১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

ক্যান্সারের ‘স্বর্গরাজ্য’ হয়ে উঠেছে ভারত


ক্যান্সারের ‘স্বর্গরাজ্য’ হয়ে উঠেছে ভারত

অনলাইন ডেস্ক ॥ মহিলাদের জন্য রীতিমতো আতঙ্কের খবর।

ক্যান্সারের ‘স্বর্গরাজ্য’ হয়ে উঠেছে ভারত!

আর এ দেশে ক্যান্সারের বড় ‘শিকার’ হচ্ছেন মহিলারাই!

পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, এ দেশে আর ৯ বছর পর, ২০২৫ সালের মধ্যে কম করে ৫ লক্ষ মহিলা মারা যেতে পারেন ক্যান্সারে। আক্রান্তের সংখ্যাটা হতে পারে তার অন্তত ৪/৫ গুণ।

এই ভয়াবহ ছবিটা উঠে এসেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অফ হেল্থ অ্যান্ড হিউম্যান সার্ভিসেস (ইউএসডিএইচএইচএস)-এর অধীনস্থ ন্যাশনাল ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের (এনসিআই) হালের একটি সমীক্ষায়।

ওই সমীক্ষা কী বলছে জানেন?

বলছে, বিশ্বে এই মূহুর্তে যদি ১৩ জন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন, তা হলে তাঁদের মধ্যে অন্তত এক জন ভারতীয়। আর তিনি এক জন মহিলা।

ভারতীয় মহিলারা কোন কোন ধরনের ক্যান্সারে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন?

স্তন, মুখ আর নিতম্বের (সারভাইক্যাল) ক্যান্সারে।

ক্যান্সার কতটা দ্রুত হারে বাড়ছে এ দেশের মহিলাদের মধ্যে?

দিল্লির ম্যাক্স সুপার স্পেশ্যালিটি হসপিটালের অঙ্কোলজি সার্ভিসের অধিকর্তা ডা. রঙ্গা রাও রঙ্গরাজু বলছেন, ‘‘ভারতে প্রতি বছর সাড়ে ১২ লক্ষ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন ক্যান্সারে। তার মধ্যে ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন ৭ লক্ষেরও বেশি মহিলা। তাঁদের মধ্যে ফি-বছর ভারতে অন্তত সাড়ে ৩ লক্ষ মহিলা মারা যাচ্ছেন ক্যান্সারে। যে সংখ্যাটা আর ৯ বছর পর গিয়ে পৌঁছবে সাড়ে ৪ থেকে ৫ লক্ষে।

কিন্তু কেন এ দেশে মহিলাদের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাটা এতটা বেড়ে গিয়েছে হঠাৎ করে?

ওই সমীক্ষা থেকে তার বেশ কয়েকটি কারণ উঠে এসেছে। যেমন- ধূমপান, ব্যায়াম না করা, অত্যন্ত মদ্যপান করা, অনিদ্রা, কাজের চাপ, ভুলভাল খাওয়াদাওয়া, অসময়ে খাওয়াদাওয়ার বদভ্যাস।

আরও একটি ভয়াবহ ছবি উঠে এসেছে ওই সমীক্ষা থেকে। সেটি হল- ভারতে গ্রামের মহিলাদের চেয়ে ক্যান্সারে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন শহর ও শহর-লাগোয়া মফস্বলগুলোর মহিলারা। তাঁদের জীবনযাত্রার ধরনের জন্য। শহুরে মহিলারা আগে কর্মক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত হয়ে তার পর বিয়ে করতে চান। ফলে, তাঁরা বিয়ে করছেন অনেক বেশি বয়সে। আবার বেশি বয়সে বিয়ে করার পরেও তাঁরা চট করে মা হতে চাইছেন না। মাতৃত্ব ঠেকিয়ে রাখার জন্য তাঁরা নানা রকমের ‘হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি’-তে বিশ্বাসী হয়ে উঠছেন। আর এই প্রবণতাগুলোই এ দেশে শহুরে মহিলাদের মধ্যে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ও সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলছে।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: