২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পুনর্নির্ধারিত বাস ভাড়া কার্যকর হবে ২০ মে থেকে ॥ ও. কাদের


স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাসমালিক সমিতির অনুরোধে ডিজেলচালিত বাসের পুনর্নির্ধারিত ভাড়া কার্যকর করার জন্য পাঁচ দিন সময় বাড়ানো হয়েছে। আগামী ২০ মে থেকে তা কঠোরভাবে কার্যকর করার কথা জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সোমবার গাবতলী টার্মিনাল থেকে বিভিন্ন রুটের বাস চলাচল পরিদর্শনের সময় সাংবাদিকদের একথা জানান। তিনি বলেন, তেলের দাম কমানোর পর নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গণপরিবহনে ভাড়া না কমানো হলে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি বাসমালিকদের হুঁশিয়ার করে দেন।

মন্ত্রী বলেন, প্রতি কিলোমিটারে এখন থেকে ৩ পয়সা বাসভাড়া কমানো হয়েছে। গত ১৫ মে থেকে এটা কার্যকর করার কথা ছিল। কিন্তু বিভিন্ন পরিবহন মালিকদের অনুরোধে আগামী ২০ মে থেকে কার্যকর করবে তারা। পাশাপাশি মনিটরিং টিম সড়ক পরিবহনের ভাড়া পর্যবেক্ষণ করবে। মন্ত্রী বলেন, বর্ষা মৌসুম ও রমজানের আগে মহাসড়কগুলোতে ব্যস্ততা বাড়বে সে লক্ষ্যে সকল মহাসড়ক সচল রাখতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ২৫ এপ্রিল সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম কমানো হয়। এতে অকটেন ও পেট্রোলের দাম লিটার প্রতি ১০ টাকা এবং ডিজেলের দাম তিন টাকা কমিয়েছে সরকার। জ্বালানি তেলের এই মূল্য কমানোর ফলে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) সুপারিশের ভিত্তিতে গত ৩ মে ডিজেলচালিত দূরপাল্লার পরিবহনের ভাড়া ৩ পয়সা কমিয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়। এতে বলা হয়, ঢাকা ও আশপাশের কয়েকটি জেলা এবং চট্টগ্রাম মহানগরী ব্যতীত আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার রুটে পরিচালিত ডিজেলচালিত বাস ও মিনিবাসের ভাড়া ১ টাকা ৪৫ পয়সা থেকে কমিয়ে ১ টাকা ৪২ পয়সা করা হলো। যা ১৫ মে থেকে কার্যকর করার নির্দেশ দেয়া ছিল।

ভাড়া কার্যকর করতে সরকার ব্যর্থ ॥ ঢাকঢোল পিটিয়ে সরকার জ্বালানি তেলের মূল্য কমালেও এর সুফল থেকে যাত্রী সাধারণ বঞ্চিত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এক বিবৃতিতে সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বলছেন, সরকার ঘোষিত আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লা রুটে যাত্রী প্রতি কিলোমিটারে তিন পয়সা কমানো ভাড়া কার্যকরে প্রথম দিনে সংগঠনে ২টি পর্যবেক্ষক দল ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের ৫৫টি রুট পর্যবেক্ষণ করে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক প্রতিবেদনে এ অভিযোগ করা হয়।

সংগঠনের মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল চট্টগ্রাম-ঢাকা, চট্টগ্রাম-বারয়ারহাট, চট্টগ্রাম-ফেনী, চট্টগ্রাম-কানকিরহাট, চট্টগ্রাম-বসুরহাট, চট্টগ্রাম-রায়পুর-লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রাম-সোনাপুর, চট্টগ্রাম-ভোলা-লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রাম-সেনবাগ, চট্টগ্রাম-নোয়াখালী, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার, চট্টগ্রাম-আনোয়ারা, চট্টগ্রাম-বাঁশখালী, চট্টগ্রাম-পটিয়া, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই, চট্টগ্রাম-বান্দরবান, চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি, চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি, চট্টগ্রাম-ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম-রাউজান, চট্টগ্রাম-সিলেট, চট্টগ্রাম-যশোর, চট্টগ্রাম-জামালপুর, চট্টগ্রাম-রংপুর, চট্টগ্রাম-দিনাজপুর, চট্টগ্রাম-রাজশাহী, চট্টগ্রাম-চাঁদপুর রুট পর্যবেক্ষণ করা হয়। পর্যবেক্ষণকালে দেখা যায় এসব রুটে পূর্বের ভাড়া বলবৎ রয়েছে। কমানো ভাড়া কার্যকরে প্রথম দিনে এসব রুটের যাত্রীদের থেকে কমানো মূল্যে কোন টিকেটি বিক্রি হয়নি।

এদিকে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মহিউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল ঢাকা-সিলেট, ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-রংপুর, ঢাকা-কক্সবাজার, ঢাকা-রাজশাহী, ঢাকা-ঠাকুরগাঁও, ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ, ঢাকা-মানিকগঞ্জ, ঢাকা-ধামরাই, ঢাকা-নরসিংদী, ঢাকা-গাজীপুর, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা-কুমিল্লা, ঢাকা-হোমনা, ঢাকা-জয়দেবপুর, ঢাকা-চাঁদপুর, ঢাকা-বসুরহাট, ঢাকা-ফেনী, ঢাকা-নোয়াখালী, ঢাকা-রামগতি, ঢাকা-রাঙ্গামাটি, ঢাকা-পঞ্চগড়, ঢাকা-টেকনাফ, ঢাকা-বরিশাল, ঢাকা-খুলনা, ঢাকা-রাজবাড়ী, ঢাকা-গোপালগঞ্জ, ঢাকা-দিনাজপুর রুট পর্যবেক্ষণ করা হয়। এসব রুটে যাত্রীসাধারণের নিকট থেকে পূর্বের ভাড়া আদায় করা হচ্ছিল।

এছাড়াও দেশের অভ্যন্তরে আন্তঃজেলার রুট যেমন- জেলা সদর থেকে মফস্বলের উপজেলাসমূহে এবং এক জেলা থেকে অপর জেলায় যাতায়াতকারী যানবাহনসমূহে পূর্বের ন্যায় ভাড়া আদায় করতে দেখা গেছে। সারাদেশে কমানো ভাড়া কার্যকরে বিআরটিএর কোন অভিযান লক্ষ্য করা যায়নি।

এদিকে চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, রংপুর বিভাগে বিআরটিএ কার্যালয়সমূহে যোগাযোগ করে এসব এলাকা আরটিসি অনুমোদিত রুটসমূহে কমানো ভাড়ার তালিকা পাওয়া যায়নি। জ্বালানি তেলের কমানো মূল্যের সাথে সমন্বয় করে সরকার গণপরিবহনের ভাড়া কমালেও তা কার্যকর করতে ব্যর্থ হওয়ায় সরকারের সংশ্লিষ্টদের প্রতি তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন দেশের যাত্রীসাধারণ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: