২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

মেসিকে ফেরাতে উত্তাল আর্জেন্টিনা


মেসিকে ফেরাতে উত্তাল আর্জেন্টিনা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সুযোগ পেলেই লিওনেল মেসির দেশাত্ববোধ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আর্জেন্টাইনরা। দেশের জার্সিতে বার বার ব্যর্থ হওয়ার কারণে অনেকে বিভিন্ন সময় বলেছেন, ‘মেসি আসলে বার্সিলোনার, ওর দেশের প্রতি কোন দায়বোধ নেই’। সেই মেসি আচমকা জাতীয় দল থেকে অবসর নেয়ার পর আর্জেন্টাইনদের দরদ যেন উতলে পড়ছে!

দেশটির শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ থেকে শুরু করে আমজনতাÑ সবাই এখন মেসিকে ফিরে আসতে অনুরোধ করছেন। ইতোমধ্যে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট ও দেশটির সর্বকালের সেরা ফুটবলার দিয়াগো ম্যারাডোনা অনুরোধ জানিয়েছেন। যতই দিন গড়াচ্ছে, মেসিকে ফেরানোর সংগ্রাম গাঢ় হচ্ছে। গোটা আর্জেন্টিনা এখন তাদের প্রিয় তারকাকে মাঠে দেখতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছে। আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েনস আয়ার্সে মেসির নতুন মূর্তি স্থাপন করে তাকে থেকে যাওয়ার অনুরোধ করেছেন শহরের মেয়র। প্রেসিডেন্ট মাউরিচিও মাক্রি মেসিকে ঈশ্বরের উপহার আখ্যায়িত করে সবসময় তার পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন। তাদের জাতীয় বীরকে অবসর থেকে ফেরাতে রাজধানীতে শীঘ্রই গণজমায়েত হবে বলে জানা গেছে। মেসির বার্সিলোনা সতীর্থ লুইস সুয়ারেজও বিশ্বাস করছেন, মেসি অবসর ভেঙ্গে আবারও আর্জেন্টিনার জার্সিতে ফিরে আসবেন।

বলতে দ্বিধা নেই, পুরো আর্জেন্টিনাই এখন কাঁপছে মেসি জ্বরে। এ সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার আর কখনই জাতীয় দলের জার্সি গায়ে খেলবেন নাÑ এটা কিছুইতেই মানতে পারছেন না আর্জেন্টিনার ফুটবলত্রেমীরা। সবার মুখেই একই আকুতি, ‘মেসি, যেও না’! রাজধানী বুয়েনস আয়ার্সে নতুন একটি মূর্তি স্থাপন করে মেসিকে থেকে যাওয়ার অনুরোধ করেছেন শহরের মেয়র। এমনকি অবসরের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার অনুরোধ জানিয়ে বদলে ফেলা হয়েছে ট্রাফিক সিগন্যালও। সেখানেও এখন দেখা যাচ্ছে একই বার্তা, ‘মেসি, যেও না’! টানা দ্বিতীয়বারের মতো কোপা আমেরিকার ফাইনালে চিলির কাছে টাইব্রেকারে হারের পর নাটকীয়ভাবেই অবসরের সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন মেসি। কিন্তু তাকে এভাবে হতাশ হয়ে বিদায় দিতে চান না আর্জেন্টাইনরা।

সবাই অনুরোধ জানাচ্ছেন সিদ্ধান্ত বদলের জন্য। এবার এই দলে যোগ দিয়েছেন বুয়েনস আয়ার্সের মেয়র লারেটা রড্রিগেজ। শহরে স্থাপন করেছেন মেসির একটি মূর্তি। মেসিকে থেকে যাওয়ার অনুরোধ জানানোর জন্য এটা একটা ভাল উপায় বলেই মন্তব্য করেছেন তিনি। বলেন, আমার মনে হয়, মেসিকে থেকে যাওয়ার আহ্বান জানানোর জন্য এটা একটা ভাল উপায়। তিনি যেন আমাদের হাত ধরে থাকেন আর জিততে পারেন। আমার কোন সন্দেহ নেই যে, আমরা রাশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য পরবর্তী বিশ্বকাপ জিততে পারব। শুধু তাই নয়, বুয়েনস আয়ার্সের অনেক ট্রাফিক সিগন্যালও বদলে দেয়া হয়েছে মেসিকে থেকে যাওয়ার অনুরোধ জানিয়ে। সেখানেও বিভিন্ন রোডসাইনের পরিবর্তে দেখা যাচ্ছে তিনটি শব্দ, ‘যেও না, মেসি’! মেসিকে ফেরাতে আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েনস আয়ার্সের রাস্তায় নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিপুল সংখ্যক সমর্থক। ওবেলিস্কো মনুমেন্টের সামনে বিশাল র‌্যালিতে অংশ নিতে এরই মধ্যে ১ লাখেরও বেশি মানুষ আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে চলছে ব্যাপক প্রচারণা। ধারণা করা হচ্ছে, মেসির সমর্থনে কয়েক লাখ মানুষ সেখানে জমায়েত হবেন। ইভেন্ট পেজটির স্ট্যাটাসে বলা হয়েছে, ২ জুলাই সন্ধ্যা ৬টায় (স্থানীয় সময়) আমরা সবাই ওবেলিস্কোতে গিয়ে মেসির প্রতি আমাদের ভালোবাসা প্রদর্শন করবো। আমাদের আশা, তিনি আর্জেন্টিনার জার্সি পরা অব্যাহত রাখবেন। ফিরে আসো মেসি, আমাদের ছেড়ে চলে যেয়ো না।

টানা ফাইনালে হারের বেদনা নিয়ে ইতোমধ্যে দেশে ফিরেছেন আর্জেন্টিনার ফুটবলাররা। মেসি, এ্যাগুয়েরো, ডি মারিয়াদের বরণ করে নেয়ার জন্য মুখিয়ে ছিল আর্জেন্টাইনরা। কিন্তু নিয়তির পরিহাস, এখন নিভৃতে সময় অতিবাহিত করছেন তারা। অবশ্য ট্রফি জিততে না পারলেও বিমানবন্দরে ভক্তরা উপস্থিত হয়েছিলেন মেসিকে সিদ্ধান্ত বদলানোর অনুরোধ জানাতে। ফাইনালে হারলেও ভক্তরা বীরের মতোই বরণ করে নিয়েছেন মেসিদের। ভিড়, বৃষ্টি উপেক্ষা করে তারা অপেক্ষা করেছেন। এই তালিকায় ছিলেন বয়োজ্যেষ্ঠ থেকে শুরু করে শিশুও। সবার হাতেই শোভা পেয়েছে ব্যানার। তাতে মেসিকে ফিরে আসার অনুরোধ। এর মধ্যে একটা ব্যানার দৃষ্টি কেড়েছে সবার। যেখানে লেখা ‘মেসি, আমি তোমাকে আমার মায়ের চেয়েও বেশি ভালবাসি।’ কতটা ভালবাসলে এমন বলা যায়!

২৯ বছর বয়সী এক ভক্ত জুয়ান পাবলো পিনাসকো যেন বিশ্বাসই করতে পারছেন না। তিনি বলেন, কী যে দুঃখ লাগছে বলে বোঝাতে পারব না, মনে হচ্ছে আমার হৃদয় এখনও দুই টুকরো হয়ে গেছে। তবে কতটা কষ্ট থেকে মেসি অবসর নিয়েছেন, সেটা বুঝতে পারছেন তার পরিচিতজনরাও। রোজারিওতে মেসির প্রথম কোচ ছিলেন এরনেস্টো ভেচ্চিও। এই কঠিন সময়েও মেসির পাশে থেকে তিনি বলেন, আর কত সমালোচনা সইবে ও? চলে যাওয়ার পুরো অধিকারই আছে তার। আমি নিজেও চাই না ও চলে যাক। দলে আরও ১০ জন খেলোয়াড় থাকার পরও ওকেই ত্রাণকর্তা ভাবতে যাওয়া খুবই একটা অবিচার।

বার্সিলোনায় এক সঙ্গে খেলার কারণে মেসিকে খুব ভাল করেই চেনেন সুয়ারেজ। তিনি নিশ্চিত করেই বলছেন, মেসি তার অবস্থান সরে আসবেন। উরুগুইয়ান সুপারস্টার বলেন, আমি নিশ্চিত যে, সে তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করবে। কিন্তু যে সিদ্ধান্তই নিক না কেন মেসি সর্বকালের সেরা হিসেবেই থাকবে। এখন দেখার, ভক্ত-সমর্থকদের এত এত অনুরোধ-ভালবাসার জবাব কিভাবে দেন মেসি।