২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মুমিনুলের শতকে ভিক্টোরিয়ার জয়


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সোমবার দুটি ম্যাচেই ছিল বৃষ্টির হানা। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে আবাহনী লিমিটেড ও লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ম্যাচে এবং বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব ও ব্রাদার্স ইউনিয়নের ম্যাচে ফলাফল হয়েছে ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে। রূপগঞ্জ ওপেনার সৌম্য সরকার দীর্ঘদিন পরে রানে ফেরায় আবাহনীর বিরুদ্ধে ২১ রানের জয় পেয়েছে। আর শাহরিয়ার নাফীসের দারুণ ইনিংসের সুবাদে বৃষ্টি আইনে ৭ রানে প্রাইম ব্যাংককে হারিয়েছে ব্রাদার্স। তবে দৃষ্টি ছিল সবার ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের দিকে। সেখানে প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাবের সুযোগ ছিল টানা ৫ ম্যাচ জিতে অপরাজিত থাকার। কিন্তু ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবের কাছে ৫৯ রানে হেরে প্রথম পরাজয়ের স্বাদ নিয়েছে তারা। এরপরও ৮ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে দোলেশ্বর। আর ১টি ম্যাচ টাইয়ের কারণে সমান ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে ভিক্টোরিয়া।

দোলেশ্বরের প্রথম হার

টানা চার ম্যাচ জিতে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছিল প্রাইম দোলেশ্বর। ফতুল্লায় আরেকটি জয় তুলে নেয়ার ম্যাচ ছিল ভিক্টোরিয়ার বিরুদ্ধে। টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ৭ রানেই প্রথম উইকেট হারায় ভিক্টোরিয়া। কিন্তু দ্বিতীয় উইকেটে ১৬২ রানের জুটি গড়ে মজবুত ভিত্তি দেন আব্দুল মজিদ ও মুমিনুল। মুমিনুল দারুণ আক্রমণাত্মক খেলে ১০৪ বলে ১২ চার ও ২ ছক্কায় ১০৪ রানের ইনিংস খেলে বিদায় নেন। তবে মজিদ ছিলেন ধীরস্থির। তিনি তৃতীয় উইকেটে আরও ৮৪ রানের জুটি গড়েন আল আমিনের সঙ্গে। মজিদ ১৩৭ বলে ৭ চার ও ১ ছক্কায় ৯৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন। ৪৬ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ৫১ রান করে অপরাজিত থাকেন আল আমিন। ৩ উইকেটে ২৭০ রানের বড় সংগ্রহ পায় ভিক্টোরিয়ার। জবাব দিতে নেমে ৮ রানের মাথায় রনি তালুকদারকে (২) হারালেও দ্বিতীয় উইকেটে ৮৩ রানের জুটিতে ভালভাবেই এগিয়ে যাচ্ছিল দোলেশ্বর। কিন্তু ইমতিয়াজ হোসেনের (৪৩) বিদায়ের পর ধস নামে। একাই লড়ে রকিবুল হাসান ৯০ বলে ৭ চারে সর্বোচ্চ ৭৩ রান করেন। শেষ পর্যন্ত ৪৩.৪ ওভারে ২১১ রানেই গুটিয়ে যায় দোলেশ্বর। লঙ্কান বাঁহাতি স্পিনার চতুরঙ্গ ডি সিলভা দারুণ বোলিং করে ৩৬ রানে দখল করেন ৫ উইকেট। ৫৯ রানের বড় ব্যবধানে জিতে পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে উঠে আসে ভিক্টোরিয়া।

সৌম্য-মিঠুনের কাছে হার আবাহনীর

অবশেষে রানে ফিরলেন জাতীয় দলের ওপেনার সৌম্য। দীর্ঘদিন আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া ক্রিকেটে রান খরায় ভোগা এ ওপেনার সোমবার ৮৯ বলে ৯ চার ও ২ ছক্কায় খেলেছেন ৮৪ রানের দারুণ এক ইনিংস। মোহাম্মদ মিঠুনও দুর্দান্ত ব্যাটিং করে ৭৫ বলে ৬ চার ও ৩ ছক্কায় ৭৫ রান করেন। এদের নৈপুণ্যে ৪৬.৪ ওভারে ৫ উইকেটে ২৪৫ রান তুলে জয়ের সুবাসই পাচ্ছিল রূপগঞ্জ। কিন্তু বৃষ্টির কারণে মিরপুরে আর খেলা হয়নি। জিততে হলে ২২৫ রান করলেই হতো। সে কারণে বৃষ্টি আইনে ২১ রানের জয় পায় রূপগঞ্জ। আগে ব্যাট করে আবাহনী ৬ উইকেটে ২৫৫ রান তুলেছিল। দারুণ ব্যাটিং করেছেন ওপেনার তামিম ইকবাল (৬৪ বলে ৫৪; ৭ চার ও ১ ছক্কা), নাজমুল হোসেন শান্ত (৮২ বলে ৭২; ৬ চার, ১ ছয়) এবং মোসাদ্দেক হোসেন (৭৫ বলে অপরাজিত ৬৭; ৪ চার, ১ ছয়)। আবু হায়দার রনি ৩ উইকেট নিয়েছিলেন।

শাহরিয়ারের নৈপুণ্যে ব্রাদার্সের দ্বিতীয় জয়

লঙ্কান ব্যাটসম্যান শিহান জয়সুরিয়া ৭১ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় ৬৩ রানের একটি ইনিংস খেলেছেন। যার কারণে ৪৯.৩ ওভারে ২৪৯ রানের একটি সম্মানজনক সংগ্রহ নিয়েই গুটিয়ে যায় প্রাইম ব্যাংক। এছাড়া শানাজ আহমেদ ৪২, মেহেদি মারুফ ৩৬ ও নুরুল হাসান সোহানের ৩৪ রান ছিল উল্লেখযোগ্য। জবাব দিতে নেমে শুরু থেকেই ভালভাবে এগিয়ে যাচ্ছিল ব্রাদার্স। বিশেষ করে ওপেনার শাহরিয়ার নাফীস দারুণ ব্যাট করছিলেন। ৪২.৫ ওভারে ৩ উইকেটে ১৯৩ রান তুলে জয়ের কাছাকাছি চলে যায় ব্রাদার্স। তখনও শাহরিয়ার ১২৬ বলে ৮ চার ও ১ ছক্কায় ৮৪ রান করে অপরাজিত ছিলেন। তবে বিকেএসপির এ মাঠে আর খেলা হয়নি বৃষ্টির দাপটে। পরে ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ৭ রানের জয় পায় ব্রাদার্স।

স্কোর ॥ ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং-প্রাইম দোলেশ্বর ম্যাচ ॥

ভিক্টোরিয়া ইনিংস- ২৭০/৩; ৫০ ওভার (মুমিনুল ১০৪, মজিদ ৯৪, আল আমিন ৫১*; আল আমিন হোসেন ৩/৫৭)।

দোলেশ্বর ইনিংস- ২১১/১০; ৪৩.৪ ওভার (রকিবুল ৭৩, ইমতিয়াজ ৪৩, নাসির ৩৫; চতুরঙ্গ ৫/৩৬, আল আমিন ২/৩১, কামরুল ২/৪১)।

ফল ॥ ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ৫৯ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা ॥ মুমিনুল হক (ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং)।

আবাহনী লিমিটেড-লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ম্যাচ ॥

আবাহনী ইনিংস- ২৫৫/৬; ৫০ ওভার (শান্ত ৭২, মোসাদ্দেক ৬৭, তামিম ৫৪; হায়দার ৩/৪৮, তাইজুল ২/৫০)।

রূপগঞ্জ ইনিংস- ২৪৫/৫; ৪৬.৪ ওভার (সৌম্য ৮৪, মিঠুন ৭৫, মোশাররফ ২৫*, নাহিদুল ২৫; সাকলায়েন ২/৩৪)।

ফল ॥ বৃষ্টি আইনে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ২১ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা ॥ সৌম্য সরকার (রূপগঞ্জ)।

ব্রাদার্স ইউনিয়ন-প্রাইম ব্যাংক ম্যাচ ॥

প্রাইম ব্যাংক ইনিংস- ২৪৯/১০; ৪৯.৩ ওভার (শিহান ৬৩, শানাজ ৪২, মারুফ ৩৬, নুরুল ৩৪, রায়হান ২৬; নূর আলম ৩/২৫, সাদিক ২/৪৩, তুষার ২/৪৭)।

ব্রাদার্স ইনিংস- ১৯৩/৩; ৪২.৫ ওভার (শাহরিয়ার ৮৪*, তুষার ৪১, জাকির ৩৫; শিহান ২/২৫)।

ফল ॥ বৃষ্টি আইনে ৭ রানে জয়ী ব্রাদার্স ইউনিয়ন।

ম্যাচসেরা ॥ তুষার ইমরান (ব্রাদার্স)।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: