২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আমতলীতে ডাকাতের হামলায় ২০ গ্রামবাসী আহত


নিজস্ব সংবাদদাতা, আমতলী (বরগুনা)॥ বরগুনার আমতলী উপজেলার কুকুয়া ইউনিয়নের ব্রিকফিল্ড এলাকায় নাসির হাওলাদারের বাড়ীতে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। ডাকাতের হামলায় ইউপি সদস্যসহ ২০ জন আহত হয়। ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীর রাতে। গুরুতর আহত ৮ জনকে বরিশাল শেবাচিম ও পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে বরগুনা পুলিশ সুপার বিজয় বসাক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার ব্রিকফিল্ড এলাকার নাসির হাওলাদারের ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘটনার দিন রাত ২ টার দিকে ১২/১৫ জনের অস্ত্র সজ্জিত ডাকাত দল ঘরে প্রবেশ করে। পরে ঘরে থাকা গৃহকর্তা তার বৃদ্ধ বাবা ছত্তার হাওলাদার ও ভাই বাচ্চু হাওলাদারসহ সকলকে মারধর করে বেঁধে ডাকাতি শুরু করে। এ সময় ডাকাতরা নগদ টাকা ও স্বর্নালংকারসহ তিন লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে যায়। এদিকে গৃহকর্তা নাসির হাওলাদার সুযোগ বুঝে বাঁধন খুলে বাহিরে এসে ডাক চিৎকার দিলে গ্রামবাসী ছুটে আসে। অবস্থা বেগতিক দেখে ডাকাতরা এলোপাতারি বন্দুকের গুলি ছুড়ে এবং ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ২০ গ্রামবাসীকে আহত করে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। ওই রাতেই গুরুতর আহতদের মধ্যে ইউপি সদস্য মো.জহির মাতুব্বর, আজিজ হাওলাদার, জাহাঙ্গির হাওলাদার ও সজলকে বরিশাল শেবাচিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও নাসির হাওলাদার, মাসুম হাওলাদার, হাবিনুর সরদার ও রিপন হাওলাদারকে পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া আহত ছত্তার হাওলাদার ও বাচ্চু হাওলাদারসহ ১২ জনকে আমতলী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়। খবর পেয়ে শুক্রবার সকালে বরগুনা পুলিশ সুপার বিজয় বসাক ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গির আলম ও আমতলী থানার ওসি পুলক চন্দ্র রায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা পুলক চন্দ্র রায় জানান বরগুনা পুলিশ সুপার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আশা করছি অল্প সময়ের মধ্যে এ সংঘবদ্ধ ডাকাত দলকে আটক করতে সক্ষম হব।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: