২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ব্রিটেনের গাড়ি শিল্পে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে


ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে ব্রিটেন বের হয়ে যাওয়ায় দেশটির গাড়ি ইন্ডাস্ট্রিতে এর ক্ষতিকর প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই যত দ্রুত সম্ভব এ নিয়ে ইউরোপের সঙ্গে নতুন করে বাণিজ্য চুক্তি করার জোরালো দাবি জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। এ্যাটসন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্ডাস্ট্রির অধ্যাপক ডেভিড বেইলির মতে, ব্রিটেন ইইউ ছাড়াই খাতটি নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা দেখা দিতে পারে। রফতানির ওপর শুল্ক বেড়ে গেলে মাল্টি-বিলিয়ন পাউন্ডের গাড়ি ইন্ডাস্ট্রি লোকসানের মুখে পড়বে। ব্রিটেনে মোট গাড়ি উৎপাদনের ৭৭.৩ শতাংশ বিদেশে রফতানি করা হয়। এর মধ্যে শুধু ইউরোপেই রফতানি করা হয় ৫৭.৫ শতাংশ। তিনি বলেন, দেশের কোম্পানিগুলো মূলত ইউরোপের বাজার ধরার জন্য গাড়ি উৎপাদন করে। এক্ষেত্রে বলতে গেলে তারা এতদিন সফলই ছিল। কিন্তু ইইউ ত্যাগ করার ফলে তা অন্ধকারের মুখ দেখতে পারে। -অর্থনৈতিক রিপোর্টার

যুক্তরাষ্ট্রে হুমকির মুখে দেশীয় মানি ট্রান্সফার প্রতিষ্ঠান

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংকিং নীতিমালায় কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপে হুমকির মুখে পড়েছে দেশীয় মানি ট্রান্সফার প্রতিষ্ঠানগুলো। নগদ অর্থ ব্যবস্থাপনায় অধিক বীমা ব্যয় ও কঠোর শর্তাবলীর কারণে একটি ব্যাংক ছাড়া আর কোন ব্যাংকই বাংলাদেশী রেমিটেন্স প্রেরণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর এ্যাকাউন্ট নিতে রাজি হচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের রেমিটেন্স পাঠানো নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে এখন দেশের একটি ব্যাংক প্রতিষ্ঠা ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। প্রতিবছর বিভিন্ন বিদেশী প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সোনালি এক্সচেঞ্জ, স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস, এনবিএল, ব্যাংক এশিয়া এক্সপ্রেস, জনতা এক্সপ্রেস, রূপালী এক্সপ্রেস এই ৬টি দেশী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে রেমিটেন্স পাঠিয়ে থাকে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠানের এমএসবি এ্যাকাউন্ট নিতে রাজি না হওয়ায় এর পেছনে ব্যাংকিং নীতিমালার কঠোর শর্তাবলীকে দায়ী করলেন ওইসব প্রতিষ্ঠানের কর্মপ্রধানরা। -অর্থনৈতিক রিপোর্টার