২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

বাজেটে কৃষি খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি


অর্থনৈতিক রিপোর্টার॥ দেশের অর্থনীতিতে কৃষি খাতের অবদান ২০ দশমিক আট তিন শতাংশ। আর মোট কর্মসংস্থানের প্রায় ৪৮ শতাংশই এ খাতে নিয়োজিত। তবে আগামীতে নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন ও জলবায়ু পরিবর্তন সহনীয় নতুন বীজ উদ্ভাবনে গবেষণা বাড়ানোর জন্য ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরের বাজেটে কৃষি খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি জানিয়েছের গবেষকরা।

দেশের চাহিদা পূরণে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে কৃষি খাত। এ খাতের সমৃদ্ধ উন্নয়ন ধরে রাখতে হলে পরিবর্তনশীল আবহাওয়ায় সহনীয় নতুন নতুন বীজ উদ্ভাবনসহ এক্ষেত্রে প্রয়োজন দক্ষ জনবল। কিন্তু এ খাতের বরাদ্দ বাড়ানোর পরিবর্তে বাজেটে কৃষি খাতে তুলনামূলক বরাদ্দ কমছে।

এই যখন গত ৫ বছরের চিত্র তখন আসন্ন বাজেটে প্রাথমিক পর্যায়ে কৃষি খাতে ১৪ হাজার চারশ' কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাবনা দেয়া হলেও আপাতত ধরা হয়েছ ১২ হাজার ৯০৩ কোটি টাকা। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বাজার ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নে বরাদ্দ বাড়ানোর ওপর জোর দিতে হবে।

অর্থনীতিবিদ এম এম আকাশ বলেন, ‘বাজার ব্যবস্থা ঠিক করে মধ্যস্বত্ত্ব ভোগী দূর করে ই-মার্কেটিং ব্যবস্থা পরিচিত করে ভোক্তা সমবায়, কৃষক সমবায়ের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন করে কৃষকের উপকার করতে পারি। কোথায় কোথায় ভর্তুকি কি পরিমাণে যাচ্ছে পুরো তালিকা সামনে না দেখলে সেটা সঠিক হচ্ছে কি হচ্ছে না সেটা নির্ধারণ করা যাবে না। ভর্তুকির চেয়েও এখন গুরুত্বপূর্ণ হলো প্রযুক্তি। যদি আমরা উন্নতি প্রযুক্তি আবিষ্কার করতে না পারি তাহলে ফলন বাড়াতে পারবো না। ক্রমহ্রাসমান জমির চ্যালেঞ্জ নিয়ে খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবো না।’

কৃষির উন্নয়নে দক্ষ জনবল যেমন দরকার, তেমনি উত্তরাঞ্চলের খরা ও দক্ষিণাঞ্চলের লবণাক্ততা কমিয়ে এনে অঞ্চল ভেদে ফসল ফলানোর পরিকল্পনা নেয়ার পরামর্শ গবেষকদের। এদিকে বরাদ্দ কমে আসলেও গত অর্থবছরের তুলনায় দুই হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি বাড়ানো হচ্ছে আসন্ন বাজেটে। তবে এ অর্থ সঠিকভাবে বণ্টনের পরামর্শ সংশ্লিষ্টদের।

কৃষিতে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপালসহ বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর মতো কৃষককে উৎপাদনে আগ্রহী করা এবং ভোক্তা পর্যায়ে দাম সহনীয় রাখতে বরাদ্দ এবং ভর্তুকি বাড়ানোর পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের।

##

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: