মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ আগস্ট ২০১৭, ৫ ভাদ্র ১৪২৪, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

ভুল করতে চায় না ইংলিশরা

প্রকাশিত : ১০ মে ২০১৬
  • ইংল্যান্ড-শ্রীলঙ্কা সিরিজ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ঘরের মটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজকে ঘিরে পুরো ইংল্যান্ড দলই আত্মবিশ্বাসী। দুই অভিজ্ঞ খেলোয়াড় অধিনায়ক এ্যালিস্টার কুক ও প্রধান পেসার জেমস এন্ডারসন মনে করেন, সফরকারীদের বিপক্ষে ২০১৪ সালের পুনরাবৃত্তি হবে না। ১৯ মে হেডিংলি টেস্ট দিয়ে শুরু তিন ম্যাচের ‘ইনভেস্টেক’ সিরিজ। এই মাঠে দুই বছর আগে নাটকীয় এক জয়ের মাধ্যমে দুই ম্যাচের সিরিজ ১-০ ব্যবধানে জিতে নিয়েছিল লঙ্কাননরা। লর্ডসে প্রথম ম্যাচ ড্র হওয়ার পরে হেডিংলি টেস্টটি সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে পরিণত হয়েছিল। মঈন আলির অভিষেক সেঞ্চুরিতে ইংল্যান্ড প্রায় নিজেদের করেই নিয়েছিল। কিন্তু চতুর্থ দিনে লঙ্কান অধিনায়ক এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের দুর্দান্ত ১৬০ রানের ইনিংস ও অষ্টম উইকেটে টেল-এন্ডার রঙ্গনা হেরাথের সঙ্গে তার ১৪৯ রানের জুটিতে পুরো ম্যাচের চেহারাই পাল্টে গিয়েছিল।

কুকের ফিল্ডিং সাজনো নিয়ে বিতর্কে ম্যাথুজ তার ইনিংসের ২৫টি বাউন্ডারির শেষ কয়েকটি হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন। কুকের অধিনায়কত্ব নিয়ে ঐ সময় অনেক সমালোচনা করেছিলেন অস্ট্রেলিয়ান সাবেক তারকা শেন ওয়ার্ন। ফলাফলকে ছাপিয়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এসেছিল কুকের নেতৃত্ব। এন্ডারসন মনে করেন এটা শুধ কুকের একক সিদ্ধান্ত ছিল না। এতে কোচ ট্রেভর বেলিসেরও আধিপত্য ছিল। যদিও এন্ডারসন বিশ্বাস করেন সেই ধরনের পরিস্থিতি এবার আর হবে না, ‘২০১৫ সালে কোচ হিসেবে ট্রেভর আসার পরে ও কিছু খেলোয়াড়ের পরিবর্তনে গত এক বছরে দলের মানসিকতায়ও অনেক পরিবর্তন হয়েছে। সকলের মধ্যে ভিন্ন মাত্রার আত্মবিশ্বাস ফিরে এসেছে।’ ৩৩ বছর বয়সী এন্ডারসন মনে করেন, ‘কুকের নেতৃত্বে এ্যাশেজ ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ জয়ই তার প্রমাণ। কুকের সঙ্গে এখন অনায়াসে অস্ট্রেলিয়ান সফল অধিনায়ক এ্যালান বোর্ডার, মার্ক টেইল ও স্টিভ ওয়াহদের তুলনা করা যায়।’

এন্ডারসন বলেন, ‘ট্রেভর কুকের ওপর অনেক বেশি দায়িত্ব অর্পণ করেছেন। যে কোন দলেই মূলত কোচই সামনে থেকে দলকে নেতৃত্ব দেয়। কিন্তু অধিনায়কও যদি সেই দায়িত্বের ভাগিদার হয় তবে সেই দল সাফল্য পেতে বাধ্য। এ কারণেই এখনকার ইংল্যান্ড দল অনেক বেশি পরিণত। শ্রীলঙ্কাকে মোকাবেলা করার মতো সব ধরনের দক্ষতা তাদের মধ্যে আছে।’ অন্যদিকে ম্যাথুজের মতে সিরিজটা তাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং হবে। তিনি বলেন, ‘উপমহাদেশে আমরা অনেক ক্রিকেট খেলেছি, ইংল্যান্ডে সেভাবে নয়। তাই এখানে খেলাটা হবে আমাদের জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জের। বিশেষ করে শুরুতেই কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া। কারণ উইকেট হয়তো কিছুটা ভেজা থাকবে এবং বল সিম ও সুইং পেতে পারে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমরা কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারলে এবং আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে ভাল করা সম্ভব।’

তিন টেস্টের সিরিজ শেষে আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে দুটি ওয়ানডে ও ইংলিশদের সঙ্গে পাঁচ ওয়ানডে ও এক টি২০ খেলবে লঙ্কানরা। গত টি২০ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড দলের পরামর্শক ছিলেন মাহেলা। ফাইনালে উঠে চমক দেখিয়েছিল মরগান বাহিনী। মাহেলা-সাঙ্গার মতো ক্রিকেটার তাদের অভিজ্ঞতা বিলিয়ে দলকে সাহায্য করতে পারেন বলেও মনে করেন লঙ্কাপতি। ম্যাথুজ বলেন, ‘দু’জনই গ্রেট ব্যাটসম্যান। তারা এখানে অনেক ক্রিকেট খেলেছেন এবং নেতৃত্ব দিয়েছেন। যথেষ্ট অভিজ্ঞতা রয়েছে। আমাদের সাহায্য করলে সেটি হবে দারুণ ব্যাপার।’

কোচ হিসেবে ভেট্টরিকে চান কোহলি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ভারতের পরবর্তী কোচ হিসেবে নিউজিল্যান্ডের সাবেক বাঁহাতি স্পিনার ও বতর্মানে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর ও বিগ ব্যাশে ব্রিসবেন হিটের কোচ ড্যানিয়েল ভেট্টরির নাম সুপারিশ করেছেন ভারত টেস্ট অধিনায়ক বিরাট কোহলি। মহেন্দ্র সিং ধোনীর অবসরের সুবাদে ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব প্রহণ করেন কোহলি। অতীতে গ্রেগ চ্যাপেল ও গ্যারি কারস্টেনদের সাফল্যই তাকে ভেট্টরির প্রতি আকৃষ্ট করেছে। তবে ইন্ডিয়ান বোর্ডের (বিসিসিআই) পক্ষ থেকে এখনও এই কিউই তারকাকে কোন ধরনের প্রস্তাব দেয়া হয়নি। চলতি বছরের জুন থেকে ২০১৭ সালের মার্চ পর্যন্ত ভারতের ১৮টি টেস্ট ম্যাচ খেলার কথা রয়েছে। এ কারণেই জাতীয় দলের কোচ নিয়োগের ব্যাপারটি যে কোন সময়ই নিশ্চিত হতে পারে। গত বছর মার্চে আইসিসি বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারের পরপরই ভেট্টরি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানান। ক্যারিয়ারের ইতি টানার সঙ্গে সঙ্গে গত বছরের এপ্রিলে অকল্যান্ডের এই ৩৭ বছর বয়সী স্পিনারকে ব্রিসবেন হিট থেকে ডাকা হয়। ইতোমধ্যে (২০১৪ সাল থেকে) আইপিএলে ব্যাঙ্গালুরুর কোচের দায়িত্ব পালন করছিলেন ভেট্টরি। ব্রিসবেনে তিন বছরের চুক্তিতে অভিজ্ঞ স্টুয়ার্ট ল’র স্থলাভিষিক্ত হন। কোহলির সুপারিশ মেনে নিলে ভারতের পরবর্তী কোচ হিসেবে ভেট্টরিকেই দেখা যেতে পারে। অবশ্য এজন্য বিগ ব্যাশের দায়িত্বও মাথায় রাখতে হবে। উল্লেখ্য, বিসিসিআই ইতোমধ্যেই রাহুল দ্রাবিড়কে প্রধান কোচের পদের জন্য প্রস্তাব দিয়েছে। তবে কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবেন দ্রাবিড়।

প্রকাশিত : ১০ মে ২০১৬

১০/০৫/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ:
চাহিদার চেয়ে কোরবানিযোগ্য পশুর সংখ্যা বেশি ॥ কোন সঙ্কট হবে না || বঙ্গবন্ধুর খুনীরা যে গর্তেই লুকিয়ে থাকুক ধরে এনে রায় কার্যকর করা হবে ॥ আনিসুল হক || উত্তরের বন্যার পানি নামছে, মধ্যাঞ্চলে নতুন এলাকা প্লাবিত || রায় যদি বিরাগ প্রসূত হয়ে থাকে তাহলে শপথ ভঙ্গ হবে || কমলাপুরে মানুষের ঢল, প্রত্যাশিত টিকেট না পেয়ে অনেকেই হতাশ || সেই মৃত্যু- রক্তস্রোতের ভয়ঙ্কর স্মৃতি আজও তাড়িয়ে বেড়ায় || বিএনপির ক্ষমতার রঙিন খোয়াব কর্পূরের মতো উবে গেছে ॥ কাদের || মেগা প্রকল্পে অর্থ ব্যয়ের ওপরই নির্ভর করছে চট্টগ্রামের উন্নয়ন || যমুনার বাঁধে আশ্রয় নিতেও এককালীন নজরানা, দিতে হয় মাসিক ভাড়া || আওয়ামী লীগে যোগ দেয়া ৪শ’ জামায়াতীর ওপর নজরদারি ||