২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৮ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

কেবি কলেজের অধ্যক্ষকে বরখাস্ত করায় নির্বিঘেœ চলছে একাডেমিক কার্যক্রম


বাকৃবি সংবাদদাতা ॥ আর্থিক দূর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, শিক্ষকদের সাথে অসৎ আচরণ, অযথা হয়রানি ও মানসিক নির্যাতন কারণ সহ মোট ২১টি অভিযোগে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে অবস্থিত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের (কেবি) অধ্যক্ষকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে। উদ্বূদ্ধ পরিস্থিতিতে কলেজের শিক্ষাকার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার সাড়ে ১২টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানিয়েছে কলেজ পরিচালনা পর্ষদ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. সাখাওয়াত হোসেন। বক্তব্যে বলা হয়, দশ বছর আগে ড. মো. আতাউর রহমান তৎকালীন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের মদদে অবৈধভাবে কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করে। যোগদানের পর থেকে অর্থেও বিনিময়ে তুলনামূলক খারাপ ফলাফলধারী শিক্ষার্থী ভর্তি করে কলেজের শিক্ষা মান হ্রাস পেতে থাকে। এছাড়াও বিভিন্ন সময় শিক্ষকদের অপমান, অপদস্ত, অসহযোগীতা করা, কলেজ পরিচালনা কমিটিকে কটাক্ষ করাসহ অন্য শিক্ষকদের বঞ্চিত করে আর্থিক সুবিধা নেয় বলে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়। আরও বলা হয় কলেজ পরিচলনা পর্ষদের পূর্বনির্ধারিত সভা বানচাল করতে এবং কলেজের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করতে ১০-১২ জন বর্হিরাগতদের কলেজে নিয়ে শিক্ষকদের হুমকী দেয় বলেও জানানো হয়। প্রতিবাদে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা কলেজে বিক্ষোভ করে এবং অধ্যক্ষে অপসারণ দাবী করেন।

এসময় কলেজ পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ছৈয়দ সাখাওয়াত হোসেনসহ কলেজের ২৪ জন শিক্ষক ও প্রদর্শক উপস্থিত ছিলেন।

এবিষয়ে সাময়িক বরখাস্ত অধ্যক্ষ ড. মো. আতাউর রহমান বলেন, আমার বিরোদ্ধে আনিত কোন অভিযোগই সত্য নয়। আমাকে কলেজ থেকে অপসারণ করতে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। আমি নিরপেক্ষ কমিটি দিয়ে সুষ্ঠু তদন্ত চাই।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: