মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১১ আশ্বিন ১৪২৪, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

হনুমানের উৎপাত রুখতে

প্রকাশিত : ১৭ মে ২০১৬

ইন্টারনেট থেকে শেখা পদ্ধতি ব্যবহার করে নিজের ফসল বাঁচালেন হিমাচল প্রদেশের এক কৃষক। নেট দুনিয়ার সামান্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাজিমাত করলেন গজান্না ভাজে নামের এই কৃষক।

খবরে বলা হয়েছে, হিমাচল প্রদেশের দক্ষিণ কন্নড় জেলার বেলথাংড়ি তালুক। ফসল পাকার সময় এখানে হনুমানের উৎপাতে অতিষ্ঠ কৃষকরা। দল বেঁধে হনুমানরা ক্ষেতে ঢুকে উৎপাত চালায়। প্রতিদলে ২০-২৫ হনুমান থাকে। হনুমান তাড়ানোর অনেক চেষ্টা করে হার মেনেছিলেন ওখানকার কৃষকরা। হনুমান তাড়াতে গিয়ে গুরুতর আহতও হন অনেকে। কিন্তু ইন্টারনেট থেকে শেখা গজান্না ভাজের পদ্ধতিতে এবার কাবু হনুমানের পাল।

৫১ বছরের গজান্না চাষবাস করলেও ইন্টারনেটে যথেষ্ট সরব। অবসর সময়ে নেট ঘাটাঘাঁটি করা তার পছন্দের বিষয়। স্থানীয় স্কুলে আগে বিজ্ঞানের শিক্ষক ছিলেন তিনি। তাই ইন্টারনেটে সার্চ করে ছোটখাটো জিনিস তৈরি করা তার শখ। এই শখ তাকে চলতি বছর বড়সড় আর্থিক ক্ষতির মুখ থেকে বাঁচিয়ে দিল।

গজান্না বলেন, ইন্টারনেটে তিনি একবার পড়ে ছিলেন হনুমানরা উচ্চ আওয়াজে ভয় পায়। তাই হনুমান তাড়াতে এই উচ্চ আয়াজকেই হাতিয়ার করেন তিনি। নেট থেকে এ রকম এক শ’ সাউন্ড ক্লিপ ডাউনলোড করেন। সেগুলোকেই এডিট করে পেন ড্রাইভে ভরে নেন। তারপর মোবাইল ব্যাটারিতে চলে এমন একটি ছোট সাউন্ড সিস্টেম কেনেন তিনি। তার সঙ্গে পেনড্রাইভ জুড়ে ক্ষেতের পাশে একটি গাছে ঝুলিয়ে দেন। হনুমান এলেই সাউন্ড সিস্টেম চালু করে দেন। এই আওয়াজের ভয়ে আর তার ক্ষেতের ধারে কাছে আসেনি হনুমানের পাল। কোন একটি নির্দিষ্ট আওয়াজে যাতে হনুমানরা অভ্যস্ত হয়ে না যায়, তাই সংগ্রহ করা এক শ’ সাউন্ড ক্লিপ ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে বাজায় গজান্না।

তার এই অভিনব পদ্ধতি বিষয়ে সবাইকে জানাতে এ মাসে ২৪-২৬ তারিখের মধ্যে প্রাইমারি কো-অপারেটিভ ব্যাংক আয়োজিত প্রদর্শনীতে নামমাত্র খরচে এই ইকোফ্রেন্ডলি এ্যাপ তুলে ধরবেন এই কৃষক। ওয়েবসাইট অবলম্বনে।

প্রকাশিত : ১৭ মে ২০১৬

১৭/০৫/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: