মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১০ আশ্বিন ১৪২৪, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

জেলা বাজেট ঘোষণা হলেও বাস্তবায়িত হয়নি

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৬
  • আগামী ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জন্য জেলা বাজেট থাকছে না

এম শাহজাহান ॥ আগামী ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জন্য জেলা বাজেট আর করা হচ্ছে না। বিগত দুটি অর্থবছরে জেলা বাজেট ঘোষণা করা হলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। থেকেছে কাগজ-কলমেই। এ কারণে আগামী বাজেটে জেলা বাজেট থাকছে না। তবে তৃণমূল মানুষের আশা-আকাক্সক্ষার প্রতিফলনে অংশগ্রহণমূলক জেলা বাজেট প্রণয়নের তাগিদ দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তাই ভবিষ্যতে যাতে এটি কার্যকর করা যায় সে লক্ষ্যে কাঠামো সংস্কারের বিষয়ে গাইডলাইন তৈরি করবে সরকার। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য।

এদিকে, গত ২০১৩-১৪ অর্থবছরের বাজেট পেশ করার সময় টাঙ্গাইল জেলার জন্য প্রথম পরীক্ষামূলক বাজেটের ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। পরীক্ষামূলক ওই বাজেটে টাঙ্গাইল জেলার জন্য মোট ১ হাজার ৬৭৩ কোটি ৪৫ লাখ ৬৭ হাজার টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। এর মধ্যে অনুন্নয়ন ব্যয় দেখানো হয় ১ হাজার ১১৮ কোটি ৫৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা এবং উন্নয়ন ব্যয় দেখানো হয় ৫৫৪ কোটি ৯০ লাখ ২৪ হাজার টাকা। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেটে টাঙ্গাইলসহ আরও ছয়টি জেলার জন্য জেলা বাজেটের ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী। এগুলো হলোÑ চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, রংপুর ও সিলেট জেলা। এগুলো বিভাগীয় সদর জেলা। কিন্তু জেলা বাজেট বাস্তবায়ন হতে পারেনি। এমনকি পৃথক বাজেটের দাফতরিক কাগজপত্র পর্যন্ত পাঠানো হয়নি এসব জেলায়। জেলা বাজেটের আওতায় বাজেট পরিকল্পনা, রাজস্ব আহরণ, ব্যয়সহ এসব জেলাকে কোন বিষয়ে নির্দেশনাও দেয়া হয়নি। ফলে কেন্দ্রীয় বাজেটের আওতায় প্রতি বছরের মতো এবারের কার্যক্রমও পরিচালিত হচ্ছে।

জানা গেছে, জেলা বাজেটের স্বপ্ন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের। তিনি জেলা পরিষদকে শক্তিশালী করতে চেয়েছিলেন। এজন্য চলতি অর্থবছরে প্রতিটি জেলার জন্য ১০০ কোটি টাকা করে বরাদ্দও রাখতে চেয়েছিলেন। কিন্তু এ টাকা খরচের সক্ষমতা, অনুমোদনের পদ্ধতি বিবেচনা করে বরাদ্দ দেয়া হয়নি। তবে অর্থমন্ত্রীর একান্ত ইচ্ছার কারণে জেলা পরিষদের জন্য আলাদা ৩২ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে চলতি অর্থবছরের বাজেটে। কিন্তু তা কাজে আসেনি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালী না হওয়া পর্যন্ত জেলা বাজেট কার্যকর করা সম্ভব নয়। বর্তমানে দেশের স্থানীয় সরকার ব্যবস্থায় কোন শক্তি নেই। এজন্য সবকিছুই কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়। ফলে প্রশাসনের বিকেন্দ্রীকরণ ছাড়া জেলা বাজেট ঘোষণা দিয়ে কোন লাভ নেই বলে মনে করা হচ্ছে।

তারা বলছেন, স্থানীয় সরকার শক্তিশালী না হলে জেলা বাজেট কার্যকর করা সম্ভব নয়। কেননা সরকারের প্রশাসনিক ব্যবস্থা, রাজস্ব আহরণ ও ব্যয় ব্যবস্থা কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়ে আসছে। এটাকে স্থানীয়ভাবে কার্যকর করতে না পারলে জেলা বাজেট ঘোষণা করে কোন লাভ হবে না। অর্থ বিভাগ বলছে, এটা সরকারের রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। ফলে জেলা বাজেট কার্যকর করতে হলে সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছা থাকতে হবে। এজন্য সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্ত দরকার। জেলা বাজেট নিয়ে এখন সন্তুষ্ট নন অর্থমন্ত্রী নিজেও।

সম্প্রতি এক প্রাক-বাজেট আলোচনায় মুহিত বলেন, জেলা বাজেটের জন্য যে থোক বরাদ্দ দেয়া হয় তা কাজে লাগছে না। তারা কাজে লাগাতে পারছে না। তবে দেশের সুষম উন্নয়নে কাঠামোগত সংস্কারের মাধ্যমে জনমতের ভিত্তিতে আগামী অর্থবছর থেকে জনঅংশগ্রহণমূলক জেলা বাজেটের দাবি করেছে সুশাসনের জন্য প্রচারভিয়ান (সুপ্র)।

সুষম উন্নয়নমূলক দেশ গড়ার লক্ষ্যে আসন্ন বাজেট দরিদ্রবান্ধব, বাস্তবায়নযোগ্য, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতামূলক এবং জেন্ডার সমতাভিত্তিক করার দাবিও জানানো হয় সংগঠনটির পক্ষ থেকে।

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৬

১১/০৫/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অর্থ বাণিজ্য



শীর্ষ সংবাদ: