২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৪ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ঈদে আনফিট লঞ্চ চলতে দেয়া হবে না: নৌমন্ত্রী


ঈদে আনফিট লঞ্চ চলতে দেয়া হবে না: নৌমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঈদ উপলক্ষে ফিটনেস ছাড়া কোনো লঞ্চ চলতে দেয়া হবে না বলে আবারো সাফ জানিয়ে দিলেন নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। মঙ্গলবার সচিবালয়ে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ সংস্থাগুলোর সঙ্গে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তিনি এ তথ্য জানান। ঈদের আগে রং করে ফিটনেসবিহীন লঞ্চ নামানো হচ্ছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, যেগুলো (লঞ্চ) নামবে আপনারা নিশ্চিত থাকতে পারেন, আমরা ফিটনেস ছাড়া লঞ্চ চলতে দেব না। এটা আমাদের পরিষ্কার সিদ্ধান্ত। নৌপরিবহনমন্ত্রী বলেন, পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে আপনারা এ প্রশ্ন করেছেন এ প্রশ্নটি অমূলক নয়। বরং য্যেক্তিক। পূর্ব অভিজ্ঞতা আমাদেরও আছে। আগে নৌপরিবহন সেক্টওে কোনো শৃঙ্খলা ছিল না। এর আগে কেন এত নৌ-দুর্ঘটনা হয়েছে? কারণ হলো, যেসব জাহাজ বা নৌযান নির্মাণ করা হয়েছে, সেগুলো তাদের মতো করে নির্মাণ করেছে। তারপর ডিজি শিপিংয়ের কাছে আসছে যে এটা অনুমোদন দেন। ডিজি শিপিং অনুমোদন দিয়েছেন।

‘এখন আমরা নিয়ম করে দিয়েছি আগে ডিজাইন পাস করতে হবে। তাই পুরো প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন এসছে। নিজেদের ইচ্ছেমতো কোন কিছু করার সুযোগ থাকছে না। অনেক জাহাজ আটকে আছে, তারা নির্মাণকাজে শেষ করেছে কিন্তু আমরা তাদের এখনো পারমিশন (অনুমোদন) দেইনি’ বলেন শাজাহান খান।

ঈদের আগে লঞ্চের রঙ করানোর বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আপনি শরীরে যদি সাবান-টাবান (না দেন) বা ভালো করে গোসল না করেন তবে ময়লা জমবে। এ ছাড়া ঈদ বা কোনো না কোনো সময় তো বাড়ি রং করান। একটু ভাঙচুর হলে মেরামত করান। রং ও ইঞ্জিনের (লঞ্চের) কাজ করানোও এটা কোনো অন্যায় নয়। এটা সঠিক। এটা না করালে আমরা ফিটনেস সনদ দেব না।

এবার ঈদে ফিটনেসবিহীন লঞ্চ যাতে না চলতে পারে এ ব্যাপারে সরকার খুবই সতর্ক জানিয়ে শাজাহান খান বলেন, ওভারলোডিং (লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহন) ঠেকাতে আমাদের ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে, পুলিশ, মন্ত্রণালয়ের অফিসাররা থাকবেন। তিনি বলেন, অনেকে আমরা আরামে ঈদ করি, কিন্তু আমাদের অফিসারদের অনেকের ঈদ করা হয় না। তারা থেকেই কিন্তু এগুলো নিয়ন্ত্রণ করবেন। তারা ব্যস্থ থাকবেন যাতে কোনো দুর্ঘটনা না ঘটতে পারে।

ঈদে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) ও বেসরকারি মালিকানাধীন লঞ্চের বিশেষ সার্ভিস ১ জুলাই থেকে শুরু হবে বলেও জানান নৌপরিবহনমন্ত্রী। পওে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন সংস্থার সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিতে সংস্থা প্রধান ও মন্ত্রণালয়ের পক্ষে সচিব অশোকমাধব রায় স্বাক্ষর করেন।

এ চুক্তির মাধ্যমে আগামী এক বছরের জন্য সংস্থাগুলোকে লক্ষ্য নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। বছর শেষে লক্ষ্য অনুযায়ী সংস্থার বাস্তব কাজের মূল্যায়ন করা হবে। অনুষ্ঠানে মন্ত্রণালয় সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্তাব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: