২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

না’গঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতার ভাইকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা


নিজস্ব সংবাদদাতা, নারায়ণগঞ্জ, ২৮ জুন ॥ নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতার বড় ভাই ব্যবসায়ী কুতুবউদ্দিনকে (৬৫) গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে। বন্দর থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আবেদ হোসেনের বড় ভাই কুতুব-উদ্দিনকে সন্ত্রাসীরা এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা করে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে এলাকাবাসী শামীম আহমেদ (৩০) নামে এক যুবককে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। ঘটনাটি ঘটে সোমবার রাত ১টায় সোনাকান্দা নামাপাড়া এলাকায়। অপরদিকে মঙ্গলবার সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পশ্চিমপাড়া এলাকায় রবিউল (৩০) নামে এক রিক্সাচালককে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাবাসাদের জন্য ৭ জনকে আটক করেছে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বন্দরের সোনাকান্দা নামাপাড়া এলাকায় সোমবার রাত একটার দিকে হঠাৎ শামীম নামে এক যুবক কুতুবউদ্দিনকে জানায় তার দোকানের তালা ভাঙ্গা। পরে কুতুবউদ্দিন নিচে নেমে এলে কিছু বুঝে উঠার আগেই সন্ত্রাসীরা ধারালো ছুরি দিয়ে তার গলায় আঘাত করে। এ সময় আশপাশের লোকজন এসে কুতুবউদ্দিনকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এদিকে ঘটনার পর পর এলাকাবাসী শামীমকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। পরে পুলিশ তাকে গ্রেফতার ও হত্যার কাজে ব্যবহৃত ধারালো অস্ত্রটি উদ্ধার করে। শামীম দাউদকান্দি এলাকার আবুল বাশারের ছেলে। সে বর্তমানে বন্দর উপজেলার এনায়েতনগর এলাকার আনু বেগমের বাড়িতে ভাড়া থাকে। অভিযুক্ত শামীম কিছুদিন আগে নিহত কুতুবউদ্দিনের বাড়ির নির্মাণ শ্রমিক ছিল। নিহত কুতুবউদ্দিন মুদি দোকান করতেন।

নিহতের ভাই বন্দর থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আবেদ হোসেন বলেন, স্থানীয় পঞ্চায়েতের বিরোধের জের ধরে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে একটি পক্ষ তার ভাইকে খুন করিয়েছে। ’৯০ সালেও একবার তার ভাইকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছিল সন্ত্রাসীরা। রাতে খুনীরা তাকে মোবাইল ফোনে বলে তার দোকানে তালা দেয়া হয়নি, তালা খোলা রয়েছে। এ কথা শুনে তিনি তার রুম থেকে বেরিয়ে নিচে চলে এলে সন্ত্রাসীরা তাকে এলাপাতাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় তার চিৎকার শুনে এলাকাবাসী বেরিয়ে এসে সন্ত্রাসী শামীমকে ধরে ফেলে এবং মুমূর্ষু অবস্থায় তার ভাইকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, পরিকল্পিতভাবে কুতুবউদ্দিনকে হত্যা করা হয়েছে। তারা এ হত্যাকা-ের সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেন।

বন্দর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হারুনার রশিদ জানান, কুতুবউদ্দিন হত্যাকা-ের পেছনে আর্থিক লেনদেন থাকতে পারে। বিষয়টি নিশ্চিত হতে গ্রেফতারকৃত শামীমকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পুলিশ ঘটনা তদন্ত করে দেখছে। এ ব্যাপারে নিহতের ভাই আবেদ হোসেন বাদী হয়ে ৭ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় অভিযোগ করেছেন। মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ১শ’ শয্যা বিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পশ্চিমপাড়া এলাকায় রবিউল নামে এক রিক্সা চালককে গলা কেটে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে মিজমিজি পশ্চিমপাড়া এলাকার সাত্তারের রিক্সা গ্যারেজে এক যুবকের গলা ও পা কাটা অবস্থায় লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ১শ’ শয্যাবিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পুলিশ জিজ্ঞাবাসাদের জন্য গ্যাজের মালিক আঃ সাত্তার মিয়া, রিক্সাচালক লালন, রুবেল, আকরাম, মোবারক, আমিনুল ইসলাম ও জাকির হোসেনকে আটক করেছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুঃ সরাফত উল্লাহ জানান, রবিউল রাতে ওই গ্যারেজেই থাকত। কিছুদিন আগে সে ওই গ্যারেজের পাশে চা দোকান দেয়। বিদেশে যাওয়ার জন্য সে তার দোকানটি বিক্রি করে দেয়। হত্যাকা-ের ঘটনায় সাতজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: