প্রমাণ আছে। যদিও জাপান সরকারের পক্ষ থেকে এই মৃত্যুর কথা স্বীকার করা হয়েছে। তবে এর পরেও এই ব্যক্তি বেঁচে ছিলেন কিনা সে তথ্য আমাদের হাতে নেই।’

সূত্র: আজকাল

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: