২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

অনলাইন জালিয়াতিতে ॥ আত্মহত্যা করলেন ব্যাঙ্গালুরুর গৃহবধূ


অনলাইন জালিয়াতিতে ॥ আত্মহত্যা করলেন ব্যাঙ্গালুরুর গৃহবধূ

অনলাইন ডেস্ক॥ এই ধরনের ঘটনা এটাই প্রথম। অনলাইন জালিয়াতির খপ্পরে পড়ে ১১ লাখ রুপি খুইয়ে আত্মহত্যা করলেন ভারতের ব্যাঙ্গালুরুর এক সিনিয়র আইটি পেশাদারের স্ত্রী। ৪৪ বছর বয়সী ওই নারীকে অনলাইন জালিয়াতরা বার্তা পাঠায় যে, তিনি লটারিতে ৪৫ লাখ রুপি জিতেছেন। এজন্য তাকে ১১ লাখ রুপি দিতে হবে।

জালিয়াতদের ফাঁদে পা দিয়ে ওই নারী তার স্বামী ও দুই সন্তানকে কিছু না জানিয়েই ১১ লাখ রুপি দিয়ে দেন। এরপর তিনি পুরস্কারের টাকা আনতে বিমানযোগে দিল্লিতেও উড়ে যান। কিন্তু পুরস্কারের টাকা না পেয়ে তিনি বুঝতে পারেন যে তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন। এরপর তিনি বাড়ি ফিরে গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন।

পলক ভি নামের ওই নারী ব্যাঙ্গালুরুর স্বামী বিবেকানন্দ রোডে বাস করতেন। গত সপ্তাহে তিনি আত্মহত্যা করেন।

তদন্তে জানা গেছে, অ্যান্ড্রু নামের এক জালিয়াতের খপ্পরে পড়েছিলেন পলক। অ্যান্ড্রু তাকে বলে, একটি ডিমান্ড ড্রাফটের মাধ্যমে তাকে ৪৫ লাখ রুপি দেওয়া হবে। অ্যান্ড্রু আরো জানায় পুরো টাকাটা পেতে হলে কাস্টমস ক্লিয়ারেন্স এর মতো কিছু আইনী ঝামেলা নিরসনে পলককে আগে কিছু টাকা পাঠাতে হবে। গত ৬ থেকে ১৩ জুনের মধ্যে পলক নামের ওই নারী রাহুল, হাসানাত, সাব্বির ও আরেকটিসহ চারটি ভিন্ন ভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে মোট ১১ লাখ রুপি পাঠায়। একটি অ্যাকাউন্ট থেকে সে সর্বোচ্চ আড়াই লাখ রুপি পাঠায়।

এরপর সে ওই জালিয়াতের নির্দেশনা মতো বিমানযোগে দিল্লিতে যায় পুরস্কারের টাকা আনতে। এবার ওই জালিয়াত পলক নামের ওই নারীকে সরাসরি ফোন করে আরো টাকা দাবি করলে পলক জানায় তার কাছে আর কোনো টাকা নেই। তখন অ্যান্ড্রু নামের ওই জালিয়াত জানায় আরো টাকা না দিলে তাকে পুরস্কারের টাকাটা দেওয়া হবে না।

তখন পলক বুঝতে পারেন যে তার সঙ্গে আসলে প্রতারণা করা হয়েছে। এরপর ব্যাঙ্গালুরুর বাড়িতে ফিরে আসেন পলক। প্রথমে পলক কীটনাশক পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালালে তার সন্তানরা তাকে রক্ষা করে। এর পরেরদিন সে গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। তার পরিবারের সদস্যরা জালিয়াতির বিষয়টি পুলিশকে জানাতে গেলে এই ফাকে সে আত্মহত্যা করে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: