মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
১৮ আগস্ট ২০১৭, ৩ ভাদ্র ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

রসুনের দাম ৩০০ টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে

প্রকাশিত : ১০ মে ২০১৬
রসুনের দাম ৩০০ টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ হঠাৎ রসুনের বাজারে দামের উল্লম্ফন। পণ্যটির দাম এখন আকাশছোঁয়া। নানা অজুহাতে বাড়ছে রসুনের দাম। মাত্র দু’দিনের ব্যবধানে রসুনের দাম পাইকারি বাজারে ২০ থেকে ৩০ টাকা এবং খুচরা বাজারে বেড়েছে ৬০ থেকে ৮০ টাকা।

রাজধানীর খুচরা বাজারের সঙ্গে পাইকারি বাজারের বিস্তর ব্যবধানসহ আকাশছোঁয়া দামে রসুন বিক্রি করতে দেখা গেছে। সরকার দ্রুত পণ্যটির দাম নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে রসুনের দাম ৩০০ টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা।

রাজধানীর মালিবাগ, সেগুনবাগিচা, কাপ্তানবাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, খুচরা বাজারে প্রতি কেজি আমদানি করা রসুন বিক্রি হচ্ছে ২৭০ থেকে ২৮০ টাকায় এবং দেশী রসুন বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকায়। অথচ গত শুক্রবার এসব বাজারে আমদানি করা প্রতি কেজি রসুন ২০০ থেকে ২২০ টাকায় এবং দেশী রসুন ৯০ টাকা থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। অর্থাৎ দু’দিনের ব্যবধানে দেশের খুচরা বাজারে আমদানি করা প্রতি কেজি রসুনের দাম ৬০ টাকা থেকে ৮০ টাকা এবং দেশী রসুন ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে।

রাজধানীর শ্যামবাজারের পাইকারি ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, রবিবার প্রতি কেজি আমদানি করা রসুন ২০৫ থেকে ২১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এ বাজারে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানে আমদানি করা রসুন নেই বলে জানিয়েছেন তারা। তবে প্রত্যেক আড়তে দেশী রসুনের ভরপুর মজুদ দেখা গেছে।

পাইকাররা আরও জানিয়েছেন, মাঝে দু’একদিন আমদানি জটিলতার কারণে রসুনের দাম বাড়ে। পাইকারি বাজারে সামান্য বাড়লেও খুচরা বাজারে ভোক্তাদের কাছে চড়া দামে রসুন বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের। তাই খুচরা বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণ করা জরুরী বলে মনে করছেন তারা। তবে খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছে, পাইকারি বাজারে রসুনের দাম বাড়ায় খুচরা বাজারে এর প্রভাব পড়েছে। কিন্তু দামের বিস্তর ফারাকের বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, পাইকারি বাজার থেকে রসুন কিনে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত পৌঁছাতে অনেক খরচ হয়। তা যোগ করে হিসাব করলে একটু বাড়তি দামেই পণ্য বিক্রি করতে হয়।

পাইকারি বাজারের সঙ্গে খুচরার পার্থক্য ॥ আমদানি করা প্রতি কেজি রসুন পাইকারি বাজারে রবিবার বিক্রি হয়েছে ২০৫ থেকে ২১০ টাকায়। অথচ খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৬০ থেকে ২৮০ টাকায়। অর্থাৎ ক্রয়মূল্যের চেয়ে মুনাফা করছে ৫৫-৭০ টাকা।

কাপ্তানবাজারের খুচরা ব্যবসায়ী ফরিদপুর ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী হাজী জামাল উদ্দিন বলেছেন, ‘হঠাৎ করে পাইকারি বাজারে রসুনের দাম বেড়ে যায়। শনিবার বাজারে রসুনের জন্য গেলে চড়া দাম চায় পাইকাররা। পরে চড়া দামেই রসুন এনে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।’

শ্যামবাজারের পাইকার মেসার্স সুরমা বাণিজ্যালয়ের স্বত্বাধিকারী স্বপন রায় বলেন, ‘রসুনের দাম বাড়া-কমার সঙ্গে সম্পর্ক হচ্ছে আমদানিকারকদের। আমরা পণ্য বিক্রি করলে আমদানিকারকরা আমাদের একটি কমিশন দেয়।’ তবে দু’একদিন ধরে বাজারে রসুনের ক্রাইসিস রয়েছে বলে জানান তিনি।

সরকারী সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবমতে, রবিবার আমদানি করা রসুন ২৫০ থেকে ২৭০ টাকায় এবং দেশী রসুন ১০০ থেকে ১৩০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। অথচ শুক্রবার আমদানি করা রসুন ১৭০ থেকে ১৯০ টাকায় এবং দেশী রসুন ৮০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। সংস্থাটির হিসাবমতে, দু’দিনের ব্যবধানে আমদানি করা প্রতি কেজি রসুনের দাম ৭০ থেকে ৮০ টাকা এবং দেশী রসুনের দাম ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে।

গত এক মাসের ব্যবধানে দেশী রসুনের দাম বেড়েছে ৬৪ শতাংশ এবং আমদানি করা রসুনের দাম বেড়েছে ৪৪ শতাংশ। গত এক মাস আগে দেশী রসুন ৬০ থেকে ৮০ টাকায় এবং আমদানি করা রসুন ১৭৫ থেকে ১৯০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তবে কী কারণে দাম বেড়েছে সে বিষয়ে টিসিবি কিছু জানায়নি।

বিশ্লেষকরা বলছেন, রমজানের আগেই রসুনসহ অন্যান্য পণ্যের দাম বাড়ছে। সরকার এসব নিয়ন্ত্রণে মাঠে নামছে না। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এবারের রমজানে জিনিসপত্রের দাম নিয়ন্ত্রণে থাকবে। যদি এভাবে দাম বাড়তে থাকে তাহলে ভোক্তারা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই শীঘ্রই সরকারের মনিটরিং ব্যবস্থা কার্যকর করা উচিত বলে মনে করেন তারা।

প্রকাশিত : ১০ মে ২০১৬

১০/০৫/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অর্থ বাণিজ্য



শীর্ষ সংবাদ: