১৫ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শাহজালাল বিমানবন্দর নিরাপত্তায় সহায়তার প্রস্তাব যুক্তরাষ্ট্রের


কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নিরাপত্তায় সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে দেশটি জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস প্রতিরোধেও বাংলাদেশের সঙ্গে একত্রে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। বুধবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে মার্কিন কংগ্রেসম্যান ফ্রাঙ্ক লভিয়েন্দোর নেতৃত্বে পাঁচ সদেস্যের একটি প্রতিনিধিদল বৈঠক করে আনুষ্ঠানিকভাবে এ প্রস্তাব দেন। বৈঠক শেষে মার্কিন প্রতিনিধি দলের প্রধান সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

বৈঠক শেষে মার্কিন কংগ্রেসম্যান ফ্রাঙ্ক লভিয়েন্দো সাংবাদিকদের বলেন, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস প্রতিরোধে সরকারের কর্মকা-ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সন্তুষ্ট। সন্ত্রাস প্রতিরোধে বাংলাদেশ যেভাবে কাজ করছে তাতে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থন করে। বাংলাদেশের বিমানবন্দরের নিরাপত্তা জোরদারে যা যা করণীয় সে বিষয়ে সহযোগিতার প্রস্তাব দিয়েছি। বিমানবন্দরের নিরাপত্তায় বর্তমান সরকার অনেক কাজ করছে।

তিনি বলেন, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র একসঙ্গে কাজ করতে চায়। বাংলাদেশ এ বিষয়ে বলিষ্ঠ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বিমানবন্দরের নিরাপত্তায় সিভিল এ্যাভিয়েশনকে শক্তিশালী করতেও আমরা বাংলাদেশকে সহায়তা করতে চাই। এছাড়া বাংলাদেশ চাইলে এ্যান্টিটেররিজমসহ যে কোন বিষয়ে সহযোগিতা দেবে যুক্তরাষ্ট্র।

বৈঠকের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, মার্কিন কংগ্রেসম্যানের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি আমাদের সিভিল এ্যাভিয়েশনের নিরাপত্তা, কাউন্টার টেররিজমসহ আমরা কিভাবে সন্ত্রাস দমন করছি তা জানতে চেয়েছেন। তাদের এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা হয়েছে। তারা সরকারের নেয়া পদক্ষেপের প্রশংসা করেছেন। নিজেদের সন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, মার্কিন প্রতিনিধি দলের কাছে সরকারের নবগঠিত কাউন্টার টেররিজম ও সাইবার ক্রাইম বিষয়ে ট্রেনিংয়ের জন্য তাদের সহায়তা চাওয়া হয়েছে। তারা বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা দিতে সম্মত হয়েছেন। তাদের প্রস্তাবমতো বিদেশী দূতাবাস ও বিমানবন্দরে নিরাপত্তা বাড়িয়েছি। বিমানবন্দরে নিরাপত্তায় যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। এতে তারা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও জানান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আমাদের সিভিল এ্যাভিয়েশনকে সহযোগিতা করতে চায়। এতে সহায়তা নিতে আমরা সম্মতি জানিয়েছি। তারা বলেছেন, সাইবার ক্রাইম রোধ ও কাউন্টার টেররিজম বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে সহাযোগিতা করবে। আমরাও মনে করি, এসব বিষয়ে উন্নত প্রশিক্ষণ দরকার। বাংলাদেশকে এ বিষয়ে সহযোগিতা করতে তারা সম্মত হয়েছেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: