২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় চসিকের এখতিয়ার নেই


স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় সিটি কর্পোরেশনের(চসিক) এখতিয়ার নেই বলে জানিয়েছেন এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর পক্ষের আইনজীবী এ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ।হাইকোর্টের দেয়া পূর্ণাঙ্গ রায়ের আলোকে সংবাদপত্রে প্রেরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে তিনি বলেন, রায় অনুযায়ী বেসরকারী প্রিমিয়ার ইউনির্ভাসিটি পরিচালনার জন্য ট্রাস্ট দলিল সৃজন ও বোর্ড অব ট্রাস্টি গঠন করার কোন আইনগত এখতিয়ার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অন্তর্গত প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নেই।

গত মঙ্গলবার এ মামলায় হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। রায়ের আলোকে মহিউদ্দিন চৌধুরীর পক্ষের কৌঁসুলি বলেন, শুনানি চলাকালে ট্রাস্ট দলিল সৃজন ও ট্রাস্টি বোর্ড গঠনের জন্য ২০১৫ সালের ১৪ জুলাই চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়রকে প্রদত্ত বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) দেয়া চিঠিটি ইতোমধ্যে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। আদালতের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী যেহেতু মঞ্জুরি কমিশন তাদের দেয়া চিঠি প্রত্যাহার করে নিয়েছে সেহেতু রিট মামলায় সংক্ষুব্ধ হওয়ার অবকাশ নেই। যেহেতু প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্ট দলিল সৃজন, বাতিল, বহাল ইত্যাদি বিষয় দেওয়ানী আদালতের এখতিয়ারাধীন সেহেতু তা নিষ্পন্ন করতে দেওয়ানী আদালতে মামলা দায়ের করা যেতে পারে।

পল্লীবিদ্যুত কর্মকর্তার ওপর হামলা

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ, ৩০ জুন ॥ কটিয়াদীতে পল্লীবিদ্যুতের ডিজিএম মোস্তফা কামালের ওপর হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে এ ঘটনার পরপরই পুলিশ পৌর সদরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো-ইলেক্ট্রিশিয়ান মাজহারুল পল্টু, মহিউদ্দিন খান ও সিরাজুল ইসলাম মেনু। পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ডিজিএম মোস্তফা কামাল সকালে পৌর সদরের পূর্বপাড়া বাসা থেকে অফিসের উদ্দেশ্যে বের হন। এ সময় বাসার সামনেই কয়েক সন্ত্রাসী রড দিয়ে তার মাথায় এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর জখম করে পালিয়ে যায়। হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকায় রেফার্ড করেন। বর্তমানে ডিজিএমের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য, ডিজিএম মোস্তফা কামাল যোগদানের পর থেকে পল্লীবিদ্যুতের দালালদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছিলেন। তিনি পল্লীবিদ্যুত অফিসকে দুর্নীতি মুক্ত করতে ভূমিকা রাখতে সচেষ্ট থাকায় এরূপ হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

ব্রহ্মপুত্র চরে আটকা হাতি ফেরত চেয়েছে ভারত

স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম ॥ চিলমারী উপজেলায় বানের পানিতে ভারত থেকে ভেসে আসা একটি বুনোহাতি তিন দিন ধরে ব্রহ্মপুত্র নদের বিভিন্ন চরে আটকে আছে। রৌমারী-উলিপুর- এবং চিলমারীতে এভাবেই ভেসে ভেসে কাটছে একটি বন্যহাতির দিন। তিন দিনেও হাতিটি উদ্ধারের কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। অন্যদিকে এরই মধ্যে হাতিটিকে ফেরতও চেয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী। চর এলাকার আনোয়ার হোসেন ও আবুল হাশেম বলেন, মঙ্গলবার সকালে তারা ভারত থেকে মহিষ ভেসে এসেছে ভেবে ধরতে যান। কাছে গিয়ে দেখেন হাতি। সাহেবের আলগা বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল আজিজ বলেন, হাতি আটকা পড়ার খবরটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে বিএসএফকেও জানানো হয়েছে।