২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

চার হাজার ৬০৬ কোটি টাকার ৮ প্রকল্প অনুমোদন


জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ৪ হাজার ৬০৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে ৮টি প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ৪টি নতুন প্রকল্প এবং ৪টি সংশোধিত প্রকল্প। প্রাক্কলিত ব্যয়ের মধ্যে সরকারী তহবিল থেকে ৩ হাজার ৮০৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে পাওয়া যাবে ৮০০ কোটি টাকা। মঙ্গলবার রাজধানীর শেরে বাংলানগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক বৈঠকে এসব প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়। খবর বাসসর।

বৈঠক শেষে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, চলতি অর্থবছরে ৩৫টি একনেক সভায় মোট ২৭৮টি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এসব প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ২ লাখ ৬৮ হাজার ১৬৯ কোটি টাকা। গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে একনেকে ২১২টি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়, যার প্রাক্কলিত ব্যয় ছিল এক লাখ ৬৩ হাজার ৯৯২ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে একনেকে অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পসমূহের প্রাক্কলিত ব্যয় বেড়েছে ৬৩ শতাংশ।

তিনি জানান, চলতি অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী (এডিপি) বাস্তবায়নের পুরো হিসাব এখনও পাওয়া যায়নি। দু’টি মন্ত্রণালয়ের হিসাব বাকি আছে। তবে এখন পর্যন্ত যে হিসাব পাওয়া গেছে, তাতে চলতি অর্থবছরে এডিপির ৯০ শতাংশ বাস্তবায়ন হয়েছে।

মঙ্গলবার একনেকে অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পসমূহ হলো ১০০টি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ স্থাপন প্রকল্প। এটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ২৮১ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল স্থাপন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৭৪ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। ২০টি শিশু দিবাযতœ কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্প’র ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৯ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। পাঁচদোনা-ডাঙ্গা-ঘোড়াশাল সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প’র ব্যয় ধরা হয়েছে ২৬৯ কোটি ৮১ লাখ টাকা। কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী ও উলিপুর উপজেলাধীন বৈরাগীরহাট ও চিলমারী বন্দর ব্রহ্মপুত্র নদের ডান তীরের ভাঙন থেকে রক্ষা প্রকল্প’র ব্যয় ধরা হয়েছে ২৫৬ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

এছাড়া, উন্নত জাতের গাভী পালনের মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১৫১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। হাতে-কলমে কারিগরি প্রশিক্ষণে মহিলাদের গুরুত্ব দিয়ে বিটাকের কার্যক্রম সম্প্রসারণমূলক আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দারিদ্র্য বিমোচন প্রকল্প’র ব্যয় ধরা হয়েছে ৭১ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। ‘কলেজ এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৪০ কোটি টাকা। একনেক সভায় মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিববৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ শিক্ষা উন্নয়নে ১ হাজার ৪০ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন ॥ স্টাফ রিপোর্টার গাজীপুর থেকে জানান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজসমূহের শিক্ষার উন্নয়নে মঙ্গলবার একনেকে’র সভায় এক হাজার চল্লিশ কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে। সভায় অনুমোদিত জুলাই ২০১৬ থেকে জুন ২০২১ পর্যন্ত কার্যকালের (৫ বছর মেয়াদী) এই প্রকল্পে বাংলাদেশ সরকার ও বিশ্বব্যাংকের যৌথ অর্থায়ন করবে। এ প্রকল্পের আওতায় কলেজ শিক্ষার মানোন্নয়নে ১৫ বছর অগ্রবর্তী কৌশলপত্র তৈরি, কলেজ ব্যবস্থাপনার দক্ষতা বৃদ্ধি, সরকারী-বেসরকারী-মহিলা-শহর-মফস্বল নির্বিশেষে নির্বাচিত কলেজসমূহ অবকাঠামোগত উন্নয়ন, ভার্চুয়াল ক্লাস রুম তৈরি, পাঠ্যক্রমসহ শিক্ষা সামগ্রীর আধুনিকীকরণ, শ্রেণীকক্ষভিত্তিক পাঠদানের পাশাপাশি দূরশিক্ষণের ব্যবস্থা, ৭শ’ কলেজ অধ্যক্ষ ও ১৬ হাজার কলেজ শিক্ষক উচ্চতর পর্যায়ে প্রশিক্ষণের সুযোগ লাভ করবেন। এ ব্যাপারে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, মাউশি, নায়েম, এনটিআরসিএ ও আন্তর্জাতিক একাডেমিক সহযোগী প্রতিষ্ঠান নিয়ে একটি কন্সোর্টিয়াম গঠিত হবে। এ প্রকল্প বাংলাদেশে কলেজ পর্যায়ের উচ্চ শিক্ষার মানোন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। প্রকল্পটিকে একনেক অনুমোদন দেয়ায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ একনেকের চেয়ারপার্সন ও বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।