১৮ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বেই কি ফিরবেন মেসি?


বিশ্বকাপ বাছাইপর্বেই কি ফিরবেন মেসি?

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ফিরবেন, না ফিরবেন না? লিওনেল মেসিকে ঘিরে এই প্রশ্নটি এখন সর্বত্র। বিভিন্ন ক্ষেত্রের অনেক ক্রীড়া তারকাকে অবসর ভেঙ্গে ফিরতে দেখা গেছে। এই তালিকায় আছেন জিনেদিন জিদানের মতো তারকা ফুটবলারও।

অবসর ঘোষণার পর মেসিকে ফেরাতে যা হচ্ছে তাতে অনেকেই মনে করছেন, সিদ্ধান্ত হয় তো পাল্টাতে পারেন পাঁচবারের ফিফা সেরা ফুটবলার। নিজ দেশ আর্জেন্টিনার মানুষ তো আছেই, গোটা বিশ্বে তার কোটি কোটি ভক্ত-সমর্থকদেরও একটিই চাওয়াÑ ‘ফিরে এস মেসি’। এত এত মানুষের ভালবাসা, চাওয়া পূরণ না করে থাকতে পারবেন মেসি? এই প্রশ্নটি এখন সবখানে। তবে ফুটবল বিশেষজ্ঞ থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের উদ্ধৃতিতে আঁচ করা যাচ্ছে, কয়েক মাস অবসরে থাকার পর আবারও ফিরে আসবেন মেসি। সেক্ষেত্রে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে আর্জেন্টিনার পরবর্তী ম্যাচের আগেই ঘোষণা আসতে পারে।

স্পেনের প্রভাবশালী দৈনিক মার্কা জানিয়েছে, আগামী আগস্টেই হয় তো আর্জেন্টিনার অনুশীলনে ফিরবেন মেসি। কেননা ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে আর্জেন্টিনার পরবর্তী ম্যাচ আগামী ১ সেপ্টেম্বর উরুগুয়ের বিপক্ষে। নিজ দেশে অনুষ্ঠিত ওই ম্যাচের আগে মেসিকে ফেরাতে যেন আদাজল খেয়ে লেগেছে আর্জেন্টাইনরা। তাদের বিশ্বাস, আগস্টের মধ্যেই অবসরের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ খেলবেন মেসি। সম্ভবানা জোরালো এ কারণে, সিদ্ধান্ত নিতে অন্ততপক্ষে দুই মাস সময় পাচ্ছেন বর্তমান বিশ্ব ফুটবলের সেরা তারকা। এই সময়ে নিজের হতাশাও মেসি দূর করতে পারবেন বলে আশা করছেন তার শুভাকাক্সক্ষীরা।

অভিমান ভেঙ্গে দেশের হয়ে আবারও খেলবেন মেসি এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন স্বয়ং আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট মাউরিচিও মাক্রি। কেবিনেট মিটিং শেষে তিনি জানান, মেসি ঈশ্বর প্রদত্ত একটি উপহার। আমরা ভাগ্যবান যে এমন একজনকে পেয়েছি। তার সঙ্গে ফোনে আমার কথা হয়েছে, বলেছি। সমালোচকদের কথায় কান দিও না। আমরা তোমাকে নিয়ে খুশি। আগামী সপ্তাহে বার্সিলোনা সুপারস্টারের সঙ্গে দেখা হওয়ার কথা আছে বলেও জানান তিনি। গোটাবিশ্বে ভক্তদের দাবি তো আছেই। সেই দাবিতে শামিল সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার জীবন্ত কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনা, হকি কিংবদন্তি লুসিয়ানা আইমার, আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট মাক্রিসহ আরও অনেক রথি-মহিরথী। এতসব অনুরোধ, ভালবাসা মেসি শেষমেশ উপেক্ষা করতে পারবেন না বলেই আশা করছেন তার ভক্তরা।

তাহলে কি সত্যিই অবসর ভেঙ্গে ফিরবেন মেসি? না যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সেটিই হয়ে থাকবে চূড়ান্ত? তবে মেসির ফেরার প্রেরণা হিসেবে অনেকেই ফরাসী কিংবদন্তি জিনেদিন জিদানের দিকে দৃষ্টি দিচ্ছেন। ২০০৬ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে দেশের অবস্থা বেগতিক দেখে ঠিকই ফিরে এসেছিলেন ফ্রান্সের এই তারকা মিডফিল্ডার। এরপর ফ্রান্সকে বিশ্বকাপের টিকেট পাইয়ে চূড়ান্ত আসরেও ফাইনালে নিয়ে গিয়েছিলেন। মেসি কি করবেন এখন সেটাই দেখার। তবে তার সিদ্ধান্ত বদলানোর আশাতেই দিন গুনছে আর্জেন্টাইনরা। মেসিকে ছাড়া বিশ্বকাপ বাছাইয়ের কঠিন বৈতরণী পার হওয়া যে কতটা কঠিন হবে সেটা প্রথমেই বুঝেছে ম্যারাডোনার দেশ।

বাছাইপর্বে প্রথম তিন রাউন্ডে ইনজুরির জন্য খেলতে পারেননি মেসি। তখন আর্জেন্টিনা রীতিমতো ধুকছিল। পয়েন্ট তালিকায় ছিল ছয় নম্বরে। কিন্তু চতুর্থ থেকে ষষ্ঠ রাউন্ডে মেসি ফেরার পর প্রতি ম্যাচই জিতেছে আর্জেন্টিনা। দুর্দান্তভাবে উঠে এসেছে পয়েন্ট তালিকার তৃতীয় স্থানে। এখনও দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলে প্রতি দলের ১২টি করে ম্যাচ বাকি আছে। পথটা অনেক লম্বা সেটা স্পষ্ট। এখন মেসি যদি বাছাইপর্বে না খেলে তাহলে আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপের টিকেট পাবে, এই গ্যারান্টি কোথায়? বিষয়টা বুঝতে পেরেই আর্জেন্টাইনরা তাদের সেরা তারকাকে ফেরাতে আদাজল খেয়ে লেগেছে। দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চল থেকে সেরা চার দল সরাসরি বিশ্বকাপে খেলবে। পঞ্চম হওয়া দলটি খেলবে প্লে অফে। এই অঞ্চলের বাছাইপর্বের পরিস্থিতি এখন বেশ পরিবর্তিত। অংশ নেয়া ১০ দলের আটটিই বিশ্বকাপে খেলার দাবিদার। কিন্তু সুযোগ পাবে চার দল। ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, উরুগুয়ে তো আছেই। চিলি সবশেষ দুইবারের কোপা চ্যাম্পিয়ন। ইকুয়েডর বর্তমানে পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বরে। কলম্বিয়াও আছে তুখোড় ফর্মে। প্যারাগুয়ে, পেরুও ছেড়ে কথা বলে না। বাছাইপর্বের কঠিন এই সমীকরণ সামনে রেখেই মেসিকে ফেরাতে তোলপাড় চলছে।

এদিকে কোপা আমেরিকার শিরোপা এনে দিতে না পারায় মেসিকে নিয়ে আর্জেন্টাইনদের সমালোচনাকে বাড়াবাড়ি হিসেবে দেখছেন ম্যারাডোনা। এজন্য আর্জেন্টিনার সমালোচকদের একহাত নিয়েছেন ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক। তিনি বলেছেন, যাদের একটা বল স্পর্শ করার অভিজ্ঞতা নেই, তারা আবার ফুটবল তারকার ভুল খুঁজতে যায়। সমালোচনাকারীদের ওপর বিরক্ত ম্যারাডোনা সাক্ষাতকারে বলেন, চিলির বিপক্ষে পেনাল্টি মিস করেছে মেসি। দেখবেন, এটা নিয়ে তারাই সমালোচনা করছে, যারা কোনদিন একটা বলে কখনও স্পর্শ করে দেখেনি। তারা ফুটবল তারকার (মেসি) ভুল ধরার চেষ্টায় মত্ত। মেসির প্রশংসায় ম্যারাডোনা বলেন, কোপার ফাইনালে হার বাদ দিলে আমি মনে করি মেসি বিজয়ী। ওকে এখন ছুটি কাটাতে দেয়া উচিত। একাকী থাকতে দিন।

সচুতর ম্যারাডোনা কি তাহলে অনুতপ্ত হয়ে কথাগুলো বলছেন! কোপার ফাইনালের আগে তিনিই তো বলেছিলেন, ‘ট্রফি না জিতলে মেসিদের দেশে ফেরার দরকার নেই।’

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: