মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৯ আশ্বিন ১৪২৪, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

কেবল টিভির দিন ফুরাল

প্রকাশিত : ১৪ মে ২০১৬
  • ল্যারি ডাউনস

এ্যাপল টিভির মতো আরও অনেক স্ট্রিমিং টিভি অপশন আসছে। তার ফলে আপনার কেবল সার্ভিস হয়ত বাতিল করার সময় এসেছে। তবে কোন স্ট্রিমিং সার্ভিসে কোন্ কোন্ সার্ভিস পাওয়া যাবে এবং কেউ অর্থ খরচ করতে না চাইলে সেটা কিভাবে জানবে তাও এক প্রশ্ন।

সম্প্রতি কমকাস্ট এক নতুন কর্মসূচী ঘোষণা করেছে যার ফলে স্মার্ট টিভির প্রস্তুতকারকরা এবং ইন্টারনেটভিত্তিক অন্যান্য ভিডিও সার্ভিসগুলোর আপনার কেবল প্রোগ্রামিং দেখার পুরো সুযোগ থাকবে। তার জন্য সেট-টপ বক্সের প্রয়োজন হবে না। সেট-টপ বক্সের পরিবর্তে কনটেন্ট সরাসরি থার্ড পার্টি ডিভাইসে একটা এ্যাপ হিসেবে চলে যাবেÑ সমস্ত চ্যানেল ও প্রোগ্রাম গাইড শুদ্ধ।

এক্সকিমিটির টিভি পার্টনার প্রোগ্রাম গোড়াতে স্যামসাংয়ের নতুন স্মার্ট টিভিতে এবং রোকু স্ট্রিমিং বক্সে পরিবেশন করা হবে। তবে এইচটিএমএল ৫সহ উন্মুক্ত ইন্টারনেটভিত্তিক স্ট্যান্ডার্ডের ওপর নির্মিত এই প্রোগ্রাম এখন অন্যান্য ডিভাইস প্রস্তুতকারকরা ইচ্ছে করলেই গ্রহণ করতে পারেন। ভিডিও সার্ভিসগুলো হার্ডওয়্যার থেকে সফটওয়্যারে চলে যাওয়ায় গতানুগতিক সেট-টপ বক্সগুলোর ভবিষ্যত উত্তরোত্তর অন্ধকার হয়ে উঠছে। এই ঘোষণাটির ফলে কমকাস্ট গ্রাহকদের কাছে বাড়তি একটা ডিভাইসের প্রয়োজন শীঘ্রই দূরীভূত হতে পারে। এতে তাদের শত শত ডলারের ফির অর্থটা বেঁচে যেতে পারে।

এই শিল্পের অনেকে দীর্ঘদিন ধরে ভবিষ্যদ্বাণী করে আসছিল যে কেবল বক্সের শেষ পর্যন্ত অপমৃত্যু ঘটবে। সাইবার ও স্যাটেলাইটভিত্তিক কোম্পানিসহ পে টিভি প্রোভাইডাররা ভিডিও কনটেন্ট ও সার্ভিসের জন্য দ্রুত ইন্টারনেট স্ট্যান্ডার্ডে চলে যাওয়া এবং ক্রমবর্ধমান সংখ্যক ইন্টারনেটভিত্তিক বিকল্পের প্রতি গ্রাহকদের উৎসাহব্যঞ্জক সাড়া দেখা দেয়ার কারণেই অংশত তারা এই ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন। ‘ইন্টারনেটভিত্তিক বিকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে রোকু, এ্যামাজন, এ্যাপল, গুগল, নেটফ্লিক্স, হুলু, ইউটিউব, সিøং টিভি, সনি, এইচবিও এবং আরও অনেক। ভোক্তা গ্রাহকরা, বিশেষজ্ঞ তরুণরা তাদের ভিডিও অভিজ্ঞতা বর্ণনায়, গতানুগতিক কনটেন্ট ও নিজেদের তৈরি কনটেন্টের মিশ্রণ ঘটাতে এবং সেটা শুধু টেলিভিশনে নয় উপরন্তু ট্যাবলেট, স্মার্টফোন ও অন্যান্য মোবাইল গ্যাজেটসহ সংযোগপ্রাপ্ত প্রতিটি ডিভাইসেও সেগুলো উপভোগ করতে আগ্রহী থাকে। এ বছর লাসভেগাসে অনুষ্ঠিত কনজিউমার ইলেকট্রনিক্স শোতে পরিষ্কার হয়ে গেছে যে তালিকাটি শীঘ্রই প্রসারিত হয়ে তার মধ্যে গাড়ি, রেফ্রিজারেটর ও হোম কনসোলের মতো অন্যান্য অপ্রচলিত দেখার প্লাটফর্মও অন্তর্ভুক্ত হবে। কমকাস্টের ঘোষণা থেকে বুঝা যায় সেই ভবিষ্যতটা হয়ত ইতোমধ্যে এসে গেছে। ভিডিওর দ্রুত বিবর্তনের ফলে পে টিভি প্রোভাইডাররা এখন এক বছরের মধ্যে নতুন ‘উন্মুক্ত’ সেট-টপ বক্স উদ্ভাবন করতে এবং দু‘বছরের মধ্যে তাদের লাখ লাখ গ্রাহককে বদলি ডিভাইস যোগাতে বাধ্য হবে।

এদিকে আমেরিকার ফেডারেল কমিউনিকেশনস কমিশন দাবি করেছে যে, তারা যে নতুন কারিগরি মান নির্ধারণ করেছে তাতে আরও বেশি সংখ্যক প্রতিযোগী কেবল বক্স তৈরি করতে উৎসাহিত হবে। এর ফলে গ্রাহকদের দেয়া ফির পরিমাণও কমে যেতে পারে। যেমন টিভোর নতুন বোল্ট ভিভিআরের প্রারম্ভিক মূল্য ৩শ’ ডলার এবং সেই সঙ্গে মাসিক ফি ১৪.৯৯ ডলার। কিন্তু সমালোচকরা ভাবছেন অন্য কথা। তারা অবাক হচ্ছেন এই ভেবে যে, যখন হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যার ছাড়াই চলতে সক্ষম যে কোন ধরনের স্বয়ংসম্পূর্ণ যন্ত্র দ্রুত সেকেলে ও বাতিলযোগ্য হয়ে পড়ছে তখন কেবল বক্সকে উৎসাহিত করতে সংস্থা কেন এত বদ্ধপরিকর। এফসিসির সর্বশেষ ঘোষণাটির মধ্য দিয়ে সংস্থাটি আবার ভুল সময়ে ভুল জায়গায় এসে দাঁড়াল। সমালোচকরা বলেছেন যে এফসিসির নতুন বিধির ফলে স্বয়ংসম্পূর্ণ কেবল বক্সগুলোর জীবনরক্ষার ব্যবস্থা নিজেদের অজান্তে আরও বহু বছর বাড়িয়ে দেয়া হলো। কিন্তু গ্রাহকদের কোন লাভ হলো না। অথচ এগুলোর স্বাভাবিক মৃত্যু ঘটতে দেয়া উচিত ছিল। এটাও পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, এফসিসির সময়সূচীটাও অবাস্তব। এফসিসির পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হতে কমপক্ষে ৫ বছর লেগে যাবে। এ সময়ের মধ্যে আজকের ভিডিও ইকোসিস্টেমকে চেনাই যাবে না। এফসিসি ভিডিও স্ট্যান্ডার্ড চাপিয়ে দেয়ার জন্য আগেও কয়েক দফা চেষ্টা চালিয়েছিল। সব চেষ্টাই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। সমস্যা সমাধানে এফসিসির আকস্মিক তাগিদ নিয়ে কি করা যায় সে ব্যাপারে কংগ্রেসের রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট সদস্যরা ঠিক ঠাওর করে উঠতে পারছেন না।

এদিকে ইন্টারনেটভিত্তিক ভিডিও বিপ্লব সরকারের হস্তক্ষেপের কোন প্রয়োজন ছাড়াই এগিয়ে চলছে। সিলিকন ভ্যালিতে হাতেগোনা কয়েকটি কোম্পানিই শুধু ধীরগতির এক ফেডারেল সংস্থার দ্বারা বলবত সরকারী ভিডিও স্ট্যান্ডার্ডের প্রয়োজনীয়তা বা বিচক্ষণতা দেখতে পাচ্ছে। বাকিরা পারছে না। রোকুর কথাই ধরা যাক। সরকারের এই পরিকল্পনার প্রধান সুবিধাভোগী হিসেবে এই কোম্পানিকেই দেখা হয়। তারপরও রোকু এফসিসির ‘বক্স’ উন্মোচনের পরিকল্পনার বিরোধী। বলাবহুল্য, রোকুর ডিভাইসগুলোর মাধ্যমে ইন্টারনেট সংযোগ দিয়ে ৯০ লাখ গ্রাহকের কাছে বিলিয়নকে বিলিয়ন ঘণ্টার কনটেন্ট প্রবাহিত হয়। রোকু কেন, সরকারের প্রস্তাবটির বিরোধী তার ব্যাখ্যা করে কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা এন্থনী উড ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল লিখেছেন যে প্রস্তাবটির উদ্দেশ্য আসলে গ্রাহকদের সাহায্য করা যায়। তবে এর কাজটা ট্রয়ের কোড়ার মতো। গুগল ও অন্যান্য কোম্পানি খাতে স্বত্বের জন্য আলাপ-আলোচনা ছাড়াই বড় বড় স্টুডিওর কাছ থেকে লাইসেন্সপ্রাপ্ত কনটেন্ট বিনামূল্যে পেতে পারে তার জন্য তাদের আহ্বানেই সরকার এই পদক্ষেপ নিয়েছে।

ওয়াশিংটন পোস্ট

প্রকাশিত : ১৪ মে ২০১৬

১৪/০৫/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: