মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৯ আশ্বিন ১৪২৪, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

‘বেগম’ পত্রিকার সম্পাদক নূরজাহান বেগম গুরুতর অসুস্থ

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৬
  • মাহবুবা সুলতানা মনি

১৯৪৭ সালে ২০ জুলাই কলকাতা থেকে প্রথমবারের মতো প্রকাশ পেল মহিলাদের জন্য সাপ্তাহিক পত্রিকা বেগম। যার সম্পাদনার দায়িত্বে ছিলেন বেগম সুফিয়া কামাল। ১৯৫০ সালে ৩ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে ‘বেগমে’র যে চতুর্থ বর্ষ সংখ্যাটি বের হয় তার সম্পাদনায় ছিলেন নূরজাহান বেগম। ‘বেগমে’র সেই পথ চলা যাঁকে দিয়ে শুরু সেই নূরজাহান বেগম আজ স্কয়ার হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে। তাঁর সুস্থ হয়ে ওঠার জন্য আমরা সর্বশক্তিমানের কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। নারী জাগরণের পথিকৃৎ হিসেবে বেগম রোকেয়া, বেগম সুফিয়া কামালের পর যাঁর নাম আসে তিনি ‘বেগমে’র সম্পাদক নূরজাহান বেগম। ’৪৭ এর দেশ বিভাগের পর বাংলা ভাষার ওপর যে আক্রমণ আসে সেখানে মহিলাদের জন্য প্রকাশিত এক বাংলা সাপ্তাহিক পত্রিকা প্রকাশ করা কত যে দুরূহ কাজ ছিল তা বলার অপেক্ষা রাখে না। পুরো দেশ তখন পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর দ্বারা নিপীড়িত নির্যাতিত। এহেন পশ্চাদপদ সমাজব্যবস্থায় নারীদের অবস্থা হয় শৃঙ্খলিত, বিপন্ন এবং অনেকাংশে অসহায়ত্বের সর্বশেষ পর্যায়ে। সেই দুঃসময়ে নারী জাতির পথিকৃৎ হয়ে দাঁড়ালেন এই মহীয়সী নারী ব্যক্তিত্ব। অত্যন্ত নিষ্ঠা, দায়বদ্ধতা এবং কর্তব্যপরায়ণ হয়ে ‘বেগম’ পত্রিকাকে উৎকর্ষের শীর্ষে নিয়ে। বেগম নিয়মিত সাপ্তাহিক পত্রিকা হিসেবে প্রকাশ হতো। এটাও একটা কঠিন দায়িত্ব ছিল। মুসলমান পুরুষরাই যেখানে হিমশিম খাচ্ছিলেন সাহিত্য সংস্কৃতি এবং শিল্পচর্চায়। সেখানে নূরজাহান বেগমের অনমনীয় ব্যক্তিত্ব, সাংস্কৃতিক সচেতনতা, শিল্পবোধ এবং নিরলস কর্মপ্রচেষ্টার মাধ্যমে ‘বেগম’কে তার গন্তব্যে পৌঁছাতে এতটুকু পিছপা হননি। তিনি বেগমের সম্পাদনার দায়িত্ব নেয়ার পরপরই শুরু হয় ’৫২ এর ভাষা আন্দোলনের মতো ঐতিহাসিক ঘটনা। পাকিস্তানী শাসক শোষকগোষ্ঠীর নির্মম কষাঘাতে বাংলা ভাষার ওপর চলে সাংস্কৃতিক আগ্রাসন। শুধুমাত্র ‘বেগম’ পত্রিকাই নয় মহিলাদের প্রতিষ্ঠিত ‘বেগম ক্লাব’কেও এগিয়ে নেয়ার পথ চলার নূরজাহান বেগম দিশারীর দায়িত্ব পালন করেন। ‘বেগম ক্লাব’ বেগম সুফিয়া কামাল শুরু করলেও শেষ অবধি নূরজাহান বেগমই এই ক্লাবের সামগ্রিক দায়ভার গ্রহণ করেন। ‘বেগম ক্লাবে’র প্রতিষ্ঠাকাল ১৯৫৪। ‘বেগম’ পত্রিকা এবং ‘বেগম ক্লাবে’র একনিষ্ঠ সাধক, কর্মী এবং পথিকৃৎ নূরজাহান বেগম আজ রোগশয্যায় শায়িত। লাইফ সাপোর্টে তাঁকে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। এই নারী ব্যক্তিত্ব, সংস্কৃতিসেবী যেন আশু রোগমুক্তি লাভ করেন সবাই মিলে সেই দোয়াই করছি।

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৬

১৩/০৫/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: