২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

১২ নার্স পেলেন মাহবুব-উজ-জামান এ্যাওয়ার্ড


স্টাফ রিপোর্টার ॥ নার্সিংসেবায় বিশেষ অবদানের জন্য ১২ নার্সকে ‘মাহবুব-উজ-জামান’ এ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছে। পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে একটি ক্রেস্ট, একটি সনদপত্র এবং নগদ দশ হাজার টাকা করে দেয়া হয়। সাবেক আইনমন্ত্রী এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে ক্রেস্ট, সনদপত্র ও নগদ টাকা তুলে দেন।

রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের সভাকক্ষে বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি এ পুরস্কার প্রদানের আয়োজন করে। ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এ কে আজাদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক আইনমন্ত্রী এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সমিতির সহ-সভাপতি মেজর জেনারেল (অব) অধ্যাপক এ আর খান, মহাসচিব মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন, এ্যাওয়ার্ডের প্রবর্তক ডায়াবেটিক সমিতির ন্যাশনাল কাউন্সিল সদস্য মাহবুব-উজ-জামান ও বারডেমের মহাপরিচালক অধ্যাপক নাজমুন নাহার।

পুরস্কারপ্রাপ্ত নার্সরা হলেন বারডেমের জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র নার্সিং সুপারভাইজার স্বপ্না ম-ল, যোসফিন রোজারিও, প্রতিমা ঘাগ্রা, শান্তি রানী দাস, সিনিয়র স্টাফ নার্স রীতা সুনু ক্যাম্পু, ফরিদা ইয়াসমিন, ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালের সিনিয়র নার্সিং সুপারভাইজার নজরুল ইসলাম, ন্যাশনাল হেলথ কেয়ার নেটওয়ার্কের স্টাফ নার্স মাকসুদা আক্তার, সিনিয়র স্টাফ নার্স মোমতা হেনা, জুনিয়র নার্স পাস্কলিনা খান, স্টাফ নার্স সালমা আক্তার ও নির্মলা রানী।

এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু বলেন, চিকিৎসা সেক্টরে চিকিৎসক ও নার্স উভয়ের দক্ষতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একজন চিকিৎসক রোগীর পাশে সার্বক্ষণিক অবস্থান করতে পারেন না। চিকিৎসকের পরামর্শ ও নির্দেশনা অনুযায়ী রোগীর পরিচর্যা করেন একজন নার্স। তাই একজন নার্সকে অবশ্যই দক্ষ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সনদধারী হতে হবে। মানুষের সেবা সেবিকাদের সব সময় আন্তরিক থাকা দরকার। একজন সেবিকা শারীরিক, মানসিক ও আত্মিকভাবে সেবা দিয়ে থাকে। আধুনিক নার্সিংয়ের অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হলেন ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল। নানা প্রতিকূল অবস্থা উপেক্ষা করে তিনি আর্তমানবতার সেবা করে গেছেন।

ক্রিমিয়ার যুদ্ধে আহত সৈনিকদের সেবা শুশ্রুষার মাধ্যমে সুস্থ করে তুলে তিনি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন যে, শুধু চিকিৎসা দ্বারা রোগীকে সম্পূর্ণরূপে নিরাময় করা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে সেবিকার ভূমিকা অপরিসীম, যা কেবল শিক্ষিত ও দক্ষ সেবিকা দ্বারাই প্রদান করা সম্ভব। অধ্যাপক এ কে আজাদ খান বলেন, সেবিকা একটি মহৎ পেশা। রোগীর সেবায় সেবিকাদের ভূমিকা খুই গুরুত্বপূর্ণ।

বিএসএমএমইউতে বিশ্ব নার্স দিবস উদ্যাপন

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) বিশ্ব নার্স দিবস উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করেছে। প্রধান অতিথি হিসেবে র‌্যালিতে নেতৃত্ব দেন বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডাঃ কামরুল হাসান খান। বাংলাদেশে এবারে দিবসটির প্রতিপাদ্য বিষয় হলো ‘স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় সঙ্কট মোকাবেলায় নার্স : পরিবর্তনে এক সহায়ক শক্তি। র‌্যালিতে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডাঃ মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডাঃ মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডাঃ এএসএম জাকারিয়া স্বপন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ মোঃ আলী আসগর মোড়ল, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডাঃ এবিএম আব্দুল হান্নান প্রমুখ। -বিজ্ঞপ্তি