১৬ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

রয়ের তাণ্ডবে সিরিজ হারলো শ্রীলঙ্কা


রয়ের তাণ্ডবে সিরিজ হারলো শ্রীলঙ্কা

অনলাইন ডেস্ক॥ টেস্টের পর ওয়ানডে সিরিজও হারলো শ্রীলঙ্কা। এবার তিনশোর বেশি রান করেও জেতা হলো না তাদের। ওপেনার জ্যাসন রয়ের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে ইংল্যান্ড সিরিজ জিতে নিয়েছে এক ম্যাচ হাতে রেখেই।

ডাকওয়ার্থ-লুইস বৃষ্টি আইনে ৪২ ওভারে ৩০৯ রানের টার্গেট ছিল ইংল্যান্ডের সামনে। বুধবার লন্ডনের কেনিংটন ওভালে রয় খেলেছেন ১৬২ রানের ইনিংস। এটা তার ক্যারিয়ার সেরা তো বটেই, ইংল্যান্ডের ইতিহাসের দ্বিতীয় সেরা ইনিংস। ১১ বল হাতে রেখেই ৬ উইকেটে জিতেছে ইংলিশরা। তার আগে চার ফিফটিতে ৪২ ওভারে ৫ উইকেটে ৩০৫ রান তুলেছিল শ্রীলঙ্কা।

চতুর্থ এই ওয়ানডের পর ৫ ম্যাচের সিরিজে ২-০ তে এগিয়ে স্বাগতিকরা। আগের তিন ম্যাচের প্রথমটি টাই হয়েছিল। দ্বিতীয়টি ১০ উইকেটে জিতেছিল ইংল্যান্ড। তৃতীয়টি বৃষ্টিতে হয় পরিত্যক্ত। দ্বিতীয় ম্যাচে অপরাজিত সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন রয়। ১১২ করেছিলেন। এবার ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরিতে রয় নিজেকেই ছাড়িয়ে গেলেন।

শ্রীলঙ্কা রানের ফোয়ারা ছুটিয়েছিল। এই সময় বৃষ্টি থামায় তাদের। মোমেন্টাম হারায় তারা। ম্যাচ নেমে আসে ৪২ ওভারে। এরপর রয়ের তাণ্ডব। ১১৮ বলে ১৩টি চার ও ৩টি ছক্কায় নিজের ইনিংস সাজিয়েছেন এই ডান হাতি ব্যাটসম্যান। ৭৪ বলে ১০০ করেছেন রয়। ১৫০ রান এসেছে ১০৯ বলে। জিততে যখন আর ২৭ রান দরকার তখন তিনি থেমেছেন। রবিন স্মিথের ১৬৭ রানের ২৩ বছরের পুরনো ইংলিশ রেকর্ড অক্ষত থেকে যায় তাতে।

রয়ের সাথে দ্বিতীয় উইকেটে ১৪৯ রানের জুটি গড়েন জো রুট। রুটও ক্ষমা করেননি লঙ্কান বোলারদের। ৬৫ রান করেছেন ৫৪ বলে। মেরেছেন ৯টি বাউন্ডারি। এরপর অধিনায়ক ইউইন মরগ্যানের (২২) সাথে ৫৪ ও জনি বেয়ারস্টোর (অপরাজিত ২৯) সাথে ৬০ রানের জুটি গড়েছেন রয়। ইংলিশদের জয়টা কখনোই কঠিন হয়নি।

এবারের ইংল্যান্ড সফরে শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যানরা এই প্রথম এতটা দাপটের সাথে ব্যাট করতে পেরেছেন। পুরো ৫০ ওভারের খেলা হলে তাদের সংগ্রহটা অনেক বড় হতে পারতো। ভাগ্য খারাপ। ওপেনার দানুস্কা গুনাথিলাকা ৬২ রান দিয়েছেন। ৬৪ বলে ইনিংস সর্বোচ্চ ৭৭ রান করেছেন কুসল মেন্ডিস। ১৩টি চার মেরেছেন তিনি। এরপর দিনেশ চান্দিমাল ৬৩ ও অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস অপরাজিত ৬৭ রানের ইনিংস খেলেন। তবু রয়ের কারণে শেষ রক্ষা হয়নি লঙ্কানদের।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: