১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ভারত ‘নাক উঁচু’, হুল চিনা কাগজে


ভারত ‘নাক উঁচু’, হুল চিনা কাগজে

অনলাইন ডেস্ক ॥ ২৪ ঘণ্টা আগেই চিনের চোখে চোখ রেখে কথা বলার বার্তা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আজ চিনা সরকারি সংবাদমাধ্যম জানিয়ে দিল, পশ্চিমী দুনিয়ার মদতে ভারত ‘নাক উঁচু’ দেশ হয়ে গিয়েছে। এনএসজি-র নিয়মের জন্যই ভারত সদস্য হতে পারেনি, চিনের জন্য নয়।

সোল বৈঠকে যে চিনের বাধাতেই ভারত এনএসজি-র সদস্য হতে পারেনি, তা স্পষ্ট করে দিয়েছিল বিদেশ মন্ত্রক। গত কাল এক সাক্ষাৎকারে মোদী জানান, দিল্লি বেজিংয়ের চোখে চোখ রেখে নিজেদের অবস্থান জানায়।

এ দিন চিনের এক সরকারি মুখপত্রের সম্পাদকীয়তে আক্রমণ করা হয়েছে ভারতকে। মুখপত্রটির মতে, আমেরিকা-সহ পশ্চিমী দুনিয়া ভারতকে এখন অনেক বেশি মদত দেয়। এটা চিনকে আটকানোর কৌশল। ফলে, ভারত ‘নাক উঁচু’ দেশ হয়ে গিয়েছে। দিল্লি মনে করে আন্তর্জাতিক নিয়ম না মেনে কেবল নিজের স্বার্থ দেখে চললেই হবে। চিনা মুখপত্রের বক্তব্য, ‘‘১৯৭৫ সালে এনএসজি তৈরি হওয়ার সময়েই স্থির হয় ওই গোষ্ঠীর সব সদস্য দেশকেই পরমাণু অস্ত্রপ্রসার রোধ চুক্তিতে (এনপিটি) সই করতে হবে। ভারত এনপিটিতে স্বাক্ষর করেনি। সেই যুক্তিতেই সোলে চিন ও অন্য কিছু দেশ ভারতের সদস্যপদ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।’’ চিনা সংবাদমাধ্যমের মতে, সোলের ব্যর্থতার পরে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ও কিছু ভারতীয় যে ভাবে চিনকে দুষেছেন তা অযৌক্তিক।

গত কাল আনুষ্ঠানিক ভাবে অভিজাত ক্ষেপণাস্ত্র ক্লাবের (এমটিসিআর) সদস্য হয়েছে ভারত। এখনও ওই ক্লাবে ঢোকার টিকিট পায়নি চিন। ভারত ও চিনের পার্থক্য বোঝাতে সেই প্রসঙ্গ তুলে বেজিংয়ের মুখপত্রটির বক্তব্য, ‘‘এমটিসিআর-এ ভারত ঢোকার সুযোগ পেয়েছে‌। চিন পায়নি। কিন্তু চিনে তা নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়াই হয়নি।’’ মুখপত্রটির কথায়, ‘‘চিনের মানুষ পরিণত দৃষ্টিতে বিশ্বকে দেখতে অভ্যস্ত। ভারতীয় নাগরিকের ভাবনাচিন্তার মান নিচু। তাই তাঁরা ভারত-চিন সম্পর্কের মূল্যায়ন করতে পারেন না।’’ মুখপত্রে হুল ফোটানোর দিনেই নরম সুর চিনা বিদেশ মন্ত্রকের। তাদের বক্তব্য, ‘‘ভারত ও চিনের সম্পর্ক মোটের উপরে ভাল। দু’দেশের মতবিরোধের ক্ষেত্রের চেয়ে সহযোগিতার ক্ষেত্রই বেশি।

সূত্র : আনন্দাবাজার পত্রিকা

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: