১৯ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বায়ু দূষণের শিকার বিশ্বের ৮০ শতাংশ শহরবাসী


বিশ্বের ৮০ শতাংশেরও বেশি শহরবাসী বায়ু দূষণের শিকার। এর ফলে তাদের ফুসফুস ক্যান্সার ও অন্যান্য প্রাণঘাতী রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ছে। জাতিসংঘের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বৃহস্পতিবার তাদের নতুন প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ হুঁশিয়ারি দিয়েছে। খবর এএফপি ও গার্ডিয়ানের।

ডব্লিউএইচও বলেছে, দরিদ্র দেশগুলোর শহুরে বাসিন্দাদের অবস্থা সবচেয়ে বেশি শোচনীয়। নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোর প্রায় সব (৯৮ শতাংশ) শহর বায়ুর বিশুদ্ধতা নিয়ে ডব্লিউএইচওর নির্দেশিত মাত্রা বজায় রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। ধনী দেশগুলোর ৫৬ শতাংশ শহরও সেই মাত্রা বজায় রাখতে ব্যর্থ। ডব্লিউএইচওর জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ বিষয়ক দফতরের প্রধান মারিয়া নেইরা এক বিবৃতিতে বলেছেন, শহর এলাকার বায়ু দূষণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়েই চলেছে। এটি জনস্বাস্থ্যের ব্যাপক ক্ষতি করছে। জাতিসংঘ সংস্থাটির সর্বশেষ বায়ু দূষণ তথ্যউপাত্তে, বিশ্বের শহরগুলোর বাতাসের বিশুদ্ধতার সামগ্রিক অবনতি প্রকাশ পেয়েছে। প্রতিবেদনে বায়ু দূষণের ফলে স্ট্রোক ও হাঁপানিসহ গুরুতর অসুস্থতার ক্রমবর্ধমান ঝুঁকির বিষয় তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনে ঘরের ভেতরের পরিবর্তে বাইরের বায়ু দূষণের ওপর মনোযোগ দেয়া হয়েছে। এতে ২০০৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত সময়ে বিশ্বের ৬৭টি দেশের ৭৯৫টি শহর থেকে সংগৃহীত তথ্যের তুলনা করা হয়েছে। এতে দেখা গেছে, পাঁচ বছরে শহর এলাকার বায়ু দূষণ আট শতাংশ বেড়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পরিবেশের প্রতি সর্বাধিক ঝুঁকিপূর্ণ বায়ু দূষণকারী উপাদানগুলো হলো সাফফেট, নাইট্রেট, কালো কার্বন। বায়ু দূষণে বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর ৩০ লাখ মানুষের অকাল মৃত্যু ঘটে এবং শিশু, বৃদ্ধ ও দরিদ্ররাই সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির সম্মুখীন।

বায়ু দূষণের মাত্রার তথ্য পৃথক পৃথক দেশ সরবরাহ করায় এতে যথেষ্ট তারতম্য রয়েছে এবং তাই ডব্লিউএইচও বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকা তৈরি করেনি।