২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

কুমিল্লায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে ব্যবসায়ী ও ওলামা দলনেতা নিহত


নিজস্ব সংবাদদাতা, কুমিল্লা, ১৩ মে ॥ কুমিল্লায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি আপত্তিকর ছবি আপলোড করার ঘটনায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে আদর্শ সদর উপজেলা জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক ও ব্যবসায়ী একেএম রকিবুল ইসলাম মুকুল নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় গুলিতে স্থানীয় যুবদল নেতা সাইফুল

ইসলাম তার ভাতিজা রিফাতসহ আরও তিনজন আহত হয়েছে। শুক্রবার ভোরে আদর্শ সদর উপজেলার (দক্ষিণ) দুর্গাপুর ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত রকিবুল ইসলাম মুকুল ওই এলাকার এ কে এম ইউনুস আলীর ছেলে। গুলিবিদ্ধ আহতদের মধ্যে রিফাত নামের এক যুবককে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করেছে।

পুলিশ, নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকালে নোয়াপাড়া গ্রামের আরিফের নেতৃত্বে সেলিম মেম্বার ও তার ছেলে রাসেলসহ ৭/৮ জন সন্ত্রাসী একই গ্রামের আবদুল হাকিম ঠিকাদারের পুত্র সাইফুল ইসলামের বাড়িতে প্রথমে গুলি এবং পরে ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে সাইফুলকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় তাকে বাঁচাতে আসায় ঘরের ভেতর তার দোকানের কর্মচারী রিপনকে কুপিয়ে আহত করাসহ বাড়ির উঠানে সাইফুলের ভাতিজা রিফাতের বুকে গুলি চালানো হয়। পরে সশস্ত্র এ সন্ত্রাসী দলটি সাইফুলের বাড়ির অদূরে তারই ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও স্থানীয় প্রিয়া ডেকোরেটরের স্বত্বাধিকারী এবং আদর্শ সদর উপজেলার জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক রকিবুল ইসলাম মুকুলকে লক্ষ্য করে গুলি চালালে মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে সে ঘটনাস্থলে মারা যায়। গুলিবিদ্ধ সাইফুল ইসলাম আদর্শ সদর উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রিফাতকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং সাইফুল ও রিপনকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত মুকুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার আঁখি জানান, স্থানীয় ইউপি সদস্য সেলিমের ছেলে রাসেল ও সাবেক ইউপি সদস্য আঃ গফুরের ছেলে সন্ত্রাসী আরিফের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী তার স্বামীকে গুলি করে হত্যা করেছে। তবে কেন তার স্বামীকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে তা তিনি জানাতে পারেননি। গুলিবিদ্ধ সাইফুলের স্ত্রী নাজমুন্নাহার সাংবাদিকদের জানান, ‘ভোরে পরিবারের সবাই যখনই ঘুমে তখন বাইরে গুলির শব্দ শুনে সবাই ঘুম থেকে জেগে উঠি। এক পর্যায়ে আরিফ, সেলিম মেম্বার ও রাসেলসহ ৬/৭ জন সন্ত্রাসী ঘরের দরজা ভেঙ্গে আমার স্বামী (সাইফুল)কে গুলি, দোকানের কর্মচারী রিপনকে কুপিয়ে আহত করে। পরে সন্ত্রাসীরা বাড়ির উঠানে ভাতিজা রিফাতকে গুলি করে।’ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন যাবত নোয়াপাড়া গ্রামের আবদুল হাকিমের পরিবারের সঙ্গে একই গ্রামের আবদুল গফুর মেম্বারের পরিবারের বিরোধ চলে আসছিল, সদ্য সমাপ্ত ইউপি নির্বাচনেও উভয় পরিবার বিপরীত মেরুতে অবস্থান নিয়ে স্ব-স্ব প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে। নির্বাচনে সেলিম মেম্বার জয়লাভ করলেও গুলিবিদ্ধ সাইফুলের পক্ষের প্রার্থী নুরুল হক পরাজিত হয়। এ নিয়ে উভয় পরিবারের পুরনো বিরোধ আরও চরম আকার ধারণ করে। তবে পুলিশের একাধিক সূত্র জানায়, রাজনৈতিক ও পূর্ব বিরোধের পাশাপাশি সম্প্রতি আরিফের স্ত্রীর একটি আপত্তিকর ছবি সাইফুল ইসলাম কর্তৃক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করার খবর পেয়ে ক্ষুব্ধ সন্ত্রাসী আরিফ শুক্রবার ভোরে তার লোকজন নিয়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী নুরুন্নাহার আঁখি বাদী হয়ে সন্ত্রাসী আরিফ, সেলিম মেম্বার, সেলিম মেম্বারের ছেলে রাসেল, আরিফের ভগ্নিপতি মাহবুবসহ ৫ জনকে এজাহার নামীয় এবং অজ্ঞাতনামা ৬/৭ জনকে আসামি করে বিকেলে মামলা দায়ের করেছে। এ ঘটনায় মামলায় অভিযুক্ত মাহবুবকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এ বিষয়ে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আব্দুর রব জানান, ‘এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে, আরিফের স্ত্রীর আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে প্রচার ও পূর্ব বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে।’

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: